ঢাকা বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

খেলেই হারল বাংলাদেশ, পাকিস্তানের সিরিজ জয়

ক্রীড়া ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৭:৫৭, ২২ নভেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৮:০০, ২২ নভেম্বর ২০২১

খেলেই হারল বাংলাদেশ, পাকিস্তানের সিরিজ জয়

ছবি সংগৃহীত

ম্যাচের ২০তম ওভার। ক্লাইমেক্সে ঠাসা এই ওভারটি করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ওভারের দ্বিতীয় ও তৃতীয় বলে পরপর দুই উইকেট তুলে নেন তিনি। সে সময় বাংলাদেশি সমর্থকদের চোখে জয়ের স্বপ্ন জ্বলজ্বল করছিল। পঞ্চম বলে আরো এক উইকেট। জয় যেন তখন কড়াই নাড়ছিল বাংলাদেশের দরজায়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা আর হলো না। পাকিস্তানি ব্যাটার নওয়াজ ৪ মেরে খেলার ইতি টানলেন। বাংলাদেশ হারল তৃতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচও, ৫ উইকেটে। পাকিস্তান জিতল সিরিজ। 

সোমবার (২২ নভেম্বর) মিরপুর ক্রিকেট স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ দল। টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন মাহমুদউল্লাহ। এই সিরিজে প্রতিটি টসই জিতেছেন তিনি। কিন্তু ম্যাচ জিততে পারেননি একটিও। 

শেষ ওভারে জয়ের জন্য পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল ৮ রান। ইনিংসের প্রথম বলটি ডট দেন বাংলাদেশের ক্যাপ্টেন। দ্বিতীয় ও তৃতীয় বলে তার শিকার সরফরাজ আহমেদ ও হায়দার আলী। চতুর্থ বলে বিশাল ছক্কা হাঁকিয়ে পাকিস্তানকে খেলায় ফেরান ইফতেখার আলী। তখন পাকিস্তানে দরকার ছিল ২ বলে ২ রান। কিন্তু আবারো মাহমুদউল্লাহর আঘাত। ক্যাচ আউট হয়ে সাজঘরে ফিরে গেলেন ইফতেখার। 

শেষ বলে দরকার ছিল ২ রান। দুই দল ও দর্শকের উত্তেজনার পারদ তখন তুঙ্গে। এ সময়ই ব্যাটার মোহাম্মদ নওয়াজের ড্রামা। স্টান্স নেয়ার পর মাহমুদউল্লাহ যখন বল ছাড়ছেন, তখন হঠাৎই সরে গেলেন তিনি। বল সরাসরি লাগল স্টাম্পে, কিন্তু ডেড বল। বেশ একটা বিভ্রান্তিকর অবস্থা তখন। এরপরই মাহমুদউল্লাহর মনস্তাত্ত্বিক ড্রামা দেখল সবাই। বল করতে এসেও শেষ পর্যন্ত বল ছাড়লেন না তিনি। 

যা হোক, শেষ পর্যন্ত বল ছুড়লেন বাংলাদেশের ক্যাপ্টেন আর নওয়াজ সেটা এক্সট্রা কাভার এলাকা দিয়ে উড়িয়ে মেরে পাঠালেন সীমানার বাইরে - ৪ রান। পাকিস্তান জিতল ৫ উইকেটে। 

এ পরাজয়ের মধ্য দিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে শুরু করে টানা আট ম্যাচ পরাজয়ের স্বাদ নিতে হলো বাংলাদেশ দলকে। পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৪ উইকেটে এবং দ্বিতীয় ম্যাচে ৮ উইকেটে হারে বাংলাদেশ।  

সোমবার প্রথমে ব্যাটিং করে ৭ উইকেটে ১২৪ রান করে বাংলাদেশ। কিন্তু শুরুটা গত দুই ম্যাচের মতো ভালো হয়নি। ৩৭ রানে ২ উইকেট হারিয়ে বসে স্বাগতিকরা। তৃতীয় উইকেটে আফিফ হোসেনকে সঙ্গে নিয়ে ৪২ বলে ৪৩ রানের জুটি গড়েন ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম শেখ। 

১৪.২ ওভারে দলীয় ৮০ রানে তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হন আফিফ। তার আগে ২১ বলে ২ ছক্কায় ২০ রান করেন এই তরুণ ব্যাটার। চতুর্থ উইকেটে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে সঙ্গে নিয়ে ২৫ বলে ফের ৩১ রানের জুটি গড়েন ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম।

এরপর মাত্র ১৩ রানের ব্যবধানে ৪ উইকেট হারায় বাংলাদেশ দল। ৫০ বলে দুটি চার ও দুটি ছক্কায় দলীয় সর্বোচ্চ ৪৭ রান করে ফেরেন এই ওপেনার। 

দুই বলে ৪ রান করে ফেরেন নুরুল হাসান সোহান। ১৪ বলে ১৩ রান করেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। ৩ বলে ২ রানে রান আউট হন আমিনুল। শেষদিকে ব্যাটিং বিপর্যয়ের কারণে ২০ ওভারে ১২৪ রানের বেশি যেতে পারেনি টিম বাংলাদেশ।  

১২৫ লক্ষ্য নিয়ে খেলতে নেমে ৬.৬ ওভারে প্রথম উইকেট হারায় পাকিস্তান। বাংলাদেশ সফরে এসে টি-টোয়েন্টি সিরিজে প্রত্যাশিত মানের ব্যাটিং কারতে পারেননি পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজম। প্রথম দুই ম্যাচে তাসকিন আহমেদ ও মোস্তাফিজুর রহমানের গতির বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন এ তারকা ব্যাটসম্যান। সোমবার সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে তরুণ লেগ স্পিনার আমিনুল ইসলামের বলে বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে ক্যাচ তোলেন বাবর। 

আগের দুই ম্যাচে ৭ ও ১ রানে আউট হওয়া পাকিস্তানের এই সময়ের সেরা এই ব্যাটসম্যান এদিন ফেরেন ২৫ বলে ২টি বাউন্ডারিতে ১৯ রান করে।

দ্বিতীয় উইকেটে হায়দার আলীকে সঙ্গে নিয়ে ৪৯ বলে ৫১ রানের জুটি গড়েন ওপেনার মোহাম্মদ রিজওয়ান। দলীয় ৮৩ রানে অভিষিক্ত পেসার শহিদুলের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন তিনি। তার আগে ৪৩ বলে দুটি চার ও এক ছক্কায় ৪০ রান করেন তিনি।