ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

সাজেদা চৌধুরী ছিলেন আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের কাণ্ডারি : আমু

স্টার সংবাদ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৯:৫৫, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২

আপডেট: ২১:৪২, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২

সাজেদা চৌধুরী ছিলেন আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের কাণ্ডারি : আমু

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য আমির হোসেন আমু বলেছেন, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ছিলেন আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের কাণ্ডারি। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচার, তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন ও দলকে টিকিয়ে রাখাই ছিল সাজেদা চৌধুরীর চেষ্টা আমরা একই মতের একই পথের পথিক ছিলাম তিনি সবসময় আমাদের সঠিক পথ দেখাতেন

বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর স্মরণে আয়োজিত ‘স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিল’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি

তিনি আরো বলেন, সাজেদা আপা যখন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তখন জিয়াউর রহমান আওয়ামী লীগকে ধংস করতে চেষ্টা করলেও সাজেদা আপার নেতৃত্বে তা প্রতিহত করা হয়

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম বলেন, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ছিলেন আদর্শবান, সংগ্রামী ও সৎ নেত্রী তার মতো নেতা হওয়া ভাগ্যের ব্যাপার আপনারা অত্যন্ত ভাগ্যবান যে, আপনারা সাজেদা আপার  সান্নিধ্য পেয়েছেন তার সাথে কাজ করেছেন, রাজপথে মিছিল করেছেন

মায়া চৌধুরী বলেন, সাজেদা চৌধুরী ছিলেন আওয়ামী লীগের একজন কাণ্ডারি তার সবচেয়ে বড় গুণ ছিল তিনি সবসময় হাসতেন তিনি গানপ্রিয় ছিলেন রবীন্দ্র সংগীত তিনি খুব পছন্দ করতেন তার পরিবারটাই রবীন্দ্র সংগীতের সঙ্গে জড়িত তিনি গুন গুন করে গান গাইতেন, হাসতেন আর কথা বলতেন সেই থেকে তার সঙ্গে আমাদের পরিচয়, আমরা তাকে বড় বোন হিসেবে জানতাম তাকে আমরা সাজেদা আপা বলে ডাকতাম

তিনি বলেন, ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু সপরিবারে শহিদ হলেন তার সাত দিন পর ২৩ আগস্ট রাতে আমি গ্রেফতার হই একটানা ৩ বছর জেলে ছিলাম মাথানত করি নাই হাইকোর্টে রিট করে বেরিয়ে এসেছি তার পর থেকে সাজেদা আপার সাথে আমাদের সারাদিন কথা হতো কীভাবে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা ও তার হত্যার বিচার করা যায়

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, নেত্রী আসলেন ৮১ সালে এরপর সাজেদা চৌধুরী ছিলেন শেখ হাসিনার ছায়া তিনি সবসময় তাকে সাহস দিয়ে রাখতেন, সৎ উপদেশ দিতেন যে পথে গেলে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা ও তার হত্যার বিচার করা যায়, তিনি সেই উপদেশ দিতেন নেত্রীও তাকে অনেক শ্রদ্ধা করতেন বড় বোন হিসেবে 

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা যেখানে সভাপতি সাজেদা আপা সেখানে সাধারণ সম্পাদক দুজন ছিলেন একই সুতায় গাঁথা একজন ছিলেন গান আরেকজন ছিলেন তবলা গান যেমন তবলা ছাড়া জমে ওঠে না তেমনি তবলাও গান ছাড়া জমতে পারে না

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, সাজেদা আপা আমাদের দুঃসময়ে যেভাবে দলকে আগলিয়ে রেখেছেন তা অস্বীকার করার সুযোগ নেই তিনি অনেক কিছুই ত্যাগ করেছেন দলের জন্য সাজেদা চৌধুরী ছিলেন দলের একজন প্রাণ, একজন কাণ্ডারি

বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী এমপি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি এমপি

বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ সাফিয়া খাতুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনায় ছিলেন সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম কৃক

এ সময় দলের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন