ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

কার্ড দিয়ে চাঁদা তুলছে হিজড়ারা, অতিষ্ঠ জনজীবন

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১৪:২০, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৪:২১, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১

কার্ড দিয়ে চাঁদা তুলছে হিজড়ারা, অতিষ্ঠ জনজীবন

ছবি : সংগৃহীত

রাজধানীসহ সারাদেশে হিজড়াদের (তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ) চাঁদা-বাণিজ্যে অতিষ্ঠ সাধারণ মানুষ। চাঁদা না দিলেই নানা অপ্রীতিকর ঘটনার সম্মুখীন হতে হয়। চাঁদা আদায়ে হিজড়ারা গ্রহণ করছে নিত্যনতুন কৌশল। এসব কৌশলের মধ্যে নতুন সংযোজন ভিজিটিং কার্ড দিয়ে চাঁদা আদায়।  

রাজধানীর গুলশান এলাকা। দেখা গেছে, এ এলাকার বিভিন্ন অফিস, দোকানপাটসহ বাসাবাড়িতে হিজড়ারা বিভিন্ন দলে ভাগ হয়ে ভিজিটিং কার্ড দিয়ে বেড়াচ্ছে। কার্ডে লেখা রয়েছে, স্বপ্না হিজড়ার শিষ্য গুরুমা হাসি হিজড়া। তিনি শুটিং ক্লাব থেকে গুলশান ১ নম্বর হয়ে গুলশান ২ নম্বর গোলচত্বর পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণ করেন। এছাড়া কার্ডে আরো লেখা রয়েছে, বিয়ে-মুসলমানি, বাচ্চা হলে তারা দোয়া ও আশীর্বাদ দিয়ে নাচ-গান করে বখশিশ নেন এবং দোকান ও অফিসে ‘কালেকশন’ করেন।

কার্ডের ব্যাপারে স্বপ্না হিজড়ার শিষ্য গুরুমা হাসি হিজড়া স্টার সংবাদের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, ‘আসলে এই কার্ডটি দেয়া হয়েছে সবার নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে। অন্য কেউ বা অপরিচিত কেউ যেন আমার এলাকায় না ঢুকতে পারে। অপরিচিত কাউকে দেখলে যেন সহজেই আমাকে জানাতে পারে, সেজন্যই মূলত কার্ডটি দেয়া হয়েছে।’

আগে রাজধানীতে দোকান থেকে দুই টাকা, পাঁচ টাকা করে চাঁদা তুলতে দেখা যেত হিজড়াদের। বর্তমানে ১০ টাকার নিচে নেন না তারা। সেই সঙ্গে যুক্ত হয়েছে অফিস, বাসাবাড়ি, গণপরিবহন, রিকশা এবং পার্কেও ‘কালেকশন’ (এক অর্থে চাঁদাবাজি)। যেখানে-সেখানে টাকার জন্য মানুষকে নাজেহালও করছে তারা। 
 
এদিকে কারো ঘরে নতুন সন্তান জন্ম নিলে তাদের বাচ্চাদের কাপড় বারান্দায় বা ছাদে শুকাতে দিতে ভয় পায় মানুষ। কারণ, যদি হিজড়ারা দেখে ফেলে তাহলেই হানা দেবে। পাঁচ থেকে ১০ হাজার টাকার নিচে বিদায় করা যায় না তাদের। ফলে সন্তান জন্মের পর আতঙ্কিত থাকে পরিবার। এসব বিষয়ে প্রশাসনকে জানিয়েও কোনো প্রতিকার মেলে না বলে অভিযোগ নগরবাসীর।

রাজধানীর মিরপুরের বাসিন্দা শাহরিয়ার সুমন জানান, তার সন্তান জন্মের পর বারান্দায় বাচ্চার কাপড় শুকাতে দিতেন না। কিন্তু তারপরও বাড্ডা এলাকায় তার শ্বশুরবাড়িতে হিজড়ারা হানা দেয়। পরে পুলিশকে জানালে তারা কোনো প্রতিকার না করে বরং টাকা দিয়ে দিতে বলে। নিরুপায় হয়ে তাদের আড়াই হাজার টাকা দিতে হয়।

সুমন বলেন, ‘ওই ঘটনার দুই মাস পর মিরপুরে আমার বাসায়ও হিজড়ারা হানা দেয়। তখন তাদের ‘আগে টাকা দিয়েছি’ বললেও মানেনি। বাধ্য হয়ে এক হাজার টাকা দিয়ে তাদের বিদায় করতে হয়।’

রাজধানীর কচুক্ষেতের ব্যবসায়ী ওমর ফারুক জানান, হিজড়াদের প্রতিদিন চাঁদা দিতে হয়। আবার বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ও ঈদের সময় ১০০ থেকে ২০০ টাকার নিচে তাদের বিদায় করা যায় না। তাদের কিছু বলা যায় না। বাসে উঠলেও তাদের চাঁদা দিতে হয়। রিকশায় কোথাও গেলেও থামিয়ে হয়রানি করে তারা। 

