ঢাকা রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

বড় পুঁজি নিয়েও পারল না বাংলাদেশ

ক্রীড়া ডেস্ক

প্রকাশিত: ২১:৩৫, ৫ আগস্ট ২০২২

আপডেট: ২১:৩৭, ৫ আগস্ট ২০২২

বড় পুঁজি নিয়েও পারল না বাংলাদেশ

ওয়ানডেতে ৩০৩ রান বেশ বড় পুঁজিই বটে। আর দল হিসেবে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তো বটেই। তাই স্বভাবতই জয়ের আশা করেছিলেন হয়তো তামিম ইকবাল। কিন্তু তার সেই আশায় জল ঢেলে দিয়ে ৫ উইকেটের জয় তুলে নিয়েছেন রেগিস চাকাভারা। আর এই জয়ের মূল নায়ক ইনোসেন্ট কাইয়া ও সিকান্দার রাজা। 

শুক্রবার (৫ আগস্ট) জিম্বাবুয়ের হারারেতে এই ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। 

এর আগে স্বাগতিকদের বিপক্ষে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজ ২-১ ব্যবধানে হেরেছে টাইগাররা। প্রসঙ্গত, এর আগে ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে জিম্বাবুয়ে সর্বশেষ হারিয়েছিল ২০১৩ সালের ৮ মে, বুলাওয়েতে। এরপর টানা ১৯ ম্যাচ বাংলাদেশের কাছে হেরেছে তারা। 

শুক্রবার টসে জিতে আগে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় জিম্বাবুয়ে। ব্যাটিংয়ে নেমে বেশ ভালোই করেন তামিমরা। ২ উইকেটে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৩০৩। ট্রিপল সেঞ্চুরি পার করা এই স্কোরে বেশ স্বস্তিতেই ছিলেন তামিমরা। কিন্তু ঘটলো উল্টোটাই। 

৩০৪ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে প্রথম দিকে টাইগারদের বোলিং তোপে পড়েন জিম্বাবুয়ের দুই ওপেনার রেগিস চাকাভা ও তারিসাই মুসাকান্দা। 

প্রথম ওভারের শেষ বলে চাকাভাকে বোল্ড করে সাজঘরে পাঠান মুস্তাফিজুর রহমান। তিনি করেন ৬ বলে ২ রান।

দ্বিতীয় ওভারে আবারো টাইগার বোলারদের আঘাত। এবার হন্তারক শরিফুল ইসলাম। মুসাকান্দা চেয়েছিলেন শরিফুলকে উড়িয়ে মারতে, কিন্তু তার বল খুঁজে পায় মোসাদ্দেক হোসেনের তালু। ক্যাচ আউট হয়ে ফিরে যাওয়ার আগে মুসাকান্দা ৫ বলে করেন ৪ রান। 

এরপরই শুরু হয় কাইয়া উপাখ্যান। দলীয় ৬ রানে ২ উইকেট পড়ে গেলেও বুক চিতিয়ে দাঁড়ান এই জিম্বাবুইয়ান। লড়ে যান সমান তালে। 

তাকে কিছু সময়ের জন্য সঙ্গ দেন ওয়েসলি মাধেভেরে। কিন্তু সেটা বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। মেহেদি হাসান মিরাজের ওভারে মিস ফিল্ডিংয়ের সুযোগ নিতে গিয়ে রান আউট হয়ে যান তিনি। তার সংগ্রহ ছিল ২৭ বলে ১৯ রান।

এরপর ক্রিজে এসে ঝড় তোলেন টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশকে ভোগানিা সিকান্দার রাজা। তিনি এবং কাইয়া মিলে টেনে নিয়ে যান দলের স্কোরকে জয়ের দিকে। 

কাইয়া যখন আউট হন তখন জিম্বাবুয়ের রান ২৫৪ এবং ওভার ৪১.৫। অর্থাৎ ফিরে যাওয়ার আগে জয়ের ক্ষেত্রটা বেশ গুছিয়েই দিয়ে যান তিনি। মোসাদ্দেক হোসেনের বলে শরিফুলের হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। তার আগে অবশ্য তুলে নেন নিজের ব্যক্তিগত সেঞ্চুরি। কাইয়া করেছেন ১২২ বলে ১১০ রান। 

