ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

হার না মানা জাতির বিজয়ের ৫০ বছর

প্রকাশিত: ১৩:৩৮, ১৬ ডিসেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৪:০৭, ৩ এপ্রিল ২০২২

হার না মানা জাতির বিজয়ের ৫০ বছর

আমরা আজ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করছি। দেখতে দেখতে ৫০টি বছর পার হয়ে গেল। বলা হয়, ওই তো সেই দিন। হানাদার বাহিনী থেকে মা-মাতৃকা তথা এ মাটিকে মুক্তি করবো - এই আশা নিয়ে আমরা মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলাম। 

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ডাকে এ দেশকে মুক্ত করবো, হয় শহীদ না হয় গাজী - এই উদ্দেশ্য নিয়েই অস্ত্র হাতে নিয়ে যুদ্ধ করি। দীর্ঘ নয় মাস সম্মুখযুদ্ধে লড়াই করে ঢাকাকে মুক্ত করি। 
ক্র্যাক প্লাটুনের বন্ধু ও সঙ্গীদের নিয়ে অনেক দুর্ধর্ষ অপারেশনে অংশগ্রহণ করেছি। সম্মুখযুদ্ধ করতে গিয়ে ক্র্যাক প্লাটুনের যারা শহীদ হয়েছেন তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। তারা জাতীয় বীর। হাসতে হাসতে মৃত্যুবরণ করেছেন; কিন্তু মাথা নত করেননি। 
এ জাতি মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে জানে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকল ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে দেশকে এগিয়ে নিতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ আজ আমরা।

আজকে এই দেশকে যেভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন, উন্নয়নের শিখরে নিয়ে যাচ্ছেন, এই স্বপ্ন আমরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে সামনে রেখে দেখেছিলাম। কিন্তু ঘাতকেরা, পাকিস্তানি প্রেতাত্মা, আলবদর-আলশামস, যারা স্বাধীনতা যুদ্ধকে বিশ্বাস করেনি, মুক্তিযুদ্ধকে বিশ্বাস করেনি, বাংলাদেশকে যারা স্বীকার করেনি এবং এখনো করে  না, তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। বঙ্গবন্ধুকে যদি সেদিন হত্যা করা না হতো তাহলে আজ ৫০টি বছর আমাদের অপেক্ষা করতে হতো না। ১৯৭৫ থেকে ১৯৮৫ সাল এই ১০ বছরেই আজকের যেই জায়গায় আমরা দাঁড়িয়ে রয়েছি, সেটা করা সম্ভব ছিল। 

দেশকে পিছিয়ে নেয়ার জন্য, এ দেশকে পাকিস্তানের ছায়া বানানোর জন্য বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছে। যারা তার সহযোদ্ধা, বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করেছেন, সেই জাতীয় বীরদের জেলখানায় আমার চোখের সামনে হত্যা করা হয়। তারা ভেবেছিল, বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছি, যদি এই চার নেতা বেঁচে থাকে তাহলে তাদের নীলনকশা পূরণ হবে না।
 
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তথা স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে মেধাশূন্য করার জন্য, নেতৃত্বশূন্য করার জন্য জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয়। আমাদের বেশিরভাগ নেতা তখন কারাগারে বন্দি ছিলেন। যারা হাল ধরবেন, তারা বিভিন্ন স্থানে ঐক্যবদ্ধ হয়ে মোকাবিলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন; কিন্তু বঙ্গবন্ধু ও চার নেতাকে হত্যা করার পর অনেক ষড়যন্ত্র ও রহস্য এখনো উন্মোচন হয়নি।

নভেম্বরের ৩ থেকে ৭ তারিখ কী ষড়যন্ত্র হয়েছিল তা আমরা এখনো জানতে পারিনি। বাংলাদেশকে পিছিয়ে নেয়ার জন্য বঙ্গবন্ধুকে হত্যাকারী খুনি জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে পাকিস্তান বানানোর জন্য ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। তার নেতৃত্বে ১৯টি ক্যু করে ক্ষমতায় এসেছিলেন। ১৯টি ক্যু করে শত শত সম্মুখ মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যা করেছেন। বেছে বেছে মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক, জওয়ান ও অফিসারদের হত্যা করা হয়েছে। 