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় চাঁদা আদায়রত বেশ কয়েকজন হিজড়া জানান, তাদের আয়-রোজগারের কোনো সুযোগ নেই। তাই বাধ্য হয়ে রাস্তায় নেমেছেন। প্রতিদিন যা চাঁদা তোলেন তা তাদের লিডারকে (দলনেতা) দিয়ে দেন। লিডার খুশি হয়ে যা দেন তারা সেটাই নেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জিন্নাত হুদা স্টার সংবাদকে বলেন, ‘আসলে তারা (হিজড়া) যা করছেন সেটা ঠিক নয়। তবে তাদেরও তো বাঁচতে হবে। তাদের মানুষ ভয় পায় - এমন কাজ না করলেই হয়। তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা উচিত। কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হলে এ ধরনের কর্মকাণ্ড কমে আসবে। কারণ তাদেরও তো বাঁচতে হবে।’

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, খুব সহজেই চাঁদা আদায় করা যায় বলে অনেকে ইচ্ছা করেই হিজড়া হয়ে, বা হিজড়া সেজে, চালাচ্ছে অবৈধ কার্যক্রম। এছাড়া সন্ধ্যার পর রাজধানীর বনানী, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার মোড় ও শ্যামলীসহ অনেক স্থানে ভাসমান যৌনকর্মী হিসেবে কাজ করেন বহু হিজড়া। সুযোগ বুঝে তাদের অনেকে ছিনতাইও করেন। এমনটি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডেও পিছিয়ে নেই হিজড়াদের গুরুরা। 

জানা যায়, ভয়ঙ্কর অপরাধ জগতের গডফাদার কচি, আলেয়া ও স্বপ্না হিজড়া। রাজধানীতে ছোট-বড় মিলিয়ে অন্তত ৪০ জন হিজড়া গুরুর মধ্যে তারা অন্যতম। তাদের মধ্যে স্বপ্না, কচি, পিংকি, সজীব ও নাজমা হিজড়া আন্ডারওয়ার্ল্ড নিয়ন্ত্রণ করেন। জন্মগতভাবে পুরুষ হলেও, অপারেশন করিয়ে হিজড়া হয়ে অপরাধ জগৎ নিয়ন্ত্রণ করছেন তারা।

তবে হিজড়াদের বিষয়ের পূর্ণ চিত্র এটি নয়। অনেকেই চান তাদের এই ‘কলুষিত’ জীবন ছেড়ে সুস্থ-সুন্দর জীবনে ফিরতে। সরকারও তৃতীয় লিঙ্গের এই মানুষদের পুনর্বাসনে নানা উদ্যোগ নিয়েছে। এখন অনেক হিজড়া পড়াশোনা করে যোগ দিচ্ছেন বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রে। 

এমনই একজন তাসনুভা। তিনি একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে সংবাদ পাঠিকা হিসেবে কাজ করছেন। এছাড়া সাভার উপজেলার আওয়াম লীগের সহ-দফতর সম্পাদকের দায়িত্বে আছেন মিষ্টি চৌধুরী। তবে পুনর্বাসনের অগ্রগতির গতি যে মন্থর তা রাজধানীসহ দেশের দিকে তাকালেই বোঝা যায়।

স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের ২০০৪ সালের জরিপে দেশে হিজড়ার সংখ্যা ১৫ হাজার। তবে হিজড়াদের দাবি, শুধু ঢাকা শহরেই কমপক্ষে ৩০ হাজার হিজড়া আছেন। এদিকে সমাজসেবা অধিদফতরের ২০২১ সালের আগস্ট মাসের জরিপে বাংলাদেশে বর্তমানে হিজড়ার সংখ্যা প্রায় ১১ হাজার। প্রতি বছর তাদের জন্য রাখা হয় বরাদ্দ। ২০২০-২১ অর্থবছরে হিজড়াদের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছিল পাঁচ কোটি ছাপ্পান্ন লাখ টাকা। কিন্তু এর ব্যবহার সঠিকভাবে হচ্ছে কি না তা নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন। কারণ, রাজধানীতে দিনের পর দিন বেড়ে চলেছে হিজড়াদের অপতৎপরতা। 

এ বিষয়ে হিজড়াদের নিয়ে কাজ করা এনজিও বন্ধু ফাউন্ডেশন স্টার সংবাদকে জানান, তারা ট্রান্সজেন্ডার ও হিজড়া জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন, স্বাস্থ্যসেবা ও অধিকার রক্ষায় কাজ করছেন। এ পর্যন্ত প্রায় দুই হাজার হিজড়ার স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে তারা কাজ করেছেন। এর পাশাপাশি হিজড়াদের মানসিকতায় পরিবর্তন আনতে এই সংস্থাটি হিজড়াদের সাইকোলোজিক্যাল কাউন্সেলিংয়ের কাজ করে যাচ্ছে। এ জন্য এখন পর্যন্ত তিন হাজার ৪৯১ মানসিক স্বাস্থ্যের সেশন করেছে। ফলে হিজড়ারা হতাশা ও আত্মহত্যার মতো ঘটনা থেকে ফিরে আসছে। দেশের ২২টি জেলায় কাজ করছে সংস্থাটি। করোনার সময়ে ১০ হাজার ২৭৫ জন হিজড়াদের মাঝে ত্রাণ ও আর্থিক সহযোগিতা করেছেন তারা। সবার দিক থেকে সহযোগিতা পেলে হিজড়াদের উন্নয়নে তারা আরো এগিয়ে যাবে বলে মনে করছে সংস্থাটি।