ঢাকা শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

স্বাস্থ্যবিধি মানতে অনীহা, আবারো বাড়ছে সংক্রমণ

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ১৭:৫৫, ১৫ জুন ২০২২

স্বাস্থ্যবিধি মানতে অনীহা, আবারো বাড়ছে সংক্রমণ

বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারির দাপট এখনও অব্যাহত আছে। বাংলাদেশে এই ভাইরাসের সংক্রমণ বর্তমানে কিছুটা সহনীয় থাকায় প্রায় ৯০ শতাংশ মানুষই মাস্ক পরতে ও স্বাস্থ্যবিধি মানতে অনিচ্ছুক। এদিকে দেশে আবারো দ্রুত বাড়ছে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা। 

সরেজমিনে দেখা যায়, চায়ের দোকান থেকে অফিস-আদালত, বাজার-ঘাট ও গণপরিবহনসহ সর্বত্র কেউই আর আগের মতো স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। যারা এখনো স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছেন, মাস্ক পরছেন, তাদের সংখ্যা নিতান্তই অপ্রতুল। এমনকি বিদেশিরাও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছেন না। 

মাস্ক কেন পরছেন না জানতে চাইলে রিকশাচালক ওমর ফারুক বলেন, ‘কাউরে অহন মাস্ক পরতে দেহি না, তাই পরি না। দেশে অহন করোনা আছে বলে মনেই হয় না। করোনায় কেউ মারা যায় বলেও শুনতেছি না।’

একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে উচ্চপদে কাজ করেন সেলিনা আক্তার। তিনি বলেন, ‘মাস্ক পরলে শ্বাস বন্ধ হয়ে আসে। দেশে করোনা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। করোনার সময় মাস্ক পরতে পরতে এখন আমার মাথাব্যথার সমস্যা দেখা দিয়েছে।’

এদিকে চলতি বছরের এ পর্যন্ত বেশিরভাগ সময়ই দেশে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা শূন্য ছিল এবং সংক্রমণ ছিল গড়ে ৫০-এর মধ্যে। টানা এক মাসে করোনায় দেখা যায়নি কোনো মৃত্যু। 

এদিকে চলতি জুন থেকে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ দ্রুত বাড়ছে। গড়ে দৈনিক সংক্রমিত হচ্ছে ১০০ জনের বেশি। স্বাস্থ্য অধিদফতর আজ বুধবার (১৫ জুন) জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ২৩২ জন। এর মধ্যে  ৯০ শতাংশের বেশি ঢাকার বাসিন্দা।  
 
সম্প্রতি এ নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি গণমাধ্যমকে জানান, সংক্রমণ কম হওয়ায় খুশির কিছু নেই। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে এবং আমাদের অসতর্কতায় এটা যেকোনো সময় বেড়ে যেতে পারে। তাই নিয়মিত মাস্ক পরিধান ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে।   

করোনা ভাইরাসের ধরন ও গতিবিধি নিয়ে বারবার আশঙ্কা প্রকাশ করে আসছেন বিশেষজ্ঞরাও। তারা বলছেন, গরমের সময় এই ভাইরাসের সংক্রমণ কম থাকে এবং শীতকালে বেশি। কিন্তু বাংলাদেশে এর চিত্র উল্টো। গরমের প্রাক্কালে ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়। ওই বছরের ১৮ মার্চ করোনায় প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এর পরপরই দেশে বাড়তে থাকে করোনা সংক্রমণ। একসময় করোনার তাণ্ডবে বন্ধ করে দেয়া হয়ে অফিস-আদালত, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান; বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয় যোগাযোগ ব্যবস্থা। 

ওই বছর শীতের দিকে করোনা সংক্রমণ কমে এলে সবার মাঝে দেখা দেয় একধরনের স্বস্তি। কিন্তু বিপত্তি ঘটে ২০২১ সালের মার্চ-এপ্রিলের দিকে। সে সময়ে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ায় প্রায় ৩০০ এবং সংক্রমণ প্রায় ১৭ হাজার। ফলে আতঙ্ক ও ভীতিগ্রস্ত হয়ে পড়ে সাধারণ মানুষ। কঠোর অবস্থান নেয় সরকার। নেয়া হয় লকডাউনের মতো কঠোর সিদ্ধান্ত। ২০২১ সালের শেষের দিকে ধীরে ধীরে কমতে থাকে করোনার দাপট। 

এদিকে দীর্ঘদিন লকডাউন থাকায় মন্থর হয়ে পড়ে দেশের অর্থনীতির চাকা। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসতে থাকলে ধীরে ধীরে খুলে দেয়া হয় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, অফিস-আদালত, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। পথেঘাটে বাড়তে থাকে জনসমাগম। আতঙ্কের বিষয় হলো, সংক্রমণ কমায় স্বাস্থ্যবিধি মানতে অনীহা দেখাচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

দেশে করোনার সংক্রমণ বাড়ার শঙ্কা বিষয়ে জনস্বাস্থ্য ও মেডিক্যাল অ্যানথ্রোপলোজিস্ট ডা. চিন্ময় দাস স্টার সংবাদকে বলেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশেও এখন করোনা সংক্রমণ আগের মতো নেই। তবে আমাদের দেশে এটা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছি। এটা যেকোনো সময় আবার বেড়ে যেতে পারে, যা অতীতে আমরা দেখেছি। যদি আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি তাহলে এই ভাইরাস থেকে নিজেকে এবং পরিবারকে রক্ষা করতে পারব বলে আশা করছি। 

দেশে এখন পর্যন্ত করোনায় মৃত্যু হয়েছে ২৯ হাজার ১৩১ জনের। সেই সঙ্গে মহামারি করোনায় রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৯ লাখ ৫৪ হাজার ৬৩৭ জনে এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৯ লাখ ৫ হাজার ৫০৪ জন।