ঢাকা Tuesday, 18 June 2024

শৈলকুপা থানায় হামলা : ১১ জন চারদিনের রিমান্ডে 

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 21:36, 11 June 2024

আপডেট: 21:37, 11 June 2024

শৈলকুপা থানায় হামলা : ১১ জন চারদিনের রিমান্ডে 

ঝিনাইদহের শৈলকুপা থানা ঘেরাও করে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় করা মামলায় আরো তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার (১০ জুন) রাতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

এ নিয়ে মোট ১৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ১১ জনের চারদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। 

নতুন গ্রেপ্তার তিন আসামির নাম সালামত আলী, আবদুল আজিজ ও পিন্টু মিয়া। এর আগে গ্রেপ্তার ১৫ জন হলেন - আলী আকবর, হারুন শিকদার, মাহিম শিকদার, জান্নাত আলী, আবদুল ওহাব মোল্লা, রনি বিশ্বাস, সাবের হোসেন, আলামিন, শহিদুল ইসলাম, ফরিদ হোসেন, উজ্জ্বল শেখ, আকবর হোসেন, সাব্বির হোসেন, রাজিব আহমেদ ও কুতুব উদ্দীন।

ঝিনাইদহ গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জুয়েল ইসলাম বলেন, শৈলকুপার ৮ নম্বর ধলহরাচন্দ্র ইউনিয়ন থেকে গত রোববার রাতে ১৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের মঙ্গলবার (১১ জুন) আদালতে পাঠানোর পর ১১ জন আসামির বিরুদ্ধে সাতদিন করে রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ। আদালত চারদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। 

তিনি আরো জানান, মামলায় গতকাল সোমবার নতুন করে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ নিয়ে মোট ১৮ জন গ্রেপ্তার হলেন। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

এর আগে থানায় হামলার ঘটনায় গত রোববার রাতে শৈলকুপা থানার উপপরিদর্শক লাল্টু রহমান বাদী হয়ে আওয়ামী লীগের ১১৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং আরো ৫০০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে একটি মামলা করেন। 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত রোববার বিকালে উপজেলার ধলহরাচন্দ্র ইউনিয়নের ধাওড়া গ্রামের আওয়ামী লীগ কর্মী এজাহারভুক্ত আসামি মোস্তাফিজুর রহমান ওরফে মোস্তাক শিকদারকে পুলিশ একটি মারধরের মামলায় গ্রেপ্তার করে। বিকেলে হাজারো মানুষ তাকে ছাড়াতে শৈলকুপা থানায় হামলা চালায়। এ ঘটনায় ৮ পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ৩০ জন আহত হন। হামলার সময় ভাংচুর করা হয় পুলিশের গাড়ি ও মোটরসাইকেল। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৩০ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ও সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ করে।

জানা যায়, পেশায় ঠিকাদার ব্যবসায়ী মোস্তাক শিকদার আওয়ামী লীগের কোনো পদ-পদবিতে না থাকলেও আওয়ামী লীগের একাংশের রাজনীতিতে সক্রিয় আছেন। তিনি ঝিনাইদহ-১ আসনে (শৈলকুপা) উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থী নায়েব আলী জোয়ারদারের সমর্থক ছিলেন। এছাড়া ২১ মে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জয়ী প্রার্থী মোস্তাফা আরিফ রেজা মন্নুর সমর্থক ছিলেন তিনি।

শৈলকুপা থানার ওসি সফিকুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, হামলায় অংশ নেয়া দুর্বৃত্তদের অধিকাংশই ধলহরাচন্দ্র ইউনিয়নের ধাওড়া ও পার্শ্ববর্তী গ্রামের বাসিন্দা। মনোহরপুর ইউনিয়নের বিজুলিয়া ও পৌরসভার বাসিন্দারাও হামলায় অংশ নেয়। আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। 

এলাকাবাসী জানান, ঘটনার পরপরই ধাওড়াসহ পার্শ্ববর্তী গ্রামের অধিকাংশ পুরুষ গ্রেপ্তার আতঙ্কে গা ঢাকা দিয়েছে। ধাওড়া বাজারের দোকানপাটও বন্ধ দেখা গেছে।

এর আগে গত ৭ জুন বিকেলে নবনির্বাচিত এমপি নায়েব আলী জোয়ারদার ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তফা আরিফ রেজা মন্নুর উপস্থিতিতে শৈলকুপা পৌরসভার মেয়র কাজী আশরাফুল আযম থানার ওসি সফিকুল ইসলাম চৌধুরীকে সন্ত্রাসী আখ্যায়িত করে তাকে গলায় গামছা পেঁচিয়ে থানা থেকে বিতাড়িত করার হুমকি দেন। এর দুদিন পর থানায় হামলার ঘটনা ঘটে।