ঢাকা শনিবার, ২৮ মে ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

খরচ নাগালের বাইরে, দিশেহারা সাধারণ মানুষ

মেহেদী হাসান

প্রকাশিত: ২০:০৯, ১০ মে ২০২২

আপডেট: ১৮:১০, ১৫ মে ২০২২

খরচ নাগালের বাইরে, দিশেহারা সাধারণ মানুষ

দেশে প্রতিনিয়ত বাড়ছে নিত্যপণ্যের দাম। খরচ নাগালের বাইরে যাওয়ায় সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছে সাধারণ মানুষ। সীমিত আয়ে বাড়তি খরচের যোগান দিতে দিশেহারা হয়ে পড়েছে স্বল্প আয়ের মানুষ। করোনা মহামারির ধাক্কা সামাল দিয়ে ওঠার আগেই রেকর্ড পরিমাণে বাড়ছে নিত্য প্রয়োজনীয় সবকিছুর দাম। অপরদিকে পণ্যদ্রব্যের অসহনীয় মূল্য বৃদ্ধির পাশাপাশি প্রতিনিয়ত পাল্লা দিয়ে বাড়ছে গ্যাস, বিদুৎ ও পানির দাম। 

বেসরকারি চাকরিজীবী জাফর ইকবাল। রাজধানীর যাত্রাবাড়ির ধোলাইপাড়ে থাকেন তিনি। স্টার সংবাদকে তিনি বলেন, সামান্য আয়ে কোনোভাবে টানাটানি করে মাস পার করি। ঈদের পর বাজারে গেছি সবজি কিনতে। ভেবেছিলাম দাম কম হবে, কিন্তু যেটাতেই হাত দেই সেটাতেই আগুন ছোয়া দাম। বেগুন বিক্রি করছে ১০০ টাকা কেজি, লাউ শাক ৪০ টাকা, মিষ্টি কুমড়ার কেজি ৫০ টাকা এবং অন্যান্য সবজির দামও বেড়েছে কয়েকগুনে। 

রাজধানীর মিরপুর ১০ নম্বরে থাকেন সালেহা বেগম। তিনি বলেন, পরিবারে একজন উপার্জনক্ষম। দুই বাচ্চা স্কুলে পড়ে। স্বামী যে বেতন পান তাতে সংসার চলেনা, তারপরও কষ্ট করে চেষ্টা করে যাচ্ছি। কিন্তু যেভাবে সব কিছুর দাম বাড়ছে এভাবে চললে এই শহরই ছাড়তে হবে। 

শফিকুর রহমান নামের এক বেসরকারি চাকরিজীবী জানান তার কষ্টের কথা। তিনি জানান, ২০০২ সালে  পাঁচ লিটার তেল কিনতাম ১৩০ টাকায়। আর এখন কিনতে হচ্ছে হাজার টাকায়। আমাদের সাধারণ চাকরিজীবীদের ওই সময়ে যে বেতন ছিল এখনও সেই বেতনই। সবই বাড়ছে কিন্তু বেতন বাড়ে না। জিনিসপত্রের দাম বেড়েই চলছে, কষ্টের কথা কাউকে বলতে পারি না। 

বিশ্লেষকরা মনে করছেন, অতিরিক্ত লাভের আশায় কৃত্রিম সংকট তৈরি করে মূল্য বৃদ্ধি করছে ব্যবসায়ীরা। অধিক মুনাফা লোভীদের কারণে আয়-ব্যয়ের ফারাকে পড়েছে সাধারণ মানুষ। এই অবস্থা চলতে থাকলে দেশে অরাজকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। 

এদিকে নানা সময়ে দেশে বিভিন্ন পণ্যে দাম বাড়ানোর জন্য কারসাজি করছে অসাধু ব্যবসায়ীরা। তাদের বেপোরোয়ার কারণে কেজিতে ৩০০টাকায় গিয়ে ঠেকেছিল লবণ ও পেঁয়াজের দাম। এছাড়া ভোজ্যতেল সয়াবিনের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ায় স্বপ্ল আয়ের মানুষের সঙ্গে বিপাকে পড়েছে রেস্টুরেন্টের ব্যবসায়ীরাও। তারা জানান, তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় বাধ্য হয়ে খাবারের মূল্যও বাড়িয়ে দিতে হয়েছে। ফলে বেঁচাকেনা আগের থেকে অনেক কমে গেছে। কাস্টোমারও কমে গেছে।

দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি নিয়ে অর্থনীতিবিদ ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান স্টার সংবাদকে বলেন, বর্তমানে ব্যবসা চলে গেছে সিন্ডিকেটধারীদের হাতে। তারা শুধু সুযোগের অপেক্ষায় থাকে কখন দাম বাড়ানো যায়। সরকারের হাতেও এর নিয়ন্ত্রণ তেমন একটা নাই, যেটা ঈদের পর তেলের দাম বৃদ্ধির ক্ষেত্রে লক্ষ করা গেছে। বিশ্ববাজারে দাম বাড়ছে ঠিক আছে, কিন্তু কতটা বাড়ছে? আমাদের এখানে তারচেয়ে কয়েকগুনে বাড়ছে। দেশে কোনো পণ্যে দাম বাড়াতে এখন আর উপলক্ষের প্রয়োজন হয় না। সাধারণ মানুষের কষ্টের কথা বিবেচনা করে এটি নিয়ন্ত্রণ করে আয়-ব্যয় সামঞ্জস্য করা দরকার।