ঢাকা Tuesday, 18 June 2024

কাঁচা মরিচের ডবল সেঞ্চুরি, ডিম-সবজিও ঊর্ধ্বমুখী

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: 15:17, 24 May 2024

কাঁচা মরিচের ডবল সেঞ্চুরি, ডিম-সবজিও ঊর্ধ্বমুখী

সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে দ্বিগুণ হয়েছে কাঁচা মরিচের দাম। গত সপ্তাহে  ১০০ থেকে ১২০ টাকা বিক্রি হলেও বর্তমানে পণ্যটির দাম ২০০ টাকা ছুঁয়েছে। কোথাও কোথাও দাম ২২০ টাকাও নেওয়া হচ্ছে। বিক্রেতারা বলছেন, বাজারে কাঁচামরিচের সরবরাহ কম থাকায় দাম বেড়েছে। এদিকে সবজির বাজারে নেই স্বস্তির খবর। বাড়তি আলু-পেঁয়াজের দামও। শুক্রবার (২৪ মে) রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, রাজধানীর সব বাজারেই কাঁচামরিচ প্রতি কেজি ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, তবে যেসব মরিচের মান কিছুটা ভালো তা ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কিছুদিনের বৃষ্টির কারণে কাঁচামরিচের দাম বেড়েছে। কারণ দেশের মরিচ গাছগুলো বৃষ্টি হলেই পচে যায়। এ ছাড়া কিছুদিনের তীব্র গরমে মরিচ গাছগুলো আগেভাগেই নষ্ট হয়ে গেছে। বর্তমানে মরিচের মৌসুম শেষ হয়ে আসায় গাছগুলো শুকিয়ে যাচ্ছে। সব মিলিয়ে বাজারে কাঁচামরিচের সরবরাহ আগের তুলনায় কম হচ্ছে, ফলে দাম বেড়েছে।

এ ছাড়া গত সপ্তাহেই বাজারে ডিমের হালি হাফ সেঞ্চুরি ছাড়িয়েছে। দোকানগুলোতে ৫৫ টাকা হালিতে ডিম বিক্রি হতে দেখা গেছে। যা গত সপ্তাহে ছিল ৪৫ টাকা, আর তিন সপ্তাহ আগে ছিল ৪০ টাকা।

এদিকে বাজারে সব ধরনের সবজি চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। বাজারগুলোতে গ্রীষ্মকালীন সবজি কচুরমুখীর কেজি ১২০ টাকা, বেগুন ৭০ থেকে ১০০ টাকা, করলা ৮০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, ঢেঁড়স ৫০ টাকা, বরবটি ১০০ টাকায়, শসা ৬০ টাকা, লাউ প্রতিটি ৪০  থেকে ৫০ টাকা, পেঁপে প্রতি কেজি ৮০ টাকা, ধুন্দল ৬০ টাকা, চিচিঙ্গা ৬০ টাকা, কচুর লতি ৮০ টাকা, ঝিঙা ৮০ টাকা, সজনে ১৬০ টাকা এবং কাঁচা আম প্রকারভেদে ৬০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।  

বাজারগুলোতে মুলা ৫০ টাকা কেজি, ফুলকপি প্রতিটি ৪০ থেকে ৫০ টাকা, বাঁধাকপি ৪০ থেকে ৫০ টাকা, ব্রোকলি ৪০ টাকা, পাকা টমেটো প্রকারভেদে ৪০ থেকে ৬০ টাকা এবং গাজর ৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। লেবুর হালি ১০ থেকে ৪০ টাকা, ধনে পাতার কেজি ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা, কলার হালি ৪০ টাকা, মিষ্টি কুমড়ার কেজি ৪০ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া ব্রয়লার মুরগি ২১০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহেও একই দরে বিক্রি হয়েছিল। বাজারগুলোতে সোনালি ৩৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। সোনালি হাইব্রিড ৩৩০ টাকা, দেশি মুরগি ৬৫০ থেকে ৬৮০ টাকা কেজি, লেয়ার মুরগি ৩৪০ টাকা এবং সাদা লেয়ার ৩১০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে গরুর মাংসের কেজি ৬৫০ থেকে ৭৮০ টাকা, গরুর কলিজা ৭৮০ টাকা, গরুর মাথার মাংস ৪৫০ টাকা, গরুর বট ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা এবং খাসির মাংস ১ হাজার ৫০ থেকে ১ হাজার ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।  

সরবরাহ কম থাকায় বাজারে বেড়েছে মাছের দামও। মাছ কিনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে ক্রেতাদের। নদী ও হাওরের মাছ সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে গেছে অনেক আগেই। চাষের মাছও বেশ চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে এখন।

এ বিষয়ে কারওয়ান বাজারের মাছ বিক্রেতা পলাশ হাসান বলেন, গত মাসের চেয়ে প্রত্যেক জাতের মাছ কেজিতে ৫০ থেকে ১০০ টাকা বেড়েছে। দাম বেড়ে যাওয়ায় আমাদের বেচাকেনাও কমে গেছে। এ ছাড়া আড়তে মাছ নেই। যা পাই তারও দাম চড়া। বাড়তি দামে কাস্টমাররা মাছ নিচ্ছে না। ব্যবসা করা কঠিন হয়ে যাচ্ছে।