এরপর রাজার সঙ্গী হন লুক জংওয়ে। তবে আগ্রাসী ছিলেন রাজাই। তিনিও তুলে নেন সেঞ্চুরি। 

এদিকে জয়ের জন্য যখন আর মাত্র ৮ রান দরকার তখন আউট হয়ে যান লুক। মেহেদির বলে আফিফের হাতে জমা পড়েন তিনি। তার সংগ্রহ ১৯ বলে ২৪ রান।

পরে নামেন মিল্টন সুম্বা। অবশ্য তাকে মোকাবিলা করতে হয় মাত্র ২ বল, করেন ১ রান। খেলা শেষ করেন রাজা। তার আগ্রাসী ব্যাটিংয়ের কারণে (১০৯ বলে ১৩৫ রান) হাতে ১০ বল থাকতেই জয় তুলে নেয় জিম্বাবুয়ে। জিম্বাবুয়ের স্কোর দাঁড়ায় ৫ উইকেটে ৩০৭ রান। 

এর আগে ব্যাটিংয়ে নেমে টপ অর্ডারের চার ব্যাটারের ফিফটিতে ভর করে ৩০৩ রান করে বাংলাদেশ। 

দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন দাসের ফিফটির পর তাদের দেখানো পথ ধরে অর্ধশতক পেয়েছেন প্রায় ৩ বছর পর ওয়ানডেতে ফেরা এনামুল হক বিজয় ও বিরতি কাটিয়ে ফেরা মুশফিকুর রহিম।

ধীরগতিতে শুরু করা তামিম-লিটন ম্যাচের বয়স বাড়ার সঙ্গে খোলস থেকে বের হয়ে আসেন। তাদের জুটি থেকে আসে ১১৯ রান। 

সিকান্দার রাজার বলে ইনিংসের ২৬তম ওভারে ব্যাকফুটে গিয়ে উড়িয়ে মারতে চেয়েছিলেন তামিম। কিন্তু হয়নি, তিনি ধরা পড়েন শর্ট থার্ডম্যান অঞ্চলে। ৮৮ বলে ৯ চারে ৬২ রান করে ফেরেন তামিম। 

তার বিদায়ের পর ফিফটির দেখা পান আরেক ওপেনার লিটন। এটি তার ক্যারিয়ারের ১৫তম ও ওয়ানডেতে সপ্তম ফিফটি। 

ফিফটি পূর্ণ করে আগ্রাসী রূপে লিটন ছুটতে থাকেন শতকের দিকে। তবে এদিন ভাগ্য যেন সঙ্গে ছিল না তার। ৩৪তম ওভারের প্রথম বলে দ্রুত সিঙ্গেল নিতে গিয়ে পেশিতে টান পড়ে তার। এরপর মাটিতে লুটিয়ে পড়েন, স্ট্রেচারে করে তাকে নেয়া হয় ড্রেসিংরুমে। দুর্দান্ত খেলতে থাকা লিটন ৮৯ বলে ৮১ রানে রিটায়ার্ড হার্ট হন। তার ইনিংসে চারের মার ছিল ৯টি ও ছয়ের মার ১টি। এদিন আর ব্যাটিংয়ে নামেননি তিনি।

লিটন অসুস্থ হয়ে সাজঘরে ফিরলে ক্রিজে আসেন মুশফিকুর রহিম। বিজয়ের সঙ্গে জুটি বেঁধে দলকে বড় সংগ্রহের দিকে নেন তিনি। দুজনই পেয়েছেন অর্ধশতকের দেখা। 

আগে ফিফটি পূর্ণ করেন বিজয়। ওয়ানডেতে ৩ বছর পর ফিরেই হাঁকান ফিফটি। সুযোগ ছিল সেঞ্চুরি করার। তবে একবার জীবন পেয়েও থামেন ৭৩ রানে। উড়িয়ে মারতে গিয়ে লং অফে ধরা পড়েন মুসাকান্দার হাতে। ৬ চার ও ৩ ছয়ে ৬২ বলে ৭২ রান করেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। 

শেষদিকে ফিফটি তুলে নেন মুশফিক। তার ৪৯ বলে অপরাজিত ৫২ রানের সঙ্গে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ১২ বলে ২০ রানের সুবাদে ৫০ ওভার শেষে ২ উইকেট হারিয়ে স্কোর বোর্ডে ৩০৩ রানের সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ।