ঢাকা Saturday, 02 March 2024

আদালতে ধর্ষণ মামলার আসামির সঙ্গে ভিকটিমের বিয়ে, সন্তান পেল পিতার পরিচয়

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 18:24, 4 December 2023

আদালতে ধর্ষণ মামলার আসামির সঙ্গে ভিকটিমের বিয়ে, সন্তান পেল পিতার পরিচয়

ঝিনাইদহ কোর্ট চত্বরে ধর্ষণ মামলার এক আসামির বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার (৪ ডিসেম্বর) দুপুরে আদালতের নির্দেশে ৫ লাখ টাকা দেনমোহরে ধর্ষিতাকে বিয়ে করেন মিকাইল হোসেন নামে ওই আসামি।

এর আগে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. নাজিমুদ্দৌলা এ রায় প্রদান করেন। 

আদালত সূত্রে জানা যায়, আসামি মিকাইল হোসেন ২০২২ সালের ২০ নভেম্বর ধর্ষণ করেন একই গ্রামের তানিয়া ইয়াসমিন রিয়াকে। এ ঘটনায় ওইদিন রিয়ার মা তাসলিমা বেগম বাদী হয়ে ঝিনাইদহের কোঁটচাদপুর থানায় মামলা করেন। সেই মামলায় ৫ লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ের শর্তে জামিন পান মিকাইল। পরে কোর্ট চত্বরে মিকাইল-তানিয়ার বিয়ে সম্পন্ন হয়। বাবার স্বীকৃতি পায় মিকাইলের ঔরসজাত তিন মাসের সন্তান আলিফ।

সরেজমিন দেখা যায়, মায়ের কোলে কোর্ট চত্বরে ঘুমাচ্ছে আলিফ। তার বাবা-মায়ের বিয়ে হলো তার জন্মের তিন মাস পর। ছোট্ট শিশুটির বাবা-মায়ের সম্পর্কের এমন সমাধানে সবাই খুব খুশি।

মামলার বিবরণে জানা যায়, জেলার কোটচাঁদপুর থানার এলাঙ্গী ইউনিয়নের এলাঙ্গী গ্রামের বাসিন্দা মৃত বাহাজ্জেল শেখ-তাসলিমা বেগম দম্পতির বড় মেয়ে তানিয়া ইয়াসমীন রিয়াকে প্রায় এক বছর আগে ভয় দেখিয়ে ও ফুঁসলিয়ে বিভিন্ন সময় ধর্ষণ করে একই গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে মিকাইল হোসেন।

এরপর মেয়ের মা তাসলিমা বেগম কোটচাঁদপুর থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করেন। সেই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে আসামি মিকাইলকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। কিন্তু মিকাইল ও তার পরিবার এ ঘটনাকে পরোপুরি অস্বীকার করে আসছিলেন।

এদিকে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে তানিয়া। তিন মাস আগে একটি ছেলে সন্তানের জন্ম দেন তিনি। একপর্যায়ে বাদীপক্ষের আইনজীবীর দাবিতে ডিএনএ টেস্টের অনুমতি প্রদান করেন আদালত। টেস্টে তানিয়ার গর্ভজাত আলিফ যে মিকাইলের সন্তান তা প্রমাণ হয়। এরপর আদালত আলিফের ভবিষ্যৎ বিবেচনায় ও বাদী-বিবাদীর মধ্যস্থতায় ৫ লাখ টাকা দেনমোহরে বিবাহ সম্পন্ন করে জামিনে মিকাইলকে মুক্তি দেন।

মিকাইলের বাবা মিজানুর রহমান জানান, কোর্ট যে নির্দেশনা প্রদান করেছেন তা আমরা মেনে নিয়েছি। ছেলে-বউ সংসার করুক।

সাধারণ মানুষ জানান, এ ধরনের ঘটনা সত্যিই সচরাচর দেখা যায় না। আদালত যুগান্তকারী রায় প্রদান করেছেন। একদিকে মেয়েটি তার ঠিকানা পেল, অন্যদিকে ছোট্ট বাচ্চাটি তার পিতার পরিচয় পেল।

তানিয়া ইয়াসমিন রিয়া জানান, আমি এ রায়ে খুশি। তবে ভবিষ্যতে সংসার সুখের হবে কি না তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

বিবাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মন্জুরুল ইসলাম জানান, কোর্টের রায় যা হয়েছে তাতে পক্ষপাতিত্বের কোনো সুযোগ নেই।

বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সরদার মনিরুল ইসলাম মিল্টন জানান, এ ধরনের চাঞ্চল্যকর মামলায় যুগান্তকারী রায় প্রদান করেছেন আদালত। কারণ এ ধরনের রায় সত্যিই বিরল। আমরা সবাই খুশি।