ঢাকা Saturday, 02 March 2024

সাগর-রুনি হত্যার এক যুগ : এখনও কি শেষ হয়নি ৪৮ ঘণ্টা?

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: 14:06, 11 February 2024

আপডেট: 14:06, 11 February 2024

সাগর-রুনি হত্যার এক যুগ : এখনও কি শেষ হয়নি ৪৮ ঘণ্টা?

ফাইল ছবি

সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যার এক যুগে বারবার তদন্ত সংস্থা ও তদন্ত কর্মকর্তা বদলেছে। কিন্তু তারপরও খুলেনি হত্যা রহস্যের জট। এখনও শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি হত্যার সাথে জড়িত আসামিদের। জব্দ আলামত পরীক্ষা ও নিহতদের খোয়া যাওয়া ল্যাপটপ উদ্ধারের পর্যায়েই আটকে আছে মামলার তদন্ত। যদিও র‌্যাবের পক্ষ থেকে বরাবরের মতো দাবি করা হচ্ছে, মামলার দৃশ্যমান অগ্রগতি হয়েছে। কিন্তু এখনও এ বিষয়ে কোনো প্রতিবেদন দিতে পারেনি সংস্থাটি।

২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল থেকে, র‌্যাব ১০৫ বার আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন জমার সময় চেয়েছে। এর আগে আরো দুই সংস্থা দুই বার সময় চেয়েছে। সব মিলিয়ে এই হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে ১০৭ বার সময় পেছানো হয়েছে। ফলে সচেতন মহলে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, ৪৮ ঘণ্টা আর কত বছরে শেষ হবে? কবে খুনিরা ধরা পড়বে? কবে খুলবে রহস্যের জট?

১২ বছর আগে ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাতে রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ৫৮/এ/২ বাড়ির ৫ তলার এ-৪ ফ্ল্যাটে নৃশংসভাবে খুন হন সাংবাদিক দম্পতি মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সারোয়ার ও এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনি। সেই সময় ফ্ল্যাটটিতে বাবা-মায়ের সঙ্গে ছিল তাদের একমাত্র সন্তান মাহির সারোয়ার মেঘ। তার বয়স ছিল তখন মাত্র পাঁচ বছর। বাবা-মায়ের সেই নৃশংস মৃত্যু নিয়ে এখনও অন্ধকারে ১৭ বছরের এই কিশোর।

হত্যাকাণ্ডের পরপরই তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে খুনিদের গ্রেপ্তারের প্রতিজ্ঞা করেছিলেন। সেই ৪৮ ঘণ্টা এখন প্রায় ১,০৫,১৯২ ঘণ্টায় গড়িয়েছে, কিন্তু প্রতিশ্রুতি পূরণ হয়নি। হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হবার পরের দিন রুনির ভাই নওশের আলী রোমান বাদী হয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা দায়ের করেন।

সর্বশেষ এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দেওয়ার নির্ধারিত দিন ছিল গত ২৩ জানুয়ারি মঙ্গলবার। কিন্তু র‍্যাবের পক্ষ থেকে ওই দিনও আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়নি। ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালত আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নতুন তারিখ ধার্য করেছেন।

হত্যা মামলার তদন্ত প্রসঙ্গে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানান, মামলাটি অত্যন্ত সংবেদনশীল। এটি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করা হচ্ছে। এ জন্য বিদেশের বিভিন্ন সংস্থার সহযোগিতা নিয়েছি। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের ডিএনএ ল্যাবের ফলাফলে অজ্ঞাতপরিচয়ের দুজনের ডিএনএ থেকে সন্তোষজনক ফল আসেনি। ফলে এখন পর্যন্ত ওইভাবে মামলার অগ্রগতি নেই।

তিনি বলেন, তদন্ত চলছে। তদন্তে একজন নিরপরাধ ব্যক্তি যেন দোষী না হয়। প্রকৃত দোষীদের শনাক্ত করতে সময় লাগছে।