এরপর একই কায়দায় এরশাদও দেশ পরিচালনা করেন। একটা স্বাধীন দেশে রাতে কারফিউ দিয়ে তিনি দেশ চালিয়েছেন।
 
আজ ৫০ বছরের যে সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করছি এর মধ্যে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল অল্প সময়। বাকি সময় যারা বঙ্গবন্ধুর হত্যার সঙ্গে সরাসরি জড়িত ছিল, তারা চালিয়েছে। ক্ষমতায় থেকে তারা এ দেশকে পাকিস্তান বানানো এবং ইতিহাস বিকৃত করার ষড়যন্ত্র করেছে। আজকে যদি একটানা স্বাধীনতা যুদ্ধের পক্ষশক্তি ক্ষমতায় থাকতো, তাহলে বাংলাদেশ পৃথিবীর বুকে অন্যতম উন্নয়নশীল দেশ হতে পারত। কিন্তু এ পদযাত্রাকে পিছিয়ে দিয়েছেন জিয়াউর রহমান ও খালেদা জিয়া। 
স্বাধীনতা যুদ্ধের যারা বিরোধিতা করেছে, ‘৭১ ও ৭৫-এর ঘাতক, সবাই একই সূত্রে গাঁথা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে তারা ১৯ বার হত্যার ষড়যন্ত্র করেছে, আল্লাহ তাকে নিজ হাতে রক্ষা করেছেন। এই দেশটাকে আরো উন্নতর দিকে নিয়ে যেতে আল্লাহ শেখ হাসিনাকে বাঁচিয়ে রেখেছেন। 

১৯৭১ সালের ৯ জুন সন্ধ্যায়, এখন যেটা হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল, তখন পাকিস্তান আমলে ঢাকায় এই একটিই ফাইভ স্টার হোটেল ছিল। আর এটিতেই বিদেশিরা এবং পাকিস্তানের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা নিরাপদ মনে করতেন। এই জায়গায় তারা অবস্থান নিতেন। ২৭ তারিখ দুই ঘণ্টার জন্য কারফিউ শিথিল করা হয়। আমরা ঘুরে ঘুরে দেখলাম কোথায় কী করা যায়। পরে ঢাকা থেকে আমরা জিনজিরা গেলাম। সেখানে ১ তারিখ হামলা করে পালিয়ে অন্য জায়গায় গেলাম। পরে ৪ তারিখ ঢাকায় আসি, যুদ্ধের প্রস্তুতি নিয়ে প্রশিক্ষণের জন্য আমরা আটজন আগরতলা চলে গেলাম। 

একদিন হঠাৎ আমরা সবাই সেখানে বসা ছিলাম, তখন মেজর খালেদ এলেন এবং বললেন, ঢাকায় একটি অপারেশনে যেতে হবে। যেখানে গেলে মৃত্যু প্রায় নিশ্চিত। তিনি জানতে চাইলেন, কে কে আমরা যেতে চাই? পরে সেখানে উপস্থিতদের মধ্যে আমরা ৪০ জন হাত তুললাম। আমাদের সন্ধ্যার পর দেখা করতে বললেন তার তাঁবুতে। 

পরে আমাদের তিনি তিনটি প্রশ্ন করলেন - সাঁতার জানি কি না, মৃগী ব্যারাম আছে কি না, আর হাই পাওয়ারের চশমা লাগে কি না। যাদের এই তিনটি সমস্যা ছিল তাদের বাদ দেয়া হয়। পরে আমাদের তিনটি গ্রুপে ভাগ করে ঢাকার উদ্দেশে পাঠালেন।
 
