ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

রমরমা অনলাইন যৌনব্যবসা, ঝুঁকছে তরুণী-যুবতীরা

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১২:৪৮, ৩ অক্টোবর ২০২১

আপডেট: ১৫:০৭, ৩ অক্টোবর ২০২১

রমরমা অনলাইন যৌনব্যবসা, ঝুঁকছে তরুণী-যুবতীরা

ছবি : সংগৃহীত

দেশে এখন কয়েক হাজার অ্যাডাল্ট সাইট (পর্নসাইট) বন্ধ রয়েছে সরকারের উদ্যোগে। কিন্তু এসব উদ্যোগকে পাশ কাটিয়ে অনলাইনভিত্তিক বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন (অ্যাপ) দিয়ে চলছে রমরমা যৌনব্যবসা। ক্ষেত্রবিশেষে ভার্চুয়াল সেক্সের (অনলাইনে যৌনতা) পাশাপাশি সশরীর খদ্দেরও নেয়া হচ্ছে। আতঙ্কের বিষয় হলো, সহজে অর্থ উপার্জনের এই নোংরা পথে পা বাড়াচ্ছে দেশের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া তরুণী-যুবতীরা।  

দেখা গেছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং মোবাইল অ্যাপ যেমন- ইমো, বিগো, মিগো ছাড়াও অন্যান্য প্লাটফর্মে চলছে এ ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ। করোনা অতিমারির সময়ে এ ধরনের অ্যাপ ব্যবহারকারীর সংখ্যা স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে বলে বিভিন্ন তথ্যমতে জানা যায়। 

চিন্তার বিষয় হলো, শুধু নির্দিষ্ট শ্রেণী বা পেশার নয়, বিভিন্ন পেশার ও শ্রেণীর নারীরা যুক্ত হচ্ছে এই অবৈধ কর্মকাণ্ডে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এসব অনৈতিক কাজের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এসকর্ট সার্ভিস (সঙ্গীসেবা বা দেহপসারিণী) এবং বিভিন্ন নামে আইডি ও পেজ খুলে নানা অফার দিয়ে খদ্দের আকৃষ্ট করছেন অনেকে। এসব ক্ষেত্রে ঘণ্টা চুক্তিতে নেয়া হয় বিভিন্ন অঙ্কের টাকা। মেসেঞ্জার গ্রুপ খুলেও চালানো হচ্ছে এসব কর্মকাণ্ড। দুই থেকে পাঁচ হাজার টাকায় করা হচ্ছে ভিডিও সেক্স এবং ৫০০ থেকে এক হাজার টাকায় মেসেজ সেক্স। এভাবে শুধু ভিডিও ও মেসেজই নয়, সরাসরিও খদ্দের নিয়ে থাকেন তারা।

এছাড়া বডি ম্যাসাজের (স্পা) নামে রাজধানীজুড়ে চলছে যৌনবাণিজ্য। এদের অনেকেই ফেসবুকের মাধ্যমে খদ্দের সংগ্রহ করেন। খদ্দেরকে আশ্বস্ত করার জন্য হোয়াটসঅ্যাপ ও টেলিগ্রামের মাধ্যমে দেয়া হয় কলগার্লদের ছবি। সার্ভিসভেদে নেয়া হয় বিভিন্ন অঙ্কের অর্থ। 

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের বেশির ভাগই রাজধানীর বনানী ও গুলশান এলাকায়। এরা ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে পার্লারের আড়ালে চালাচ্ছে এই অপকর্ম। 

সমাজবিজ্ঞানীদের মতে, পারিবারিক মূল্যবোধের ঘাটতির কারণে ছেলেমেয়েরা এ ধরনের অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে। তাদের কাছে এখন যে কোনো উপায়ে অর্থ উপার্জন ও শারীরিক সুখের বিষয়টিই মুখ্য হয়ে উঠছে। এসব নোংরামি ও অপকর্মের রাশ এখনই টেনে ধরা না গেলে এবং পরিবারে নীতি-নৈতিকতার শিক্ষা দেয়া না গেলে, ভবিষ্যতে পরিস্থিতি আরো ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে বলে আশঙ্কা তাদের। 

