ঢাকা Wednesday, 24 July 2024

ইউটিউব দেখে খেজুর চাষ, প্রবাস জীবন ছেড়ে দেশে সফল ফুলবাড়ীর জাকির

দিনাজপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: 14:25, 23 July 2023

ইউটিউব দেখে খেজুর চাষ, প্রবাস জীবন ছেড়ে দেশে সফল ফুলবাড়ীর জাকির

ছবি: স্টার সংবাদ

ধান ও লিচুর জেলা হিসেবে খ্যাত দিনাজপুর। সারা দেশে ধান-চালের সিংহভাগ চাহিদা মেটায় এই এলাকায় উৎপাদিত ধান। আর এবার সৌদি আরবের বিভিন্ন জাতের খেজুর চাষ হচ্ছে জেলার ফুলবাড়ী উপজেলায়।

মরুর এই ফলের চাষ অনেকটা কঠিন হলেও সেটাকেই বাস্তবে রূপ দিয়েছেন দিনাজপুর জেলার ফুলবাড়ী উপজেলার পৌর এলাকার স্বজন পুকুর গ্রামের দীর্ঘদিন প্রবাসে থাকা জাকির হোসেন। নিজের ২০ শতাংশ জমিতে খেজুর চাষ শুরু করেছেন তিনি।

জানা যায়, জাকির হোসেন দীর্ঘ ২০ বছর কুয়েতে ছিলেন। সেখানে থাকা আবস্থায় তার মাথায় একটি চিন্তা আসে দেশের মাটিতে কিভাবে খেজুর চাষ করা যায়। এক পর্যায়ে প্রবাস থেকে দেশে আসার সময় ১২ কেজি খেজর কিনে এনে চারা করার চেষ্টা করেন। তাতে তিনি সফলও হন। এরপর তিনি তার ২০ শতাংশ জমিতে ১৯টি খেজুর গাছের চারা রোপন করেন। পরবর্তী সময়ে তিনি ২০২০ সালে প্রবাস জীবন বাদ দিয়ে দেশে চলে আসেন এবং নিজের খেজুর বাগানে সময় দিতে শুরু করেন। ২০২২ সালে তার বাগানের ৩টি গাছে প্রথম খেজুর আসে। এবছর তার বাগানের সব গাছে ফল এসেছে। আর ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যেই ফল পাকবে। তার রোপনকৃত খেজর বাগানে রয়েছে মরিয়ম, আজওয়া, খলিজি, মেডজল ও আম্বার জাতের খেজুর গাছ। তার খেজুর বাগানের প্রতিটি গাছের বয়স ৪ থেকে ৬ বছর।

জাকরি হোসেনের বাগান ঘুরে দেখা যায়, ২০ শতাংশ জমিতে সারি সারি খেজুর গাছ। এর মধ্যে বেশ কিছু গাছে কাদি কাদি ফল ধরে আছে। খেজুরগুলো গোলাকার, লম্বা। এক একটি গোছায় (কাদি) তে ৪০০ থেকে ৫০০টি খেজুর ধরেছে। তবে খেজুরগুলো এখনও অপরিপক্ব।

এই প্রতিবেদককে তিনি বলেন, বিদেশে থাকা অবস্থায় আমার মাথায় আসে দেশের মাটিতে যদি এসব খেজুর চাষ করা যেতো। এইধরনের চিন্তা থেকেই দেশে আসার এক পর্যায়ে খেজুর এনে চারা তৈরী করি। এবং ইউটিউব দেখে সেই চারা লাগাই এবং পরিচর্যা করতে থাকি। ২০ শতাংশ জমিতে ১৯টি খেজুর গাছ আছে। খেজুর সাধারণত একটু উচুঁ জমি হলে ভাল হয়। এবং গাছের গোড়া সব সময় জৈব সার ব্যবহার করতে হয়। গত বছর তার বাগানে ৩টি বাগানে ফল এসেছিল। ওই ফল দিয়ে পুনরায় চারা করেছেন। বর্তমানে এক হাজার খেজুর চারা তৈরি হয়েছে। এবছর তার বাগানের ৯টি গাছে ফল এসেছে। আগামীতে আশা করছি সব গাছেই ফল আসবে।

এবছর ৯টি গাছ থেকে প্রায় ২৮০ কেজি ফল পাওয়া যাবে। ইতোমধ্যে অনেকেই ফল কেনার জন্য যোগাযোগ করছে। প্রতি কেজি খেজুরের দাম ৪০০ টাকা করে বলছে। একই সাথে অনেকেই চারার জন্য যোগাযোগ করছেন। আশা করছি আগামী বছর প্রতিটি গাছে খেজুর আসবে। এতে করে ভালো লাভবান হব।

তিনি আরো বলেন, এবছর আমি ২ একর জমি প্রস্তুত করেছি সেই জমিতে আরো ৩০০ খেজুর চারা রোপন করে বাগান পরিধি বৃদ্ধি করব।

ফুলবাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রুম্মান আক্তার বলেন, উপজেলায় এই প্রথম একজন কৃষক সৌদির খেজুর চাষ করছেন বলে শুনেছি। উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তার মাধ্যমে বাগানের খোঁজ রাখা হচ্ছে। কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে তাকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।