ঢাকা Wednesday, 24 April 2024

শৈলকূপায় ২ বছরেও শেষ হয়নি ব্রিজ মেরামত, ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 18:06, 30 March 2024

শৈলকূপায় ২ বছরেও শেষ হয়নি ব্রিজ মেরামত, ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী

ঝিনাইদহের শৈলকূপায় ভেঙে পড়ার দুই বছরেও পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) ব্রিজ মেরামত কাজ শেষ হয়নি। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে ১১টি গ্রামীণ রাস্তার সংযোগ সড়ক ব্যবহারকারী হাজার হাজার মানুষ। 

প্রায় ৪ কোটি টাকার ব্রিজ নির্মাণ এবং সংযোগ সড়ক, ব্রিজের তলদেশ খনন-ড্রেসিংয়ের জন্য আরো প্রায় ১ কোটি টাকার কাজে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ও পাউবোর কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে লুটপাটের অভিযোগ তুলেছেন এলাকাবাসী। 

এমন পরিস্থিতিতে কাজের ধীরগতি ও নানা অনিয়মের বিরুদ্ধে শনিবার (৩০ মার্চ) দুপুরে স্থানীয়দের ব্যানারে কাতলাগাড়ী বাজারে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

এদিকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের দাবি, ব্রিজ মেরামত কাজ ঠিকভাবেই হচ্ছে। তারা আরো জানান, মাঝে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কিছু অনিয়ম করেছিল। সেজন্য তাদের ৭ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

শনিবার দুপুরে কাতলাগাড়ী বাজারে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সর্বস্তরের জনগণ অংশ নেন। এরপর তারা একটি বিক্ষোভ মিছিল করেন। 

মানববন্ধনে অংশ নেয়া সেলিম হোসেন জানান, ব্রিজটি খুবই জনগুরুত্বপূর্ণ। ১১টি গ্রামীণ সড়কের সংযোগস্থল এই ব্রিজ।

তিনি অভিযোগ করেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের দুর্নীতির কারণে আজো কাজ শেষ হয়নি, অনেকবার কাজ বন্ধ হয়ে যায়।

নাজমুল হোসেন জানান, তারা জানতে পেরেছেন ব্রিজের সংযোগ সড়কে ৫৪ লাখ টাকা, পানি প্রবাহের সমতা ঠিক রাখার জন্যে ব্রিজের তলদেশের উভয় পাশের ১ কিলোমিটার খনন ও ড্রেজিংয়ের জন্য ২৬ লাখ টাকা এবং কংক্রিটের ব্লক তৈরির জন্য ২৮ লাখ টাকা বরাদ্দ হয়েছে। প্রায় কোটি টাকা বরাদ্দ হলেও রাতের আঁধারে দায়সারা কাজ করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে পাউবোর অসাধু কর্মকর্তা ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

প্রসঙ্গত, পাউবোর গঙ্গা-কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্পের আওতায় ২০২১ সালে ৩ কোটি ৮৪ লাখ টাকায় শৈলকূপার কাতলাগাড়ী সেচ খালের উপর ব্রিজটির পুনর্নির্মাণ কাজ শুরু হয়। টেন্ডারের মাধ্যমে কাজটি পায় পটুয়াখালী জেলার সদর উপজেলার মেসার্স আবুল কালাম আজাদ নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ২০২৩ সালে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ধীরগতি ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের খামখেয়ালিতে আজো সে কাজ শেষ হয়নি। 

এদিকে সংযোগ সড়ক, ব্রিজের তলদেশের উভয় পাশে ড্রেজিং ও ব্লক তৈরিতে আরো প্রায় কোটি টাকার কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ ওঠায়, তৈরিকৃত ব্লক বুয়েটের  পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়। পরীক্ষাগার থেকে জানানো হয়, ব্লকগুলো খুবই নিম্নমানের। এরপর প্রায় ১ বছর কাজ বন্ধ ছিল। সম্প্রতি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সেই নিম্নমানের পরিত্যক্ত ব্লকেই ফের কাজ শুরু করায় ফুঁসে উঠেছে এলাকাবাসী। 

তাদের আরো অভিযোগ, ব্রিজের উভয় পাশের অন্তত ১ কিলোমিটার পানির প্রবাহের জন্য ঠিকমতো খনন ও ড্রেজিং না করায় তাদের সেচ ও কৃষি কাজ ব্যাহত হবে। তাছাড়া লাখ লাখ টাকার বাড়তি বরাদ্দ কি খাতে ব্যয় হচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন এলাকাবাসী।

এদিকে কাজের মান নিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান মামুন অভিযোগ করে বলেন, ইট, বালি, পাথরসহ নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী দিয়ে নয়-ছয় করে কাজ শেষ করার পাঁয়তারা চলছে। কাজের অনিয়মের বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলীকে অবগত করানো হলে তারা বলছেন, কোনো অনিয়ম নেই, বাধা-বিপত্তি এলেও কাজ শেষ করা হবে।

এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলাম জানান, ব্রিজের পুনর্নির্মাণ কাজের মেয়াদ ২০২৩ সালে শেষ হলেও মেয়াদ এবং অতিরিক্ত বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। তাছাড়া নিম্নমানের ব্লক দেয়ার কারণে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে ৭ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এখানে নতুন এসেছেন। ব্রিজের কাজ যেন ঠিক হয় তার বিষয়ে খোঁজখবর রাখছেন।