আমাদের বলা হলো, ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের একটা প্রতিনিধিদল আসছে, তারা তিনদিন ঢাকায় থাকবেন। বিশ্বের নামিদামি সাংবাদিকরাও আসবেন। আসার উদ্দেশ্য হলো, ঢাকা সম্পূর্ণ শান্ত, কোনো ধরনের কিছু নেই - যদি এটা দেখাতে পারে পাকিস্তান, তাহলে তারা বড় ধরনের ঋণ দেবে। এজন্য আমাদের কাজ হলো হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল থেকে দূরে কমলাপুর, খিলগাঁও, সদরঘাট এসব যায়গায় প্রতিরাতে গ্রেনেড ফাটানো। 

আমাদের একেকজনকে সাত-আটটা গ্রেনেড দেয়া হলো। আমাদের ১৭ জনের একটা গ্রুপ ছিল, এটাকে তিন ভাগ করে দিলু রোডে উঠেছিলাম। 

আমরা এলামই যখন তখন ভাবলাম, দিলু রোড থেকে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল বেশি দূরে নয়। হোটেলেই আক্রমণ করলে কেমন হয়? কারণ কমলাপুর, গেন্ডারিয়াতে আক্রমণ করলে আওয়াজ তো নাও আসতে পারে। পরে সিদ্ধান্ত নিলাম, আমরা মরি আর বাঁচি, হোটেলেই গ্রেনেড-আক্রমণ করবো। আক্রমণ করে পালিয়ে আসার জন্য আমরা একটা গাড়ি ছিনতাই করি। গাড়িতে করে সোজা হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের সামনে যাই। এরপর গ্রেনেড থ্রো করি।
 
ক্ষমতায় থেকে রাজনীতি করা একরকম আর রাজপথে বিরোধীদলীয় থেকে রাজনীতির পদ্ধতি আরেকরকম। জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটানা ১৩ বছর ক্ষমতায় থেকে দেশ আজ উন্নয়নের শিখরে পৌঁছাচ্ছে। একটানা ১৩ বছর শেখ হাসিনা না থাকলে তাহলে আমরা এ জায়গায় দেশ নিয়ে যেতে পারতাম না।
 
বাংলাদেশের জনগণ বারবার ভোট দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে নির্বাচিত করেছেন দেশকে এগিয়ে নেয়ার জন্য, এদেশের মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য, অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশ যেন মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারে তার জন্য। 

১৩ বছর ক্ষমতায় থাকার পরে আজ আওয়ামী লীগের অবস্থা অনেক সুসংহত। অন্যান্য যারা ৫ বছর, ১০ বছর ক্ষমতায় ছিলেন, তারা দেশের জন্য, মানুষের জন্য কিছু করেছেন - তেমন দৃষ্টান্ত নেই। একটি বিড়াল যদি হেঁটে যায় তার পায়েরও ছাপ থাকে। প্রায় ৩০ বছরের মতো তারা ক্ষমতায় ছিলেন, দেশের জন্য তারা কী করেছেন - তা আজ সবার জিজ্ঞাসা। 

আজ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২৫ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে। আজ আর কোথাও অন্ধকার নেই। আগে সারাদেশ অন্ধকারে থাকতো, ১২-১৪ ঘণ্টা লোডশেডিং হতো। বর্তমানে এদেশের ডিকশনারি থেকে লোডশেডিং শব্দটি উঠে গেছে। চরাঞ্চলে এখন টিভি চলে, ফ্রিজ চলে। অসুখ-বিসুখ না হলে এখন বাংলাদেশের মানুষ ৮০ বছরের আগে মারা যায় না। মানুষের যে এই গড় আয়ু বৃদ্ধি পেয়েছে এর কারণ মানুষ এখন খেতে পারে, শান্তিতে ঘুমাতে পারে। এখন মঙ্গা বলতে কোনো শব্দ নেই।
 
প্রধানমন্ত্রী জীবন বাজি রেখে কাজ করছেন। সবসময় আল্লাহকে স্মরণ করেন, তাহাজ্জুদের নামাজ পড়েন। দুই নেত্রীকে এক জায়গায় পাশাপাশি বসান, এক চেয়ারে শেখ হাসিনাকে আর অপর চেয়ারে খালেদা জিয়াকে। ইসলামি দৃষ্টিভঙ্গিতে তাকালে কার কাছে ইসলাম আছে সেটি দেখুন। 

