ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

আতঙ্কের নাম গণপরিবহনের জানালার অস্বচ্ছ কাচ 

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১৩:৩১, ৫ অক্টোবর ২০২১

আপডেট: ১৩:৩৫, ৫ অক্টোবর ২০২১

আতঙ্কের নাম গণপরিবহনের জানালার অস্বচ্ছ কাচ 

বিশ্বের সব দেশেই সাধারণ মানুষের চলাচলের অন্যতম বাহন গণপরিবহন। আমাদের দেশেও তাই। কিন্তু এ গণপরিবহনই কখনো কখনো অনিরাপদ হয়ে ওঠে, বিশেষ করে নারীদের জন্য। অস্বচ্ছ বা ঘোলা কাচযুক্ত এসব পরিবহনে ধর্ষণসহ নানা শারীরিক লাঞ্ছনার শিকার হন নারীরা। দেশ-বিদেশে ঘটে যাওয়া বেশ কয়েকটি ঘটনা তারই সাক্ষ্য বহন করছে। 

২০১৩ সালে ভারতে চাঞ্চল্য সৃষ্টিকারী চলন্ত বাসে ধর্ষণকাণ্ডের পর এর অশুভ হাওয়া যেন বাংলাদেশেও বইতে শুরু করে। ২০১৭ সালে বাংলাদেশে প্রথম চলন্ত বাসে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। তারপর দেশে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি দেখা গেছে বারবার। এর মধ্যে আশুলিয়া সিঅ্যান্ডবি বাইপাস সড়কে, গাজীপুরে, টাঙ্গাইল ও চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে চলন্ত বাসে গণধর্ষণের ঘটনা উল্লেখযোগ্য। লক্ষণীয় বিষয় হলো, এ ধরনের অপকর্মের আগে কৌশলে অপরাধীরা বাসের দরজা-জানালা বন্ধ করে দেয়। ফলে বাইরে থেকে বোঝার উপায় থাকে না ভেতরে কি ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটে চলেছে।

২০১৮ সালের ডিসেম্বরে রাজধানীতে আসমানী পরিবহনের একটি চলন্ত বাসে এক তরুণীকে শ্লীলতাহানি ও গণধর্ষণের চেষ্টা করা হয়। সে সময় ২৫ বছরের ওই তরুণী নিজেকে রক্ষা করতে চলন্ত বাস থেকে লাফিয়ে পড়লে গুরুতর আহত হন।

এত উদাহরণ চোখের সামনে থাকলেও গণপরিবহনের, বিশেষত বাসের, জানালার অস্বচ্ছ কাচ ব্যবহারের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত কোনো কার্যকর পদক্ষেপ দেখা যায়নি।

সরেজমিন দেখা যায়, রাজধানী থেকে গাজীপুর ও সাভারে চলাচলাকারী লাব্বাইক, বিকাশ, মনজিল এক্সপ্রেস, স্বাধীন, বলাকা ও গাজীপুর পরিবহনের অনেক বাসেই এমন অস্বচ্ছ কাচ ব্যবহার করা হয়েছে জানালায়। কাচ বন্ধ থাকা অবস্থায় এসব বাসের ভেতর এক ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়। বাইরে থেকে বোঝার উপায় থাকে না ভেতরে কে আছে, কী হচ্ছে বা কেমন পরিবেশ।  

এসব বাসে চলাচল করতে অনিরাপদ ও আতঙ্ক বোধ করেন নারীরা। কারণ কোনো কোনো সময়, বিশেষ করে রাতে, বাসে যাত্রী তেমন থাকে না। সে সময় অনেক নারীকে প্রয়োজনের তাগিদে বাসে চলাফেরা করতে হয় এবং বেশির ভাগ সময় তারা একাই ভ্রমণ করেন। এই সুযোগই কাজে লাগায় অপরাধী চক্র, বিশেষ করে বাস চালক ও হেলপার। 

