ঢাকা বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

অরাজকতার আরেক নাম গণপরিবহন, সর্বনিম্ন ভাড়া নিচ্ছে না কেউই

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১৫:০২, ১৬ নভেম্বর ২০২১

অরাজকতার আরেক নাম গণপরিবহন, সর্বনিম্ন ভাড়া নিচ্ছে না কেউই

রাজধানীতে বাসের ভাড়া কিলোমিটারে বেড়ে হয়েছে ২.১৫ টাকা। মিনিবাসে সর্বনিম্ন ভাড়া ৮ টাকা আর বড় বাসে ১০ টাকা। সিটিং-গেটলক সার্ভিস বন্ধ। এমনটাই ছিল বিআরটিএ এবং বাস মালিক সমিতির সিদ্ধান্ত। কিন্তু সেসব কিছুরই সঠিক বাস্তবায়ন হয়নি। সর্বনিম্ন ভাড়া রাখা হচ্ছে না কোনো বাসেই। চলছে গেটলক-সিটিং সার্ভিস। এতে করে না চাইলেও দুর্মূল্যের এই বাজারে বাড়তি অর্থ গুনতে হচ্ছে সাধারণ যাত্রীদের। দেখার যেন কেউই নেই! এদেশে গণপরিবহন সেক্টর যেন অরাজকতার আরেক নাম।

রুমানা জামান মিরপুর থেকে বাসে নিয়মিত অফিস করেন ফার্মগেটে। তিনি ক্ষোভের সঙ্গে জানান, মিরপুর শেওড়াপাড়া-তালতলা থেকে কেউ ফার্মগেট গেলে তাকে ২০ টাকা দিতে হচ্ছে। আবার যে মিরপুর ১২ থেকে ফার্মগেট যাচ্ছে তাকেও ২০ টাকা দিতে হচ্ছে। যদি ফার্মগেট না নেমে কেউ বাংলামটর বা শাহবাগ নামতে চান তার কাছ থেকে নেয়া হচ্ছে ৩০ টাকা। এটা তো অন্যায়। ওয়েবিল আর সিটিং সার্ভিস বলে এই টাকা আদায় করছে বাসের হেলপার-কন্ডাক্টররা।

গত ১৪ নভেম্বর থেকে রাজধানীতে কোনো সিটিং সার্ভিস বা গেটলক থাকবে না বলে জানিয়েছিল ঢাকা বাস মালিক সমিতি। কিন্তু সে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন না করায় প্রতারিত হচ্ছেন যাত্রীরা। এদিকে এই সিদ্ধান্ত না মানলে ‘কঠোর ব্যবস্থা’ নিতে মাঠে থাকবেন বলে বাস মালিক সমিতির নেতারা যে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন তা এখন কথার কথায় পরিণত হয়েছে। কার্যত এসব অনাচার দেখার জন্য তাদের কাউকেই খুঁজে পাওয়া যায়নি মাঠে। অবস্থাদৃষ্টে স্পষ্ট, পরিকল্পিতভাবেই তারা এমন মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে যাত্রীদের সঙ্গে প্রতারণা করে যাচ্ছেন। 

তাহলে যাত্রীরা চুপ কেন? এমন প্রশ্নে বিশ্লেষকদের অভিমত, দেশে, বিশেষ করে পরিবহন সেক্টরে, ন্যায্যতার কোনো স্থান নেই। এর আগেও বহুবার বহু বিষয়ে এ সেক্টর নিয়ে সোচ্চার হয়েছে সাধারণ মানুষ। কিন্তু সঠিক বিচার পায়নি। উল্টো তাদের ওপরই নানাভাবে চাপিয়ে দেয়া হয়েছে বাড়তি খরচের বোঝা, নয়তো সীমাহীন ভোগান্তি। তাই তাদের মধ্যে একটা চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। 

শামীম হোসেন থাকেন মোহাম্মদপুরে, কর্মক্ষেত্র বাংলামটর। তিনি জানান, গেটলক বন্ধ হওয়ার কথা থাকলেও হয়নি। আর সর্বনিম্ন ভাড়া যেটা নেয়ার কথা ছিল ওয়েবিলের কারণে সেটাও নিচ্ছে না। কিলোমিটারে ২.১৫ টাকা ভাড়া হলেও দিতে হচ্ছে ৫ টাকা করে। 

এ বিষয়ে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) উচ্চপর্যায়ের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, গণপরিবহনের অরাজকতা রুখতে হিমশিম খাচ্ছে বিআরটিএ। বারবার জরিমানা করেও সমস্যার সমাধান হচ্ছে না। কিছু বললেই পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা বিআরটিএকে ধর্মঘটের ভয় দেখায়। 

তিনি আরো বলেন, এই সেক্টরে ওপর মহলের হস্তক্ষেপ থাকায় বিআরটিএরও হাত-পা এক প্রকার বাঁধা।  

কথা দেয়ার পরও কেন সিটিং সার্ভিস বন্ধ হচ্ছে না - এ বিষয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি খন্দকার এনায়েত উল্লাহর কাছে জানতে চাইলে তিনি স্টার সংবাদকে বলেন, সব জায়গাতেই সিটিং সার্ভিস বন্ধ আছে। যারা মানছে না তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। 

তবে কোন কোন জায়গায় সিটিং সার্ভিস বন্ধ রয়েছে এবং এক্ষেত্রে ভাড়ার হার কী, তা জানতে চাইলে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন।