ঢাকা রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

মানহীন পণ্যে সয়লাব বাণিজ্যমেলা

সালমা

প্রকাশিত: ১৬:০৭, ৯ জানুয়ারি ২০২২

আপডেট: ১২:০৫, ১৪ মে ২০২২

মানহীন পণ্যে সয়লাব বাণিজ্যমেলা

পোশাকি নাম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা, কিন্তু ভেতরে ঢুকে যে কারো কাছে প্রথম দর্শনে এটিকে আর দশটি হকার মার্কেট বলে মনে হলে তাকে দোষ দেয়া যাবে না। এখানেই শেষ নয়, যেসব পণ্য মেলার স্টলে উঠেছে তার অনেকই মানহীন এবং হাঁকা হচ্ছে গলাকাটা দাম। এমন অভিযোগ ক্রেতা ও মেলায় ঘুরতে আসা দর্শনার্থীদের।

প্রতিবছর বাণিজ্যমেলা নিয়ে সবার ভেতরেই কমবেশি আগ্রহ থাকে। তবে এই বছর বাণিজ্যমেলা ঢাকা থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে রাজধানীর পূর্বাচলে স্থাপিত বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে (বিবিসিএফইসি) হওয়ায় সবার কৌতূহলটা ছিল বরাবরের থেকে বেশি।

দেশ-বিদেশের বিভিন্ন পণ্য ওঠে এই মেলায়। তাই মেয়েদের উপস্থিতিও বেশি লক্ষ্য করা যায়। এবারো মেলায় মেয়েদের দ্রব্যসামগ্রী, যেমন - প্রসাধন, পোশাক ও গৃহস্থালি পণ্যের স্টল তুলনামূলক বেশি। মেলা ঘুরে দেখা যায়, সেসব স্টলে, বিশেষ করে প্রসাধন ও পোশাকের স্টলে, নারীরা ভিড় করছেন। কিন্তু অনেকেই জানান, স্টলগুলোর বেশিরভাগ পণ্য মানহীন। রাজধানীর বিভিন্ন ফুটপাতে এসব পণ্য পাওয়া যায়। আবার মেলায় তোলার কারণে বিক্রেতারা দাম চাইছেন কয়েকগুণ বেশি।  

উত্তরা থেকে আসা এক দর্শনার্থী বলেন, মেলায় সব নিম্নমানের পণ্য এবং দাম ১০ গুণ বেশি। তার ওপর বেশিরভাগ স্টল এখনো প্রস্তুত নয়। এভাবে চলতে থাকলে মেলায় আর কেউ আসবেন না ।

মারিয়া নামে এক দর্শনার্থী  বলেন, ভেবেছিলাম মেলায় কিছু ইউনিক পণ্য পাবো, যা সচরাচর মার্কেটে পাওয়া যায় না। কিন্তু এখানে দেখি সব গাউছিয়া মার্কেটের মানহীন পণ্য।

মেলায় আসা জীবন খালেদ বলেন, এবার মেলা দূরে হওয়ায় অনেকেই আসবেন না। বিক্রেতারাও বিষয়টি আঁচ করতে পেরেছেন হয়তো, তাই যা পণ্য এনেছেন তার অধিকাংশই মানহীন।

এবার মেলায় ব্যবসা কেমন হচ্ছে জানতে চাইলে এক বিক্রেতা বলেন, অন্য বছরের মতো এ বছর তেমন বিক্রি হচ্ছে না। তবে তিনি আশাবাদী, কিছুদিন গেলে বিক্রি বাড়বে।

এক্সিলেন্ট ওয়ার্ল্ড এগ্রো ফুড অ্যান্ড কসমেটিক্স লিমিটেডের বিক্রয়কর্মী বলেন, মূল শহর থেকে দূরে হওয়ায় আগের মতো মেলা জমে উঠছে না। করোনা ভাইরাসের প্রকোপ তো আছেই। সবমিলিয়ে আশানুরূপ ফল পাচ্ছি না।

ক্রেতারা বলছেন, মেলা মানহীন পণ্যে সয়লাব - এ সম্পর্কে বিক্রেতাদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন, কোনো মানহীন পণ্য মেলায় তোলা হয়নি।

তবে সরেজমিন মেলা ঘুরে দেখা যায় ভেজাল পণ্য ও বিক্রেতাদের প্রতারণার নানা নমুনা। এমনকি বিদেশি স্টলগুলোর চিত্রও ছিল একই রকম।

মেইড ইন করাচি নামে পাকিস্তানের একটি প্রতিষ্ঠানের স্টলে দেখা যায় সব বাংলাদেশি জুতা। কিন্তু তারা দাবি করেন, এগুলো পাকিস্তানে তৈরি। শুধু তাই নয়, যেসব জুতা এখানে বিক্রি হচ্ছে সেগুলোর দাম বাংলাদেশের মার্কেটে পাঁচ থেকে ১০ গুণ কম।

এছাড়া বুটিকস স্টলগুলোও বাংলাদেশে তৈরি ৬০০ টাকার পোশাকে দাম হাঁকছে ১ হাজার ৬০০ থেকে ১ হাজার ৭০০ টাকা। কাশ্মিরি ওয়ান পিস নামে ৩ হাজার থেকে সাড়ে ৩ হাজারের যে পণ্য বিক্রি হচ্ছে তাও এদেশেই তৈরি বলে জানান অনেক দর্শনার্থী।

নতুন বছরে নতুন ঠিকানায় বাণিজ্যমেলা শুরু হলেও ক্রেতারা যে আশা নিয়ে মেলায় আসছেন তা ভঙ্গ হতে সময় লাগছে না। সবার প্রত্যাশা, মেলা কর্তৃপক্ষ এসব বিষয়ে সুদৃষ্টি দিলে এত কষ্ট করে অতদূর পর্যন্ত যাওয়াটা সার্থক হবে। অন্যথায় বাণিজ্যমেলায় যাওয়ার আগ্রহ ধীরে ধীরে করে কমে আসবে।