ঢাকা Sunday, 26 May 2024

ঘটনাস্থল কালাই : হিমাগারভর্তি আলু থাকলেও বিক্রি হচ্ছে না সরকারিমূল্যে, ফাঁকা শেড

কালাই (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 20:04, 18 September 2023

ঘটনাস্থল কালাই : হিমাগারভর্তি আলু থাকলেও বিক্রি হচ্ছে না সরকারিমূল্যে, ফাঁকা শেড

গুদামভর্তি আলু

জয়পুরহাটের কালাই পৌরশহরের নরওয়েস্ট হিমাগারের ধারণক্ষমতা ৮৫ হাজার বস্তা। সরকারের বেঁধে দেয়া দরে হিমাগারগুলোতে আলু বিক্রি হচ্ছে কি না তা তদারকি করছে ভোক্তা সংরক্ষণ অধিকারসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তর। 

গতকাল রোববার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকেলে জেলার বিভিন্ন হিমাগারে আলু কেনাবেচা হলেও বন্ধ ছিল কালাই পৌর শহরের নরওয়েস্ট হিমাগার। শুধু তাই নয়, হিমাগারটির শেড ছিল ফাঁকা। মূল ফটকে ঝুলছিল তালা। অথচ এই হিমাগারে মজুদ আছে ৩৬ হাজার ৭০০ বস্তা আলু। 

এমন দৃশ্য দেখে হতবাক বাজার তদারকির দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তারা। এদিকে হিমাগার কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, ব্যবসায়ীরা যদি আলু বিক্রি না করেন, তাহলে হিমাগার কর্তৃপক্ষের কী করার আছে? আমরা খুব বেশি হলে ব্যবসায়ীদের তালিকা দিতে পারি। এর বাইরে করার কিছু নেই। 

অন্যদিকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণের দাবি, সরকারের বেঁধে দেয়া দরে আলু বিক্রি শুরু করতে হবে। তা করা না হলে হিমাগার সিলগালা করে সরকারের বেঁধে দেয়া দরে আলু বিক্রি করে ব্যবসায়ীদের কাছে টাকা পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হবে। 

ফাঁকা শেড

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত কয়েকদিনে ব্যবসায়ীদের কারসাজিতে হিমাগার গেটে পাইকারি ৪০ থেকে ৪২ টাকা কেজি দরে আলু কেনাবেচা হচ্ছে। সেই আলু খুচরা বাজারে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এ অবস্থায় সরকার হিমাগার গেটে আলু পাইকারি সর্বোচ্চ ২৭ টাকা কেজি বিক্রির জন্য দর বেঁধে দেয়; কিন্তু সরকারের বেঁধে দেয়া দর মানছেন না ব্যবসায়ীরা। এমনকি প্রশাসনের বাজার তদারকি জোরদার হওয়ায় হিমাগারগুলোতে আলু ক্রয়-বিক্রয় বন্ধ রয়েছে। 

গত রোববার বিকেলে বগুড়া আঞ্চলিক ভোক্তা সংরক্ষণ অধিকারের সহকারী পরিচালক ইফতেখারুল আলম কালাই উপজেলার বেশ কয়েকটি হিমাগারে বাজার তদারকি করতে যান। এ সময় নরওয়েস্ট হিমাগারে আলু ক্রয়-বিক্রয় বন্ধ ছিল। শেড ফাঁকা এবং হিমাগারের মূল গেটে তালা ঝুলছিল। 

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক একাধিক ব্যবসায়ী জানান, বিগত বছরের লোকসানের ভার থেকে আজো মুক্ত হতে পারেননি ব্যবসায়ীরা। ব্যাংকের ঋণ জট বেঁধে আছে। তখন সরকার কোথায় ছিল? আজ ব্যবসায়ীরা লাভ করছেন, তা আর সহ্য হচ্ছে না। সবাই যেন উঠেপড়ে লেগেছে। প্রশাসনের চাপাচাপির কারণেই ব্যবসায়ীরা আলু বিক্রি বন্ধ রেখেছেন। তাছাড়া হিমাগারে আলু সংরক্ষণের সময়ও আছে। দেখা যাক শেষ পর্যন্ত কী ঘটে।  

নরওয়েস্ট হিমাগারের ব্যবস্থাপক মুক্তার হোসেন বলেন, ৮৫ হাজার বস্তার ধারণক্ষমতা এই হিমাগারে। রোববার বিকেল পর্যন্ত সংরক্ষণ আছে ৩৬ হাজার ৭০০ বস্তা আলু। 

বেচাকেনা বন্ধ এবং শেড ফাঁকা কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, যেদিন থেকে আলুর দর বেঁধে দেয়া হয়েছে, সেদিন থেকেই এ অবস্থা। ব্যবসায়ীরা আলু বিক্রি না করলে আমাদের করার কী আছে? আলু বিক্রি বন্ধ থাকায় শেড ফাঁকা পড়ে আছে। তাছাড়া আলু সংরক্ষণের মেয়াদও আগামী ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত আছে। সে কারণে আমরা ব্যবসায়ীদের চাপও দিতে পারছি না।   

এ বিষয়ে বগুড়া আঞ্চলিক ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণের সহকারী পরিচালক ইফতেখারুল আলম জানান, ব্যবসায়ীদের কারসাজির কারণেই মূলত আলুর দাম এতো বেশি। হিমাগারগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণ আলু এখনো সংরক্ষিত আছে - এমন তথ্য আমাদের কাছে আছে। সরকার নির্ধারিত ২৭ টাকা কেজির বিপরীতে বেশি দরে আলু বিক্রি করছেন অসাধু ব্যবসায়ীরা। প্রথম পর্যায়ে জরিমানাসহ তাদের সতর্ক করা হচ্ছে। 

নরওয়েস্ট হিমাগারের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাদের সতর্ক করা হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সংরক্ষিত আলুর ব্যবসায়ীদের তালিকা চাওয়া হয়েছে। এরপর তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।