ঢাকা Wednesday, 24 April 2024

শৈলকূপায় প্রতিপক্ষ কাটল গাছ, ধরে নিয়ে গেল মাছ : বাধা দেয়ায় নারী আহত

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 20:39, 30 March 2024

শৈলকূপায় প্রতিপক্ষ কাটল গাছ, ধরে নিয়ে গেল মাছ : বাধা দেয়ায় নারী আহত

ঝিনাইদহের শৈলকূপায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে এক কৃষকের পুকুরের বাঁধ কেটে ২ মণ মাছ ধরে নিয়ে গেছে প্রতিপক্ষ। এতে বাধা দেয়ায় সাবানা খাতুন (৩০) নামে এক নারীকে পিটিয়ে আহত করেন তারা। এর আগে একই কৃষকের ৪০টি আমগাছ কেটে নিয়ে যায় প্রতিপক্ষ। 

শনিবার (৩০ মার্চ) উপজেলার সারুটিয়া ইউনিয়নের নবগ্রাম গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহত ওই নারী শৈলকূপা থানায় এ বিষয়ে অভিযোগ করেছেন।

অভিযুক্তরা হলেন - নবগ্রাম গ্রামের মৃত আলিমুদ্দিনের ছেলে সেলিম, একই গ্রামের রফিকুল ইসলাম তোতার ছেলে উজ্জ্বল হোসেন এবং মৃত রহিম মন্ডলের ছেলে শওকত।

জানা যায়, নবগ্রাম গ্রামের মন্টু হোসেনের বসতবাড়ির ১৫ শতক জমি নিয়ে অভিযুক্তদের সঙ্গে কয়েক বছর ধরে বিরোধ চলে আসছিল। সেই বিরোধের জেরে অভিযুক্ত সেলিম, উজ্জ্বল ও শওকত গত ১৫ মার্চ সকালে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে মন্টু হোসেনের পুকুরের পাড়ে রোপণকৃত ৪০-৪২টি আমগাছ কেটে দেন। 

পরে শনিবার সকালে অভিযুক্তরা ওই বাড়ির জমি ঘেরাও করে বাঁধ কেটে পুকুর থেকে দুই মণ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ধরে নেন। এ সময় মন্টু হোসেনের স্ত্রী সাবানা খাতুন বাধা দেয়ায় দেশীয় অস্ত্র দিয়ে তাকে মারধর করেন। পরে পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে শৈলকূপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।

আহত সাবানা খাতুন বলেন, গাছ কেটে নেয়ার পর স্থানীয় সামাজিক মাতবরদের বিষয়টি জানানো হলে সালিশের মাধ্যমে মীমাংসা করার কথা থাকলেও শনিবার সকালে তারা পুকুরের মাছ ধরে নেন। এতে বাধা দিলে আমাকে মারধর করেন। আমি এর বিচার চাই।

এদিকে অভিযুক্ত উজ্জ্বল হোসেনের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের সামনেই ওই আহত নারীকে হুমকি, অশ্লীল ও অকথ্য ভাষায় গালাগাল করেন। উজ্জ্বল এসময় বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না।’ 

অন্যদিকে অভিযোগের বিষয়ে বক্তব্য নিতে অভিযুক্ত সেলিম ও শওকতের বাড়িতে গেলে তাদের পাওয়া যায়নি।

শৈলকূপা থানার সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই) সাইদুর রহমান বলেন, অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।