ঢাকা Sunday, 26 May 2024

পরকীয়ার কারণে খুন হয় মিতু : শাহেদা

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: 22:08, 23 April 2024

পরকীয়ার কারণে খুন হয় মিতু : শাহেদা

ভারতীয় এক নারীর সঙ্গে সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের পরকীয়ার জেরে খুন হন মাহমুদা খানম মিতু। 

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) চট্টগ্রামের তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ মো. জসিম উদ্দিনের আদালতে দেয়া সাক্ষ্যে এমন দাবি করেছেন মিতুর মা শাহেদা মোশাররফ। এসময় মামলার আসামি বাবুলও আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

সাক্ষ্যে শাহেদা মোশাররফ বলেন, বাবুল কক্সবাজারে বদলি হওয়ার পর সেখানে ভারতীয় বংশোদ্ভূত এক নারীর সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। একদিন বাবুল আক্তার মিতুকে নিয়ে কক্সবাজারের একটি হোটেলে ওঠে। পাশের রুমে ওই নারীও উঠেছিল। ওই নারীর রুমে বাবুল আক্তারকে আপত্তিকর অবস্থায় মিতু দেখে ফেলে। তার পরকীয়া সম্পর্কের বিষয়টি মিতু আমাদের জানিয়েছিল। এসব কিছু আমাদের বলায় বাবুল মিতুর ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু করে। এরপর মিতু তিন-চারবার আত্মহত্যার চেষ্টা করে।

মিতুর মা জানান, পূর্বপরিকল্পিতভাবে বাবুল আক্তার তার মেয়ে মিতুকে খুন করিয়েছে। পরবর্তীতে মিথ্যা তথ্য দিয়ে নিজেই মিতু হত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের করে।

তিনি আরো বলেন, কিছুদিন আগে বাবুলের মা নিজে তার কাছে স্বীকার করেছেন বাবুল মিতুকে হত্যা করেছে, তাকে যেন আমরা মাফ করে দিই। 

শাহেদা মোশাররফ বলেন, বাবুল আক্তার বিদেশে (মিশনে) থাকার সময় তিন-চারবার বাংলাদেশে আসে। দেশে ফিরলেও সে বাসায় অর্থাৎ মিতু বা ছেলেমেয়েদের কাছে যায়নি। মিশন শেষ করে ফিরেই সে চীনে চলে যায়। সেখানে বসেই বাবুল মিতুকে মারার পরিকল্পনা করে।

তিনি বলেন, মিতুর একটি ব্যবসা ছিল। ব্যবসার তিন লাখ টাকা দিয়েই মিতুকে খুন করায় বাবুল। মিতু মারা যাওয়ার পর বাবুল আক্তার আমাদের বাসায় ওঠে। ছয় মাস আমাদের বাসায় ছিল সে। সেখানে বসে সে আসামিদের সঙ্গে যোগাযোগ করে। ২৪ জুন (২০১৬) বাবুল আক্তারকে ডিবি অফিসে নিয়ে যাওয়া হয়। তারপর বাবুল সেখান থেকে চাকরি ছেড়ে আসে। আমি তখন তাকে জিজ্ঞেস করি, চাকরি ছাড়লে কেন? তখন সে বলে, মিতু খুন হওয়ার কারণে আমাকে চাকরি ছাড়তে হয়েছে। আমি তাকে বলি, তোমার চাকরি ছাড়ার বিষয় কি মিতুর খুনের বিচারের জন্য?

শাহেদা বলেন, বাবুল আক্তার মিতুকে খুন করার জন্য মুসাকে ৭০ হাজার টাকা দিয়ে অস্ত্র কিনে দেয়। একথা বলেছে মুসার স্ত্রী। মুসার স্ত্রী তাকে জিজ্ঞেস করেছিল, তুমি মিতুকে খুন করেছ? তখন মুসা তার স্ত্রীকে বলে, আমি খুন না করলে বাবুল আক্তার আমাকে ক্রসফায়ার দেবে। বাবুল আক্তার আমাদের বলেছিল, মিতুর খুনের আসামিরা গ্রেপ্তার হয়েছে। আমি ক্রসফায়ার দিতে বলেছি।

তিনি আরো বলেন, আসামি ওয়াসিম, আনোয়ার গ্রেপ্তার হয়েছিল। এর কিছুদিন পরেই ভোলা ধরা পড়ে। গ্রেপ্তার হওয়ার পর সে আদালতে জবানবন্দি দেয়, বাবুল আক্তারের নির্দেশেই মুসা মিতুকে খুন করেছে। মিতু মারা যাওয়ার দেড় মাস পর সে যে বাসায় ছিল ওখানে মিলাদ পড়ানোর জন্য আমরা চট্টগ্রাম আসি। এর কিছুদিন পর আসামি কালু ও শাহজাহান গ্রেপ্তার হয়। আমরা চট্টগ্রাম আসার পরে অবস্থা দেখে মনে হয়েছে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে বাবুল আক্তার মিতুকে খুন করেছে। মিথ্যা তথ্য দিয়ে ও নিজেই মিতু হত্যার মামলা করেছে।

শাহেদার সাক্ষ্য শেষে তাকে জেরা করেন আসামি বাবুল আক্তারের আইনজীবী কফিল উদ্দিন চৌধুরী। তিনি বলেন, সাক্ষী শাহেদা মোশাররফ আদালতে বলেছেন - বাবুল আক্তার ভারতীয় বংশোদ্ভূত গায়ত্রী নামে এক নারীর সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়েছিলেন। এ কারণে নাকি বাবুল কিলার ভাড়া করে মিতুকে খুন করিয়েছেন। বিয়ের পর থেকে বাবুলের সঙ্গে তার মেয়ে মিতুর সম্পর্ক ভালো ছিল না বলেও আদালতে উল্লেখ করেন শাহেদা।

কফিল উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আদালতে শাহেদা এখন এসব কথা বললেও মিতু খুন হওয়ার পর কখনো কারো কাছে বলেননি যে বাবুলের সঙ্গে তার মেয়ের সম্পর্ক ভালো ছিল না। এমনকি মিতু খুন হওয়ার পর ছয় মাস বাবুল তার ছেলেমেয়েকে নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে ছিলেন। ওই সময়ও তিনি বাবুলকে দায়ী করেননি। বরং পত্রিকায় সাক্ষাৎকার দিয়ে বাবুলের সুনাম করেছিলেন। আমরা জেরা করার সময় এসব বিষয় আদালতে উল্লেখ করেছি। জেরা এখনো শেষ হয়নি। বুধবারও তাকে জেরা করা হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে নগরীর পাঁচলাইশ থানার নিজাম রোডে ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে বাসার কাছেই গুলি ও ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয় মাহমুদা খানম মিতুকে। স্ত্রী খুনের ঘটনায় তৎকালীন এসপি বাবুল আক্তার বাদী হয়ে নগরীর পাঁচলাইশ থানায় একটি হত্যামামলা দায়ের করেন। পরে পিবিআই মামলার তদন্তে নেমে বাবুল আক্তারের সম্পৃক্ততা পাওয়ায় তাকে মামলার প্রধান আসামি করে চার্জশিট দেয়া হয়।