ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

ওমিক্রনভীতি : আবারো আসছে বিধিনিষেধ!

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১৮:৪৩, ২৯ নভেম্বর ২০২১

ওমিক্রনভীতি : আবারো আসছে বিধিনিষেধ!

ফাইল ছবি

আবারো আসছে লকডাউন! করোনা ভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ নিয়ে বিশ্বব্যাপী সৃষ্টি হয়েছে গভীর উদ্বেগ। বাদ নেই বাংলাদেশও। দেশে এই ভ্যারিয়েন্টের প্রবেশ ও বিস্তার রোধে নেয়া হয়েছে নানা কড়াকড়ি ব্যবস্থা। দেশের সব প্রবেশপথে নজরদারি বাড়ানোসহ বিশ্বের কয়েকটি দেশে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার মতো সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এরপরই গুঞ্জন উঠেছে, ফের লকডাউনের মতো কঠোর বিধিনিষেধ জারি হতে পারে দেশে।

জানা গেছে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ‘ওমিক্রন’ ছড়িয়ে পড়ার প্রেক্ষাপটে এ সম্পর্কে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের লক্ষ্যে মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক সরকারের সব মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের এক জরুরি সভায় ডেকেছেন। সেখানে তিনি এই নতুন ভ্যারিয়েন্ট মোকাবিলায়  দিকনির্দেশনা দিতে পারেন। 

সূত্রমতে, এ সভা থেকে লকডাউনের মতো সিদ্ধান্তও আসতে পারে! এছাড়া বন্দরগুলোর করণীয় বিষয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয়েরও সিদ্ধান্ত আসার কথা রয়েছে।

এর আগে চলতি মাসে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, করোনার যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সর্বোচ্চ প্রস্তুতি রয়েছে। 

এদিকে ওমিক্রন ঠেকাতে বিদেশ থেকে, বিশেষ করে আফ্রিকার দেশগুলো থেকে, আগতদের ওপর নজরদারি ও মনিটরিং বাড়ানো হয়েছে। নতুন ভ্যারিয়েন্ট যেন সহজে দেশে প্রবেশ করতে না পারে, সেজন্য আকাশপথ, স্থলপথ, সমুদ্রবন্দরসমূহে কঠোর সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে বলে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় এবং বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) সূত্রে জানা গেছে।

সতর্কতার অংশ হিসেবে এরই মধ্যে ওমিক্রন রোধে ১৫টি নির্দেশনা জারি করেছে বাংলাদেশ সরকার। এতে দক্ষিণ আফ্রিকা, নামিবিয়া, জিম্বাবুয়ে, বতসোয়ানা, এসওয়াতিনি, লেসোথো এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ঘোষিত অন্যান্য আক্রান্ত দেশ থেকে আগত যাত্রীদের বন্দরসমূহে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও স্ক্রিনিং জোরদার করতে বলা হয়েছে। এছাড়া আগত যাত্রীদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করাসহ সর্বক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানীদের গবেষণায় দেখা গেছে, করোনা ভাইরাসের অন্যান্য ভ্যারিয়েন্টের তুলনায় ওমিক্রন এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশিবার জিনগত পরিবর্তন ঘটিয়েছে। ফলে এতে আতঙ্ক বেড়েছে। কারণ এর আগে সবচেয়ে বেশি জিন পরিবর্তনকারী ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ভয়াল থাবায় ভুগেছে বিশ্ব। ওমিক্রন তার চেয়ে বেশি পরিবর্তিত রূপ, ফলে এটা কতটা ভয়ঙ্কর তা এখন পর্যন্ত নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না বিজ্ঞানীরা।  

এ প্রসঙ্গে জনস্বাস্থ্যবিদ ও মেডিক্যাল অ্যানথ্রোপলজিস্ট ডা. চিন্ময় দাস স্টার সংবাদকে বলেন, আমাদের সব সময় সতর্ক থাকতে হবে। সংক্রমণ কমে যাওয়ায় অবহেলার সুযোগ নেই। পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকে আগেই যদি আমরা সব ধরনের প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিতে পারি, তাহলে ওমিক্রন দেশে প্রভাব বিস্তার করতে পারবে না। যেসব দেশে এটি ধরা পড়েছে সেসব দেশের মানুষ বাংলাদেশে প্রবেশ করলে তাদের কোয়ারেন্টাইন যেন যথাযথভাবে করা সেদিকে কঠোর নজরদারি দরকার।   

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালের মার্চ মাসে দেশে প্রথম করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয় একজনের দেহে। এরপর ধীরে ধীরে দেশজুড়ে বাড়তে থাকে এই ভাইরাসের সংক্রমণ। ফলে করোনারোধে একসময় দেশজুড়ে কঠোর বিধিনিষেধ (লকডাউন) ঘোষণা করা হয়। এতে কার্যত থমকে দাঁড়ায় দেশ। 

সম্প্রতি দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর হার শূন্যে নেমে এসেছে। এক্ষেত্রে সরকারের নানা পদক্ষেপ ইতিবাচক ভূমিকা রেখেছে। কিন্তু এরই মধ্যে বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক রূপে দেখা দিয়েছে ওমিক্রন। ফলে দেশে সৃষ্টি হয়েছে নতুন উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা। 

করোনা মোকাবিলায় গঠিত জাতীয় কারিগরি বিশেষজ্ঞ কমিটির সভাপতি ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ স্টার সংবাদকে বলেন, করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন নিয়ে আমরা সতর্ক আছি। যেহেতু টিকাকরণ চলছে এবং অনেককেই টিকা দেয়া হয়েছে, কাজেই আমরা করোনা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারবো বলে আশাবাদী।