মেয়ে ও জামাতা হত্যার বিচারের অপেক্ষায় থেকেই দুই বছর আগে রুনির মা নূর নাহার মির্জা মারা যান।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের এত বছর পেরিয়ে গেলেও ছেলে হত্যার বিচার না পাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সাগর সারোয়ারের মা সালেহা মনির। তিনি বলেন, একযুগ পার হতে যাচ্ছে সাগর-রুনির হত্যার। এখন পর্যন্ত আমার ছেলের হত্যাকারী কে সেটাই জানতে পারলাম না। ছেলেকে তো আর ফেরত পাবো না। আমার একটাই কথা, ছেলে হত্যার বিচার চাই। এখন পর্যন্ত আমার ছেলের কবর জিয়ারত করতে যাইনি। প্রতিজ্ঞা করেছি, যেদিন ছেলের হত্যাকারীদের দেখবো, ওইদিন কবর জিয়ারত করবো। এর আগে যদি আমার মৃত্যু হয়, হোক। খুনিদের না দেখে আমি ছেলের কবর জিয়ারত করতে যাবো না।

তিনি আরো বলেন, র‌্যাব তো সব জানে। প্রতিবেদন জমা দিলেই তো হয়। প্রতিবেদন যদি জমা না দিতে পারে সেটাই তারা প্রকাশ করুক। এভাবে ঝুলিয়ে রাখার কোনো মানে আসে না। এত বড় বড় মামলার সমাধান করছে র‌্যাব। অথচ এই মামলা ১২ বছরেও সমাধান করতে পারলো না। কত খুনের বিচার হচ্ছে, ক্লুলেস কত মামলায় বিচার হচ্ছে। কিন্তু সাগর-রুনির বেলায় এমন হচ্ছে কেন আমার বোধগম্য নয়।

এ প্রসঙ্গে মামলার বাদী ও রুনির ভাই নওশের আলম রোমান বলেন, ১২ বছরেও কোনো অগ্রগতি নেই, আর কবে হবে? আমরা আশা ছেড়ে দিয়েছি। শুধু এতটুকু বলতে পারি, তদন্ত কর্মকর্তা এ বিষয়ে কাজ করছেন না। আমাদের সঙ্গেও যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছেন। অথচ প্রতিবছর তারা বলে আসছে, দৃশ্যমান অগ্রগতি হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে কিছুই নয়। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আদালতও যেখানে বারবার সময় দিচ্ছেন, সেখানে আমাদের আর কী বলার আছে! তবে, জট খোলার চেষ্টা না করলে জট খুলবে না, এটাই স্বাভাবিক।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালে নওশের আলী রোমান বাদী হয়ে মামলা করার পর প্রথমে সেটির তদন্ত করেন শেরেবাংলা নগর থানার একজন কর্মকর্তা। ১৬ ফেব্রুয়ারি মামলার তদন্ত ভার পড়ে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) উত্তরের পুলিশ পরিদর্শক মো. রবিউল আলমের ওপর। এর দুই মাস পর হাইকোর্টের আদেশে মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় র‌্যাবকে। র‌্যাব মামলার তদন্তে নেমে গ্রেপ্তারকৃত ৮ আসামি, নিহত দুজন এবং স্বজন মিলে ২১ জনের ডিঅক্সিরাইবো নিউক্লিক এসিড (ডিএনএ) নমুনা পরীক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে পাঠায়। যুক্তরাষ্ট্রের পরীক্ষাগার থেকে ডিএনএ পরীক্ষার রিপোর্টগুলো হাতেও পেয়েছে র‌্যাব। সে রিপোর্ট ও অপরাধচিত্রের প্রতিবেদন (ক্রাইম সিন রিপোর্ট) পর্যালোচনায় দুজনের ডিএনএর পূর্ণাঙ্গ প্রোফাইল পাওয়া গেছে। তবে সন্দেহভাজন খুনি শনাক্ত হয়নি।

এ মামলায় রুনির বন্ধু তানভীর রহমানসহ মোট ৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত অন্য আসামিরা হলেন- বাড়ির নিরাপত্তাকর্মী এনাম আহমেদ ওরফে হুমায়ুন কবির, রফিকুল ইসলাম, বকুল মিয়া, মিন্টু ওরফে বারগিরা মিন্টু ওরফে মাসুম মিন্টু, কামরুল হাসান অরুন, পলাশ রুদ্র পাল ও আবু সাঈদ। এদের মধ্যে তানভীর ও পলাশ রুদ্র জামিনে আছেন। অন্য আসামিরা কারাগারে। সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তার এই ৮ জনের কেউই এখন পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করেননি।