ঢাকা বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

ধর্ষণ মামলায় বাধা কি ‘অভ্যস্ততা’ ও ‘৭২ ঘণ্টা’?

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১৮:৪৯, ১৩ নভেম্বর ২০২১

ধর্ষণ মামলায় বাধা কি ‘অভ্যস্ততা’ ও ‘৭২ ঘণ্টা’?

ধর্ষণের ঘটনায় বেশিরভাগ সময়ই ভুক্তভোগী মানসিক ট্রমায় ভুগে থাকেন। আবার অনেক ক্ষেত্রে প্রভাবশালী ধর্ষকদের ভয়ভীতিতে মামলা করা থেকে পিছিয়ে যান ধর্ষিতা ও তার পরিবার। তাই মামলা করতে কারো কারো ৭২ ঘণ্টার বেশি সময়, অথবা সপ্তাহ, মাস বা বছর পেরিয়ে যেতে পারে। আবার ধর্ষিতা যৌনসঙ্গমে অভ্যস্ত বা পতিতা হলেও তার অনুমতি ছাড়া শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করাও ধর্ষণ বলে আইনে গণ্য। 

সম্প্রতি এ বিষয়গুলোকেই বিতর্কিত করেছেন ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭-এর বিচারক মোসাম্মৎ কামরুন্নাহার। বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) রাজধানীর বনানীতে দ্য রেইনট্রি হোটেলে দুই তরুণীকে ধর্ষণের ঘটনার মামলার রায়ে করা তার মন্তব্য নিয়ে সামাজিক মাধ্যমসহ সব মহলে চলছে জোর আলোচনা-সমালোচনা। ধর্ষিতাদের ‘অভ্যস্ত’ বলা ও ‘৭২ ঘণ্টা’ পর ধর্ষণ মামলা না নেয়ার জন্য পুলিশকে দেয়া তার পরামর্শ নিয়ে উঠেছে বিতর্ক।

এদিকে সাম্প্রতিককালে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে স্বামীকে বেঁধে রেখে ধর্ষণের ঘটনায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয় দেশব্যাপী। ওই ঘটনার পর সন্ত্রাসীদের ভয়ে ভুক্তভোগী ও তার পরিবার আত্মগোপন করেন। পরে পুলিশ খুঁজে তাদের উদ্ধার করলে এক মাসের মাথায় অপরাধীদের নামে মামলা করা হয়। 

এদিকে ধর্ষণের ঘটনা যেন জনসম্মুখে না আসে সেজন্য ধর্ষিতাকে হত্যার ঘটনাও প্রায়ই গণমাধ্যমে আসছে।
  
এমন পরিস্থিতিতে মামলা দায়েরের জন্য বেঁধে দেয়া ৭২ ঘণ্টা সময়ের নানা প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ। তারা বলছেন, ধর্ষণের পর ধর্ষিতাকে যদি ৭২ ঘণ্টা আটকে রাখা হয় তাহলে তো সে আর মামলা করতে পারবেন না। ফলে আইনের ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যাবে ধর্ষক ও তার সহযোগীরা। ধর্ষণের ঘটনার পর মামলা দায়েরের সময় বেঁধে দেয়ার পরামর্শ এবং ধর্ষিতাদের অভ্যস্ত বলায় ধর্ষক এ কাজে আরো উৎসাহী হবে বলে মন্তব্য অনেকের। 
 
বর্তমানে ধর্ষণের সব মামলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের আওতায় করা হয়ে থাকে। দণ্ডবিধির আওতায় এখন আর ধর্ষণের মামলা করা হয় না। দণ্ডবিধির আওতায় ধর্ষণের মামলা করার সুযোগ থাকা সত্ত্বেও নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের আওতায় ধর্ষণ মামলা করাকে আইনের ভাষায় Doctrine of Implied Repeal বলে। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের অধীনে ধর্ষণের মামলা করার কারণ হলো, এই আইন বিশেষ আইন। আর বিশেষ আইনের আওতায় মামলার নিষ্পত্তি হয় দ্রুত। 

দণ্ডবিধির ৩৭৫ ধারায় ধর্ষণের সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, কোনো নারীকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে তার সম্মতি ব্যতীত অথবা ভয় দেখিয়ে সম্মতি আদায় করে অথবা অন্যায়ভাবে বুঝিয়ে তার সম্মতি নিয়ে যৌন সহবাস করলে সেটা নারী ধর্ষণ নামে বিবেচিত হবে। সেখানে বলা হয়েছে, স্ত্রীর বয়স যদি ১৩ বছরের কম হয়, সেক্ষেত্রে স্বামী যদি স্ত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করে, তাহলে সেটাও ধর্ষণ হিসেবে গণ্য হবে।

