ঢাকা শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

বাজার থেকে হঠাৎ চিনি উধাও

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৭:৫০, ২১ অক্টোবর ২০২২

বাজার থেকে হঠাৎ চিনি উধাও

বাজার থেকে হঠাৎ করেই উধাও হয়ে গেছে চিনি। নিত্যপ্রয়োজনীয় এই পণ্যের এমন উধাও হওয়াতে বিপাকে পড়েছেন ক্রেতাসাধারণ। তারা খুচরা, এমনকি পাইকারি দোকানে ঘুরেও পাচ্ছেন না চিনি। 

রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে জানা যায়, গত দুদিন ধরেই এমন সংকট চলছে। কিন্তু কেন এ অবস্থা - জানতে চাওয়া হলে কয়েকজন খুচরা দোকানদার জানান, পাইকারি দোকানে নেই, তাই আমাদের কাছেও নেই। 

এ বিষয়ে পাইকারি দোকানদারদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন, মিল থেকে পর্যাপ্ত সরবরাহ নেই। অর্থাৎ একে অন্যের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন চিনি ‘হঠাৎ উধাও’ হয়ে যাওয়ার কারণ।

তবে অনেক ঘোরাঘুরির পর জানা গেল, সরকার চিনির দাম বেঁধে দিয়েছে। এক্ষেত্রে খোলা চিনি প্রতি কেজি সর্বোচ্চ ৯০ টাকা এবং প্যাকেটজাত চিনি ৯৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এতেই ঘটেছে বিপত্তি। 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে চিনি ব্যবসায়ীরা জানান, তাদের কেনা দাম ১০০ টাকারও বেশি। অন্যদিকে বেশি দামে বিক্রি করতে গেলে জরিমানা করছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। সে কারণেই চিনি বিক্রি আপাতত বন্ধ রেখেছেন তারা। 

পাইকারি বিক্রেতারা আরো অভিযোগ করেন, চিনির মিল থেকে তারা চিনি পর্যাপ্ত পাচ্ছেন না। ফলে সংকট তৈরি হচ্ছে। মিল মালিকরা বলছেন, বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংকটের কারণে উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। এতে সরবরাহ কমেছে। আগে বড় পাইকাররা যেখানে ১ হাজার বস্তা পেতেন এখন পাচ্ছেন ১০০ বস্তা চিনি। এছাড়া মিল থেকেও চিনির দাম বেশি রাখা হচ্ছে বলে জানান পাইকারি ব্যবসায়ীরা। তাদের মতে, ভোক্তা অধিকার জরিমানা বন্ধ করলে হয়তো চিনি পাওয়া যেতে পারে। 

এদিকে জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদফতরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. মাগফুর রহমান জানান, কী কারণে চিনির সরবরাহ কম তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে এবং বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানানো হবে।

পাইকাররা বলছেন, মিলে দাম বেশি রাখা হচ্ছে। এ বিষয়ে ভোক্তা অধিকারের এই কর্মকর্তার মতামত জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, বিভিন্ন চিনিকলেও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে। দ্রুত চিনির সরবরাহ স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। 

সার্বিক পরিস্থিতি সম্পর্কে চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের চেয়ারম্যান মো. আরিফুর রহমান অপু গণমাধ্যমকে বলেন, দেশে চিনির মোট চাহিদা স্থানীয় উৎপাদনের মাধ্যমে মেটানো অসম্ভব। এজন্য আমদানি করতে হয়। বর্তমানে ডলার সংকটের কারণে এলসি খুলতে সমস্যা হচ্ছে। এতে চিনি আমদানি কমেছে। এছাড়া এখন চিনি আমদানির বিষয়টি বেসরকারি খাতে চলে গেছে, তাই এখানে সরকারের কোনো হাত নেই। 

তিনি আরো জানান, চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের কাছেও চিনির মজুদ বর্তমানে কম।

রাজধানীর মিরপুরের বাসিন্দা হাসান আবদুল্লাহ জানান, শুক্রবার (২১ অক্টোবর) সকালে বাজারে গিয়েছিলেন চিনির খোঁজে। পাড়ার দোকান থেকে বলছে, চিনি নেই। তাই বাজারে যাওয়া। সেখানেও চিনি পাননি প্রথমে। পরে অনেক ঘুরে এক দোকানে চিনি পেয়েছেন, দাম নিয়েছে ১০৫ টাকা কেজি। 

তার মতে, সরকার দাম বেঁধে দিলেও বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। জনবান্ধব যে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হলেও বেঁকে বসছেন একশ্রেণির ব্যবসায়ী। তারা নিজেদের অতি লোভের জন্য জিম্মি করছেন জনগণকে।