ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

টি-টোয়েন্টির পর ওয়ানডে সিরিজও হারল বাংলাদেশ

ক্রীড়া ডেস্ক

প্রকাশিত: ২১:৫২, ৭ আগস্ট ২০২২

টি-টোয়েন্টির পর ওয়ানডে সিরিজও হারল বাংলাদেশ

জিম্বাবুয়ের কাছে টি-টোয়েন্টি সিরিজ হারার পর এবার ওয়ানডে সিরিজও হারল বাংলাদেশ। আজ রোববার (৭ আগস্ট) স্বাগতিকদের কাছে ৫ উইকেটে হেরেছে টাইগাররা। সিকান্দার রাজারা যখন জয়ের বন্দরে তখনো খেলা বাকি ১৫ বল। 

জিম্বাবুয়ের হারারেতে রোববার তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ হারেন তামিমরা। প্রথমে ব্যাট করে ৯ উইকেট হারিয়ে টাইগারদের সংগ্রহ ছিল ২৯০ রান। জবাবে ৪৭.৩ ওভারে ২৯১ রান করে রেগিস চাকাভার দল। এ জয়ের মধ্য দিয়ে ওয়ানডে সিরিজও নিজেদের করে নিল জিম্বাবুইয়ানরা। 

২০১৩ সালের পর ওয়ানডেতে আর কখনো জিম্বাবুয়ের কাছে সিরিজ হারেনি বাংলাদেশ। ২০১৩ সালে জিম্বাবুয়ে সফরে গিয়ে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ হেরে এসেছিল টাইগাররা। এরপর টানা ৫টি সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ। অবশেষে ৯ বছর পর আবারো সিরিজ হারল বাংলাদেশ।

গত ম্যাচের মতো আজকের ম্যাচেরও নায়ক সিকান্দার রাজা। থার্ড ডাউনে নেমে শেষ পর্যন্ত তিনি ধরেছিলেন দলের হাল। দলকে টেনে নিয়ে গেছেন জয়ের বন্দরে। খেলা শেষে তার ব্যাটিং পরিসংখ্যান হলো, ১২৭ বলের মোকাবিলায় আটটি ৪ ও চারটি ছয়ে অপরাজিত ১২৭ রান। বাংলাদেশের বোলারদের একরকম শাসনই করে চলেছেন এই জিম্বাবুইয়ান।

এদিকে রাজাকে যোগ্য সঙ্গ দিয়েছেন অধিনায়ক চাকাভা। গত ম্যাচে বেশি রান তুলতে না পারা এই ব্যাটার আজ দলের দুর্যোগ মুহূর্তে বুক চিতিয়ে ব্যাট চালিয়েছেন। তার ঝড়ো ব্যাটিংয়ের সুবাদে বেশ সহজেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় দল। চাকাভা ৭৫ বলে দশ ৪ ও দুই ছয়ে করেছেন ১০২ রান। 

খেলার ৪৪তম ওভারে মেহেদি হাসান মিরাজের বল উঠিয়ে মারতে চেয়েছিলেন চাকাভা। কিন্তু বলের গতি ও টার্ন বুঝতে পারেননি তিনি। ফলে টাইগার অধিনায়ক তামিমের তালুবন্দি হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি। 

রোববার ২৯১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ২৭ রানে ৩ উইকেট এবং ৪৯ রানে ৪ উইকেট পড়ার পর রেগিস চাকাভাকে সঙ্গে নিয়ে স্বাগতিকদের জয়ের দিকে নিয়ে যান সিকান্দার।  চাকাভাকে নিয়ে গড়েন ২০১ রানের বিশাল জুটি। এই জুটির কাছেই মূলত হেরে যায় বাংলাদেশ। 

ব্যাট করতে নামা জিম্বাবুয়েকে শুরুতে চেপে ধরেছিলেন বাংলাদেশের বোলাররা। বিশেষ করে তরুণ পেসার হাসান মাহমুদ এবং স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ।

এই দুই বোলারের তোপের মুখে ২৭ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে বসেছে স্বাগতিকরা। হাসান মাহমুদের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়েছেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান ইনোসেন্ট কাইয়া।

ইনিংসের প্রথম ওভারেই টি কাইতানোকে উইকেটের পেছনে মুশফিকের হাতে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন হাসান মাহমুদ। ১ রানে পড়ে এক উইকেট। দলীয় ১৩ রানেও একইভাবে কাইয়াকে ফিরিয়ে দেন হাসান মাহমুদ। তার বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ ধরেন মুশফিক।

ওয়েসলি মাধভিরে উইকেটে এসে থিতু হতে পারেননি। ১৬ বল খেলেছেন। কিন্তু ২ রান করে মিরাজের বলে এলবিডব্লিউর শিকার হন তিনি।

টানা তিন উইকেট পড়লেও অন্যপ্রান্তে অপর ওপেনার তাদিওয়ানাশে মুরুমানি উইকেট আগলে রেখেছিলেন। সিকান্দার রাজার সঙ্গে ২১ রানের জুটিও গড়েন তিনি। কিন্তু মিরাজের বলে পরিবর্তিত ফিল্ডার মোহাম্মদ নাইম শেখের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি। ৪২ বলে করেন ২৫ রান। চতুর্থ উইকেটের পতন ঘটে ৪৯ রানে। এরপর থেকেই শুরু হয় সিকান্দার আর চাকাভার মহাকাব্য।

চাকাভা আউট হওয়ার পর ১৬ বলে ৩০ রান করে রাজার কাজ আরো সহজ করে দেন টনি মুনিয়ঙ্গা।

প্লেয়ার অফ দ্য ম্যাচ হয়েছেন সিকান্দার রাজা।