এ বিষয়ে আসমা আক্তার নামে এক কর্মজীবী নারী জানান, কাজের কারণে আমাকে গণপরিবহন ব্যবহার করতে হয়। রাত একটু বেশি হলেই ভয় লাগে গণপরিবহনে উঠতে। কারণ এ সময় লোকজন তেমন একটা থাকে না। অন্যদিকে কিছু বাসের জানালাও কেমন যেন, বাইরে থেকে ভেতরে কিছু দেখা যায় না।

ফারজানা আক্তার নামে আরেক নারী জানান, তিনি মতিঝিলে চাকরি করেন, বাসা আবদুল্লাহপুরে। কাজের চাপের কারণে অনেক সময় বাসায় ফিরতে রাত ১০টা বেজে যায়। এ সময় বাসে লোক থাকে তুলনামূলকভাবে অনেক কম। 

তিনি বলেন, এখন প্রায় সব বাসের জানালাই অস্বচ্ছ কাচঘেরা। তাই আতঙ্কে থাকি। কারণ দেশে যে অপরাধ ঘটছে তাতে ভয় পাওয়া ছাড়া উপায় নেই।  

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জিন্নাত হুদা স্টার সংবাদকে বলেন, গণপরিবহনে কাজ করা অনেক ড্রাইভার-হেলপার এবং কিছু যাত্রীর মনে এক ধরনের বিকৃতি কাজ করে। যখনই দেখেন নারীরা একটা পর্যায়ে একা হয়ে যাচ্ছে, তখনই তাদের বিকৃতি প্রকাশ পায়। ওই নারীকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার চেষ্টা করে। 

তিনি আরো বলেন, অপরাধের ধরন এখন পাল্টে গেছে। আমরা বিদেশি চ্যানেল ও আকাশ সংস্কৃতি মুক্ত করে দিয়েছি। পর্নগ্রাফি আমাদের হাতের মুঠোয় চলে এসেছে। এসব তারা দেখে অপকর্ম করার মন-মানসিকতা তৈরি করে।

এ ধরনের অপরাধ রোধের উপায় সম্পর্কে অধ্যাপক জিন্নাত বলেন, যেসব বাসের ড্রাইভার ও হেলপার কিংবা যাত্রী এ ধরনের কাজ করে থাকে, তাদের কঠোরতর শাস্তির আওতায় আনতে হবে। আবার শুধু শাস্তি দিয়েই সব সমস্যার সমাধান করা যায় না। তাই সামাজিক সচেতনতাও বৃদ্ধি করতে হবে। গণপরিবহনে কেউ যেন এ ধরনের পৈশাচিক ঘটনা ঘটাতে না পারে, সেজন্য বাইরে থেকে ভেতরটা দেখা যায় - এমন কাচ লাগাতে হবে দরজা জানালায়। সেই সঙ্গে বাসের বিভিন্ন স্থানে সচেতনতামূলক বাণী ও সিসিটিভির ব্যবস্থা করা গেলে এসব অপরাধ ঘটাতে অপরাধীরা ভয় পাবে। 

এদিকে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ স্টার সংবাদকে বলেন, এ ধরনের কাচ দিয়ে তৈরি জানালা ব্যবহারে বাস মালিকদের নিষেধ করা হয়েছে। ট্রাফিক পুলিশ এ বিষয়ে অভিযান চালাচ্ছে, তারা ব্যবস্থা নেবে। 

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালে দেশে গাড়িতে কালো, রঙিন, মার্কারি এবং অস্বচ্ছ কাচ ব্যবহার নিষিদ্ধ করে সরকার। অপহরণ, গুপ্ত খুন ও ধর্ষণসহ অপরাধমূলক ঘটনা রোধে সরকার ওই নিষেধাজ্ঞা দেয়। কিন্তু সেই নিষেধাজ্ঞার বাস্তবায়ন নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন। উল্টো গণপরিবহনে যেন এর ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলেছে।