ঢাকা বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

বন্ধ হয়নি সিটিং-গেটলক, বাসে নেই ডিজেল-গ্যাসের স্টিকার 

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১৬:৩৫, ১৪ নভেম্বর ২০২১

বন্ধ হয়নি সিটিং-গেটলক, বাসে নেই ডিজেল-গ্যাসের স্টিকার 

ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সিদ্ধান্ত ছিল, আজ রোববার (১৪ নভেম্বর) থেকে রাজধানীতে কোনো বাসে সিটিং ও গেটলক সার্ভিস থাকবে না। বন্ধ হবে ওয়েবিল (লাইনম্যান বিভিন্ন স্টপেজে বাসে উঠে যে কাগজে সই করেন)। সব বাসে থাকবে ডিজেল বা গ্যাসের স্টিকার। কিন্তু আদতে সেসব সিদ্ধান্ত কথার কথা হয়েই রয়েছে এখন পর্যন্ত। এতে যাত্রীরা প্রতারিত হচ্ছেন। সিএনজিচালিত বাসে দিচ্ছেন ডিজেলের ভাড়া। আবার সিটিং-গেটলকের ফাঁদেও তাদের গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত অর্থ।   

রোববার দুপুরে বেশকিছু স্থান সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, রাজধানীর সঙ্গে গাজীপুর ও সাভারসহ কোচ বাসের অধিকাংশতেই জ্বালানিবিষয়ক কোনো স্টিকার লাগানো নেই। এমনকি রাজধানীর ভেতর চলাচল করা বেশকিছু বাসেও নেই ডিজেল বা গ্যাসের স্টিকার। এদিকে সিটিং ও গেটলক সার্ভিসও চলছে। বাস কর্মচারীরাও সুযোগ বুঝে বাড়তি ভাড়া আদায় করছেন যাত্রীদের কাছ থেকে। 
নগরীতে চলাচলরত আলিফ, ভিআইপি, প্রভাতী-বনশ্রী পরিবহন, গাজীপুর পরিবহন, তরঙ্গপ্লাস, স্বাধীন ও বিকাশ পরিবহনসহ আরো কিছু কোম্পানির বাস মালিকপক্ষ মানছেন না পরিবহন মালিক সমিতির সিদ্ধান্ত।

অফিসে যাওয়ার জন্য মোহাম্মদপুরের জাপান গার্ডেন সিটি থেকে ভূইয়া পরিবহনে উঠেছেন শারমিন নামে এক যাত্রী। তিনি জানান, মালিক সমিতির কথা অনুযায়ী আজ ওয়েবিল থাকার কথা নয়। কিন্তু এই বাসে আজও প্রতিদিনের মতো চেকার এসে ওয়েবিলে সাইন করেছেন। ভাড়াও নিচ্ছে বেশি। স্টপেজ থেকে স্টপেজ ধরে আগে যে ভাড়া ছিল তার সঙ্গে বর্ধিত ভাড়া যোগ হয়ে এখন আরো বেশি দিতে হচ্ছে। ক্ষেত্রবিশেষে তা ৫০ শতাংশের কাছাকাছি। অথচ সরকার ভাড়া বাড়িয়েছে ২৭ শতাংশ। সাধারণের সমস্যা যেন কেউ দেখার নেই। 

মগবাজার থেকে মামুন নামে এক যাত্রী বনানী আসছিলেন। তিনি জানান, বাসে এখনো সিটিংয়ের নামে যাত্রীরা প্রতারিত হচ্ছেন। আজ থেকে বাসে সিটিং বা গেটলক সার্ভিস থাকার কথা নয়, কিন্তু সেগুলো এখনো আছে। তাছাড়া কিছু বাসে ডিজেল ও গ্যাসের স্টিকার দেখা গেলেও অনেক বাসেই নেই। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমরা, যাত্রীরা, জিম্মি সরকার ও পরিবহন মালিকদের কাছে। 
  

ডিজেল ও গ্যাসের স্টিকার এখনো অনেক বাসে না লাগানোর বিষয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)-এর পরিচালক (এনফোর্সমেন্ট) ও যুগ্মসচিব মো. সরওয়ার আলম স্টার সংবাদকে বলেন, আমরা বলেছি তাদের (বাস মালিকদের) স্টিকার লাগাতে। সিএনজিচালিত বাসে স্টিকার না লাগালে বুঝতে হবে সেটি ডিজেলচালিত। তারপরও আমরা সব বাসেই স্টিকার লাগাতে বলেছি। মালিকপক্ষকে আমরা বহুবার বলেছি। তারা কিছু মানতে চান না। কিছু হলেই বলেন - ধর্মঘট করব। এসব কারণে এর আগে আমরা এক হাজার, দুই হাজার টাকা জরিমানা করেছি। আমি আজ রামপুরা ব্রিজে ১০ হাজার টাকাও জরিমানা করেছি। এরপর বলেছি ডাম্পিং করতে। যেসব গাড়ি মানবে না সেগুলো ডাম্পিং করা উচিত। পরে মালিকদের ডেকে বলেছি, সরাসরি জেল দিয়ে দেব। 

বাসে আজ থেকে ওয়েবিল অর্থাৎ সিটিং সার্ভিস বন্ধের কথা থাকলেও এখনো বহাল থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে স্টার সংবাদকে তিনি বলেন, যারা মানছেন না তাদের ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হচ্ছে। এটা আগে দুই হাজার টাকা ছিল, দেখি তারা কতদূর যেতে পারেন আর আমরা কতদূর যেতে পারি। আসলে জরিমানা করে এভাবে সংশোধন করা যায় না। সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে পলিসি ঠিক করতে হবে, এটা চলতে দেয়া যাবে কি যাবে না। তারপরও আমরা আমাদের মতো করে চেষ্টা করে যাচ্ছি। 

এদিকে সিটিং সার্ভিস এবং ডিজেল-গ্যাসের বিষয়ে ঢাকা বাস মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্লাহ ও ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির দফতর সম্পাদক সামদানী খন্দকারের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাদের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। 

গত ৪ নভেম্বর ডিজেলের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়ায় সরকার। এর প্রতিবাদে পরদিন থেকেই ধর্মঘট শুরু করে গণপরিবহন মালিকপক্ষ। অচলাবস্থা নিরসনে ৭ নভেম্বর তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসে বিআরটিএ। সেই বৈঠক থেকে সারাদেশে বাস ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়। গত ১০ নভেম্বর ঢাকা বাস মালিক সমিতির মহাসচিব সংবাদ সম্মেলন করে জানান, ‘রাজধানীতে অর্থাৎ ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় আগামী তিনদিন পর কোনো সিটিং সার্ভিস বা গেটলক থাকবে না। যাত্রীদের ভোগান্তির কথা চিন্তা করে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’ কিন্তু তাদের সেই সিদ্ধান্ত কথার কথাই হয়ে আছে এখন পর্যন্ত, মালিকরাই সে সিদ্ধান্ত সঠিকভাবে পালন করছেন না। 

প্রসঙ্গত, এর আগে ২০১৭ সালে বিআরটিএ সিটিং সার্ভিস বন্ধের নির্দেশনা দিলে সে সময়ও ধর্মঘট ডাকেন পরিবহন মালিকরা। ফলে যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে পড়লে চারদিনের মাথায় পরিবহন মালিকদের কথা মেনে নেয় বিআরটিএ, সরে আসে জরিমানাসহ অন্যান্য কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ থেকে।