এদিকে, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০-এর ৯ ধারার ব্যাখ্যাতে ধর্ষণের সংজ্ঞা দেয়া হয়েছে। এখানে বলা হয়েছে, কোনো পুরুষ বিবাহ বন্ধন ব্যতীত ১৬ বছরের অধিক বয়সের কোনো নারীর সঙ্গে তার সম্মতি ছাড়া বা ভীতি প্রদর্শন করে বা প্রতারণামূলকভাবে তার সম্মতি আদায় করে যৌন সহবাস করাকে নারী ধর্ষণ বলে। এছাড়া কোনো পুরুষ যদি বিবাহ বন্ধন ব্যতীত ১৬ বছরের কম বয়সের কোনো নারীর সঙ্গে তার সম্মতিসহ বা সম্মতি ব্যতিরেকে যৌন সহবাস করে, তাহলে সেটা নারী ধর্ষণ হিসেবে বিবেচিত হবে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯ ধারাতে ধর্ষণ এবং ধর্ষণজনিত কারণে শাস্তির কথা আলোচনা করা হয়েছে। ধারা-৯-এর উপধারা-১-এ বলা হয়েছে, যদি কোনো পুরুষ কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন, তাহলে তিনি যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন। ধারা ৯-এর উপধারা-২-এ বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি ধর্ষণ বা উক্ত ধর্ষণ পরবর্তী তার অন্যবিধ কার্যকলাপের ফলে ধর্ষিতা নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে, তাহলে উক্ত ব্যক্তি মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অন্যূন এক লক্ষ টাকা অর্থদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন। দলবদ্ধভাবে ধর্ষণের ক্ষেত্রেও ধারা-৯-এর উপধারা-২ অনুযায়ী শাস্তি প্রযোজ্য হবে।

এ পরিস্থিতিতে বিচারকের মন্তব্যের বিষয়ে অপরাধ বিজ্ঞানী ড. জিয়া রহমান স্টার সংবাদকে বলেন, এর মাধ্যমে বাংলাদেশে পুরো ক্রিমিনাল জাস্টিস পদ্ধতির যে একটা দুর্বলতা আছে তা প্রকাশ হলো। মাঝে মাঝে আমরা দেখি বিচারক পুলিশকে ভর্ৎসনা করছেন, পুলিশ আবার চার্জশিটে দেরি করছে, আবার আদালকেও তারা দোষারোপ করে। এটি হচ্ছে আসলে উৎকৃষ্ট দৃষ্টান্ত, আমাদের পুরো ক্রিমিনাল জাস্টিস পদ্ধতি ন্যায়বিচারের ক্ষেত্রে কতটুকু সহায়ক। যে কথাটি বিচারক বলেছেন, সেটি যদি এভাবে বলতেন - এখন থেকে এ ধরনের মামলা নেয়ার ক্ষেত্রে আপনারা সতর্ক থাকবেন, যাতে ৭২ ঘণ্টার মধ্যেই এটা নেয়া যায়, সে রকম ব্যবস্থা নেবেন। পুরো ব্যাপারটি একেবারেই আলাদা। বিচারকের কথায় বোঝা যায়, কোনো ভুক্তভোগী ৭২ ঘণ্টার পর গেলে মামলা করতে পারবেন না। দেশের ভুক্তভোগীরা প্রভাবশালী কর্তৃক নিগৃহীত হলে তখন তো ভুক্তভোগীরা বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে মামলা করতে পারবেন না। ৭২ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলে তিনি কি বিচার পাবেন না? এটা তো হতে পারে না। কারণ এ ধরনের হলে অনেকে তো উৎসাহী হতে পারে। 

জিয়া রহমান আরো বলেন, আমার মনে হয়, তার (বিচারকের) অসৎ উদ্দেশ্য ছিল না। কারণ এ বিষয়ে যেহেতু অনেক সময় নষ্ট হয়েছে সেজন্য তিনি বলতে চেয়েছিলেন, কিন্তু বিষয়টি বুঝিয়ে বলতে পারেননি। আর এ ধরনের কথা প্রি-ম্যাচিউর টাইপ।  

এ বিষয়ে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও বিশিষ্ট মানবাধিকারকর্মী সুলতানা কামাল গণমাধ্যমকে বলেছেন, ফৌজদারি অপরাধের বিরুদ্ধে মামলা করার কোনো সময়সীমা আমাদের প্রচলিত আইনি ব্যবস্থায় নেই। বিচারকের এ নির্দেশনা সম্পূর্ণ বেআইনি। ৭২ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলে ধর্ষণের আলামত খুঁজে পাওয়া দুষ্কর হয়, সে কারণে এই সময়সীমা গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু আমরা যত উন্নত প্রযুক্তির দিকে এগোচ্ছি, অপরাধ নির্ণয়ে নানা সুযোগ আমাদের সামনে উন্মুক্ত হচ্ছে। ধর্ষণের মামলায় ডিএনএ পরীক্ষা তেমন একটি উপায়। অপরাধ যাতে প্রমাণ করা যায়, সে বিষয়ের ওপর জোর না দিয়ে বিচারক ৭২ ঘণ্টা পরে মামলা না নেয়ার নির্দেশনা দিয়ে ধর্ষণের শিকার মানুষের বিচার পাওয়ার পথে কঠিন অন্তরায় সৃষ্টি করলেন। 

তিনি আরো বলেন, ধর্ষক বা ধর্ষকেরা ভুক্তভোগীকে ৭২ ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখতে পারলেই নিজেদের বিচারের আওতামুক্ত থাকা নিশ্চিত করে নিতে পারল। আদালতের এ নির্দেশনা ন্যায়বিচার প্রাপ্তির সম্ভাবনার মূলেই কুঠারাঘাত করেছে। এ নির্দেশনার ফলে সমগ্র বিচারব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে, নতুন করে আস্থার সংকট ঘটানো হয়েছে।

এদিকে বিচারকের এই পর্যবেক্ষণকে ‘সম্পূর্ণ অসাংবিধানিক’ বলে মন্তব্য করেছেন আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল হক। শনিবার (১৩ নভেম্বর) তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘রাজধানীর বনানীর রেইনট্রি হোটেলে দুই শিক্ষার্থী ধর্ষণের অভিযোগে করা মামলার বিচারকের পাওয়ার সিজ (ক্ষমতা কেড়ে নেয়া) করতে প্রধান বিচারপতিকে চিঠি দেয়া হবে।’