এদিকে ইমো ও বিগো- এই দুটি মাধ্যম অনলাইন যৌনব্যবসার জন্য বেশ পরিচিত। টাকার বিনিময়ে ভিডিও-অডিও ও মেসেজের মাধ্যমে করা হয় সেক্স। অনেকে আবার প্রতারিতও হন। তবে বিগোর মাধ্যমে অনলাইন যৌনব্যবসা ছাড়াও আন্তর্জাতিকভাবে চালানো হয় ক্যাসিনো ব্যবসা (জুয়ার আসর)। এর সঙ্গে যুক্ত বেশির ভাগ মেয়েই স্মার্ট ও সুন্দরী। 

বিগোতে যুক্ত এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী জান্নাতের (ছদ্মনাম) সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, বিগোর মাধ্যমে তিনি প্রতিমাসে ঘরে বসেই ৬০ হাজার টাকা আয় করেন। ফলে অন্য কোথাও চাকরির কথা ভাবছেন না। 

তিনি জানান, যেসব মেয়ে আবেদনময়ী, সাধারণত তাদের চুক্তিভিত্তিক কিনে নেয়া হয়। বিগোর মাধ্যমে ক্যাসিনোতে যে মেয়ে ক্লায়েন্টদের থেকে যত বেশি বিট কয়েন (ভার্চুয়াল মানি) সংগ্রহ করেন, তাদের ডিমান্ড তত বেশি।  

এসব প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. জিন্নাত হুদা স্টার সংবাদকে বলেন, ছোটবেলাতেই পরিবার থেকে সন্তানদের ভালোমন্দ বোঝাতে হবে। এছাড়া টাকার প্রয়োজনেও অনেকে এ ধরনের কাজ করে থাকে। তবে এজন্য পুরুষ সমাজকে আরো সোচ্চার হতে হবে। কারণ এসব কাজে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে তারাই জড়িত। প্রশাসনেরও আরো তৎপর হওয়া উচিত। প্রতিটি এলাকায় কোথায় কী হচ্ছে, সেসব তাদের জানার কথা। সেই সঙ্গে সরকারের উচিত অনলাইনের বিভিন্ন তৎপরতার ব্যাপারে আরো সচেতন হওয়া। 

তিনি বলেন, সামাজিক মাধ্যমসহ অনলাইন প্লাটফর্মে এ ধরনের কোনো পোস্ট বা পেজ দেখলে সঙ্গে সঙ্গে সেগুলো বন্ধ করে যদি ওই ব্যক্তি বা ব্যক্তিদের সতর্ক করা যায়, তাহলে আমাদের সমাজ আরো সুন্দর হবে বলে আমার ধারণা।

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন স্টার সংবাদকে বলেন, আমরা সব সময় এ ধরনের অপরাধের বিষয়ে কঠোর অবস্থানে রয়েছি। করোনার সময় মূলত এ অপরাধগুলো বেড়ে গেছে। এসব অপরাধের সঙ্গে যারা জড়িত আছে তাদেরকে প্রায় সময়ই আমরা গ্রেফতার করছি। এ ধরণের অপরাধরোধে আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে।

এসব কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণে ইতোমধ্যে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। তবে এর গতি অনেকটাই ধীর বলে মনে করছেন সাধারণ মানুষ। অনলাইনে বিভিন্ন অপতৎপরতা বন্ধে বিটিআরসি নানা উদ্যোগ নিলেও খুব একটা কাজে আসছে না। বিভিন্ন পর্নসাইট বন্ধ করা হলেও তা এখনো নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেনি তারা। ভিপিএনসহ নানা উপায়ে অপরাধীরা চালিয়ে যাচ্ছে তাদের তৎপরতা। বিগো, টিকটক বন্ধ করে দেয়া হবে- এমন কথা শোনা গেলেও সেই সিদ্ধান্ত কার্যত ঝুলে আছে। 

এদিকে যারা অনলাইনের মাধ্যমে খদ্দের সংগ্রহ করে দেহব্যবসা করছে, তাদের অনেককেই গ্রেফতার করছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। কিন্তু এরা মাঠপর্যায়ের কর্মী। যারা এদের পরিচালনা করছেন সেই রাঘববোয়ালরা থেকে যাচ্ছেন ধরাছোঁয়ার বাইরে। এ বিষয়ে সরকারের দৃষ্টি দেয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।