ঢাকা Saturday, 02 March 2024

খোকসায় হানাদার মুক্ত দিবস পালিত 

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 17:47, 4 December 2023

খোকসায় হানাদার মুক্ত দিবস পালিত 

কুষ্টিয়ার খোকসা ১৯৭১ সালের এই দিনে, অর্থাৎ ৪ ডিসেম্বর পাক-হানাদার মুক্ত হয়। ঐতিহাসিক সেই ক্ষণটির কথা স্মরণ করে সোমবার (৪ ডিসেম্বর) খোকসায় হানাদার মুক্ত দিবস পালিত হয়েছে। 

দিবসটি পালনে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উদ্যোগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, জাতীয় পতাকা উত্তোলন, আনন্দ র‍্যালি, আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ খোকসা উপজেলা কমান্ডের আয়োজনে এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার রিপন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বাবুল আখতার।

এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন খোকসা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক। আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম রেজা, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ফজলুল হক, খোকসা থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুল গফুর ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান আব্দুল মতিন।

১৯৭১ সালের ৪ ডিসেম্বর খোকসা থানা পাক হানাদার মুক্ত হয়। থানা সদরের খোকসা হাইস্কুল, শোমসপুর হাইস্কুল, গণেশপুরের গোলাবাড়ীর নিলাম কেন্দ্র, মোড়াগাছায় রাজাকার বাহিনীর শক্ত ঘাঁটি ছিল। 

পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ৩ ডিসেম্বর রাত ১১টার দিকে মুজিব বাহিনী কমান্ডার আলাউদ্দিন খান, কে এম মোদ্দাসের আলী, আলহাজ সদর উদ্দিন খান, নুরুল ইসলাম দুলাল, আলহাজ সাইদুর রহমান মন্টু, রোকন উদ্দিন বাচ্চু,তরিকুল ইসলাম তরুর নেতৃত্বে ২৫ জন মুক্তিযোদ্ধা থানা দখলের জন্য চারদিক থেকে আক্রমণ করেন। রাতভর গোলাগুলির পর ভোরে ১০৫ জন পুলিশ ও রাজাকার-আলবদর-আলশামস সদস্য আত্মসমর্পণ করে। 

৪ ডিসেম্বর খোকসা থানায় বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন খোকসা জানিপুর পাইলট হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক আলতাফ হোসেন। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আলাউদ্দিন খান, মোদ্দাচ্ছের আলী, আলহাজ সদর উদ্দিন খান, গোলাম ছরোয়ার পাতা, আলহাজ সাইদুর রহমান মন্টুসহ মুক্তিযোদ্ধারা।

এ সময় দখল করা ৭৯টি রাইফেল, ২টি পিস্তল ও ৫টি বন্দুকসহ প্রচুর আগ্নেয়াস্ত্র ও আটককৃতদের নিয়ে মুক্তিযোদ্ধারা নিরাপদে ক্যাম্পে পৌঁছান। পরে ৪ ডিসেম্বর হানাদারদের একটি বড় দল আবারো থানা দখলের চেষ্টা করে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরোধের মুখে খোকসা ত্যাগ করতে বাধ্য হয়।

সেই থেকে ৪ ডিসেম্বর খোকসায় পাক হানাদার মুক্ত দিবস পালন করা হয়।