ঢাকা Monday, 15 April 2024

বৃষ্টিতে ঠাকুরগাঁওয়ের কৃষকরা স্বস্তিতে 

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 20:47, 24 March 2023

বৃষ্টিতে ঠাকুরগাঁওয়ের কৃষকরা স্বস্তিতে 

দেশের উত্তরের কৃষিনির্ভর জনপদ ঠাকুরগাঁও। বোরো নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন জেলার কৃষকরা। পর্যাপ্ত পানি না থাকায় কৃষকরা সমস্যায় পড়েছিলেন। বিশেষ করে উঁচু জমিগুলিতে পানি না থাকায় ধানক্ষেত ফেটে চৌচির হতে দেখা যায়। এতে করে সমস্যায় পড়েন এ অঞ্চলের কৃষকরা। এ সময়  কৃষক শ্যালো মেশিন ও গভীর নলকূপের সাহায্যে ক্ষেতে পানি দিলেও কুলাতে পারছিলেন না।  

এ সময় হঠাৎ বৃষ্টিতে বোরো ক্ষেতে পানি জমেছে। বিশেষ করে উঁচু কৃষিজমিতে পানি জমায় কৃষকের মনে স্বস্তি এসেছে। ফলে পুনরায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন তারা। 

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার জগন্নাথপুর, চিলারং, নারগুন, বেগুনবাড়ি, খোঁচাবাড়ি, দানারহাট, বরুনাগাঁও, শীবগঞ্জ, রহিমানপুর, জামালপুর, পীরগঞ্জ, হরিপুর উপজেলাসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, কৃষকরা বোরো ধান পরিচর্যায় ব্যস্ত। দীর্ঘদিন পানির অভাব থাকলেও গত এক সপ্তাহে দুই-তিনদিন বৃষ্টির পানিতে তারা নতুন করে বোরোতে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন। 

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার নারগুন ইউনিয়নের বোচাপুকুর এলাকার কৃষক মো. মোমিনুল ইসলাম জানান, প্রতিবছরের মতো এ বছর তিনি চার একর জমিতে বোরো ধান লাগিয়েছেন। কিছুদিন শ্যালো ও গভীর নলকূপের সাহায্যে পানি দিলেও খরচ বেশি হওয়ায় বিপাকে পড়েন। অবশেষে বেশ কয়েকদিনের বৃষ্টির ফলে উঁচু জমিগুলোতেও পানি জমায় তিনি দুশ্চিন্তামুক্ত হয়েছেন। 

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ঢোলারহাট গ্রামের কৃষক ধনঞ্জয় বর্মন জানান, এ বছর আড়াই একর জমিতে বোরো ধান লাগিয়েছেন। বৃষ্টির পানির অভাবে তার বোরো ক্ষেত শুকিয়ে যাওয়ায় তার দুশ্চিন্তার যেন শেষ ছিল না। দুই-তিনদিনের বৃষ্টিতে বোরোর ক্ষেতে পর্যাপ্ত পানি জমেছে। 

ঠাকুরগাঁও জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে বোরো ধানের আবাদ কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এ বছর ঠাকুরগাঁওয়ে ৬০ হাজার ১৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। এ মৌসুমে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২ লাখ ৬৭ হাজার ৯৪০ মেট্রিক টন।

ঠাকুরগাঁও জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ -পরিচালক কৃষিবিদ মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, এ জেলা অন্যান্য ফসলের ন্যায় ধানের জন্যও বিখ্যাত। প্রতিবছর বোরো মৌসুমে কৃষকদের যাবতীয় পরামর্শ ও সেবা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর থেকে প্রদান করা হয়। এ বছরও দেয়া হয়েছে। তবে পানির সামান্য সমস্যা থাকলেও দুই-তিনদিনে জেলায় প্রায় ১১০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হওয়ায় উঁচু-নিচু ক্ষেতে পানি জমেছে। বৃষ্টির পানিতে বোরোর পাশাপাশি ভুট্টা, শাকসবজি, লিচু, আমসহ বিভিন্ন চাষীদের উপকার হবে। সবকিছু ঠিক থাকলে লক্ষ্যমাত্রার অতিরিক্ত ধান উৎপাদন হবে এবং কৃষকরা এ বছরও ধানের ন্যায্য মূল্য পাবেন বলে প্রত্যাশা করছি।