ঢাকা Saturday, 15 June 2024

‘পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রী আন্তরিক’

রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: 16:48, 27 May 2024

‘পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রী আন্তরিক’

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেছেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যা সমাধানের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ খুবই আন্তরিক। যখনই পার্বত্য চট্টগ্রামের বিষয়ে আলোচনা হয় তখনই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তা অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে শুনেন। তাই পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নে সকল সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসতে হবে।

সোমবার ২৭ মে রাঙ্গামাটি পার্বত্য  জেলা পরিষদ এনেক্স ভবনে অনুষ্ঠিত পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের রজত জয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে দুই দিন ব্যাপী অনুষ্ঠানের প্রথম দিন  অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং দেশে সকল সম্প্রদায়ের সহাবস্থান নিশ্চিত হয়েছে। তাই আলোচনার মাধ্যমেই শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নসহ নানাবিধ সমস্যা চিহ্নিত করে ধৈর্য সহকারে সকলকে এগিয়ে যেতে হবে।


পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা (সন্তু লারমা) সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত  আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন বেসামরিক পরিবহন পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সাবেক মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি, পার্বত্য চট্টগ্রাম শরনার্থী বিষয়ক ট্রাস্কফোর্সের চেয়রাম্যান সুদত্ত চাকমা,  সাবেক এমপি ঊষাতন তালুকদার, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যান সু-প্রদীপ চাকমা, চাকমা সার্কেল চীফ ব্যরিস্টার রাজা দেবাশীষ রায়, খাগড়াছড়ি মং সার্কেল চীফ রাজা সাচিং প্রু চৌধুরী, মানবাধিকার কমিশনের সদস্য কংজরী চৌধুরী, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী, বান্দরবান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) মো: সাইফুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো: জাহিদুল ইসলাম,পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য ও পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ প্রতিষ্ঠার ২৫ বর্ষপূর্তি উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক গৌতম কুমার চাকমা, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সমাজকর্মী শিশির চাকমা প্রমুখ।

পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান  সবসময় নিপীড়িত নির্যাতিত  মানুষের পাশে ছিলেন এবং তাদের  কল্যাণের জন্য স্বপ্ন দেখেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথেই তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশ গড়ার কাজে এগিয়ে যাচ্ছেন। 

দীর্ঘ দুই দশকের ভাতৃঘাতি সংঘাত বন্ধ করতে বঙ্গবন্ধু কন্যা  শেখ হাসিনা সরকার এবং জনসংহতি সমিতির নেতৃবৃন্দের মধ্যে একটি আলোচনার  পরিবেশ তৈরী করতে পেরেছিলেন বলেই পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি সম্পাদিত হয়। 

সভাপতির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা  (সন্তু লারমা) বলেন অদৃশ্য শক্তির বলয়ের কারণে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদকে অকার্যকর করে রাখা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তরিক হলেও তার আশেপাশে এবং বিভিন্ন সংস্থার কারণে পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নে বাধাঁগ্রস্থ হচ্ছে। এসময় পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়ন না হলে পাহাড়ের সমস্যা গুলো সমাধান কখনোই সম্ভব নয় বলে তিনি জানান।

সভায় বক্তারা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির কার্যক্রম বাধাগ্রস্থ করার জন্য ষড়যন্ত্রকারীরা  তৎকালীন সময়ে পাহাড়ে কালো পতাকা উড়ানো থেকে শুরু বিভিন্ন   ধংসাত্মক কাজ করেছিল। 

শত বাধা বিপত্তি উপেক্ষা করে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিকতা ও সাহসিকতার কারনে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি আশার আলো দেখে এবং বর্তমানে পাহাড়ের মানুষ চুক্তির সফলতা ভোগ করছে।

সভায় পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ জনপ্রতিনিধি ও সুশিল সমাজের প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।