জননেত্রী যে তাতের শাড়ি পরেন সেটি ৩-৫ হাজার টাকা দামের এবং খালেদা জিয়া যে শাড়ি পরতেন তা ৭০ থেকে ১ লাখ ডলার মূল্যের। এই ছিল তার বাংলাদেশের পলিটিকস। 

জননেত্রী তাহাজ্জুদ ও ফজরের নামাজ পড়ে যাত্রা শুরু করেন আর খালেদা জিয়া বেলা ১১টার দিকে ঘুম থেকে ওঠেন। তাহলে মানুষ তার কাছে কী আশা করতে পারে?

নেত্রীর সঙ্গে আমরা সবাই আছি, তার হাত আমরা সবসময় শক্তিশালী করে রাখছি। এখন ভুলভ্রান্তি কারো না কারো থাকতে পারে, আমারও থাকতে পারে। ভুল শুধরেই তো মানুষ। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শাসনও করতে পারেন আবার আন্দোলনও করতে পারেন। তিনি নিতেও জানেন এবং দিতেও জানেন। দলের গঠনতন্ত্র মেনে যারা কাজ করবেন তাদের জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনা সব করবেন। 

আমরা যখন বিরোধীদলে ছিলাম তখন যে অত্যাচার তারা করেছে তা অমানবিক। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যার ঘটনার পর তিন বছর আমি কারাগারে ছিলাম। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার আগ পর্যন্ত আমার মনে হয় ২০ দিনও একটানা বাসায় ঘুমাতে পারিনি। হামলা-মামলা লেগেই ছিল এবং আমার বড় ছেলেকেও তিন বছর জেল খাটতে হয়েছে, ছোট ছেলেকেও ১০ দিনের মতো থাকতে হয়েছে জেলে, তখন সে স্কুলে পড়তো। আমার মতো হাজার হাজার মায়ার জন্য তারা এমন দুঃসহ অবস্থা সৃষ্টি করেছিল। 

রাজপথে আমার নেতকর্মী-মহিলা কর্মীদের অমানবিক লাঠিপেটা করেছে। তারা একটুও সহানুভূতি দেখায়নি। কারাগার ভর্তি করে ফেলেছিল। আমরা রাস্তায় রাস্তায় ও মসজিদে ঘুমিয়েছি। 

ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য তারা অগ্নিসন্ত্রাস চালিয়েছে, ট্রাকে-বাসে পেট্রোল বোমা মেরে নারী-শিশুসহ অনেক মানুষ মেরেছে। এভাবেই তারা নানা পাঁয়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। তারপরও জননেত্রী শেখ হাসিনা যে সহানুভূতি দেখাচ্ছেন তা তারা চিন্তাও করেনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে উদারতার হাত বাড়িয়েছেন, তাদের প্রতি যে সম্মান দেখিয়েছেন, তা তারা কখনো করেনি, আর করতও না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে অনেক সম্মান দিয়েছেন, তার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। আজীবন আমি এবং আমার পরিবার শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য ও এগিয়ে নিতে আপ্রাণ চেষ্টা করছি। 

আমি তিনটি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলাম। সব সময় প্রধানমন্ত্রী আমাকে পরামর্শ দিতেন, নির্দেশনা দিতেন, সে অনুযায়ীই কাজ করতাম। সফলতার সঙ্গেই আমি দায়িত্ব পালনে সক্ষম হয়েছি। এজন্য নিজেকে ধন্য মনে করি। 
এখন যারা কাজ করছেন তারাও অত্যন্ত মেধাবী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেছে বেছে তাদের বসিয়েছেন। তারা যোগ্যতার সঙ্গেই কাজ করেন। তারা আরো ভালো করবেন বলে আমার বিশ্বাস এবং আস্থা রয়েছে। 

বঙ্গবন্ধু যেভাবে এ দেশ গড়তে চেয়েছিলেন, সামনে সেভাবেই আগামী বাংলাদেশকে দেখতে চাই।

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, বীরবিক্রম

সম্পাদক, স্টার সংবাদ ডট কম