ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

বিআরটিসির ৫২ কোটি টাকার বাস বিক্রি হলো ৫০ লাখে

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৬:৪৫, ১৩ অক্টোবর ২০২১

বিআরটিসির ৫২ কোটি টাকার বাস বিক্রি হলো ৫০ লাখে

অবশেষে ভাঙারি হিসেবে বিক্রি করা হলো বিআরটিসির সবচেয়ে ব্যয়বহুল বাসগুলো। ৫২ কোটি টাকায় কেনা বাসগুলো সম্প্রতি বিক্রি করা হয়েছে ৫০ লাখ টাকারও কম দামে।

জানা যায়, ৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০০৪ সালে ৫০টি দ্বিতল ভলভো বাস কেনে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন (বিআরটিসি)। ১৫ বছর আয়ুষ্কাল ধরা হলেও চার বছর পর থেকেই বিকল হতে শুরু করে বিআরটিসির সবচেয়ে দামি এই বাসগুলো। পরের তিন বছরের মধ্যে ৪৯টি বাসই বিকল হয়ে পড়ে। আর বিকল ভলভো বাসগুলো মেরামতে ব্যয় হয় ১২ কোটি টাকা।

বিআরটিসির চেয়ারম্যান মো. তাজুল ইসলাম বলেন, বাসগুলো বিআরটিসির বোঝা হয়ে উঠেছিল। তাই উন্মুক্ত দরপত্রের মাধ্যমে এগুলো বিক্রি করা হয়। আর পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্তক্রমে প্রস্তাব চূড়ান্ত করা হয়। ফলে দাম কম না বেশি তা নিয়ে মন্তব্য করা সম্ভব নয়।

বিক্রির আগে বিআরটিসির মিরপুর ডিপোতে ২৭টি ও কল্যাণপুর ডিপোতে ২২টি ভলভো বাস পড়ে ছিল। বর্তমানে শুধু একটি বাস সচল রয়েছে, যা সুপ্রিম কোর্টের স্টাফ পরিবহনে ইজারা দেয়া আছে।

বিআরটিসির তথ্যমতে, শুরু থেকে ভলভো বাসের যন্ত্রাংশ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান সুইডিশ মোটরস থেকে নেয়া হতো। তবে বিগত জোট সরকারের আমল থেকে বাকিতে যন্ত্রাংশ কেনার কারণে প্রতিষ্ঠানটির পাওনা দাঁড়ায় প্রায় ৭০ লাখ টাকা। জোট সরকার ওই টাকা পরিশোধ না করায় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে সুইডিশ মোটরস যন্ত্রাংশ সরবরাহ বন্ধ করে দেয়।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ও পরিবহন বিশেষজ্ঞ ড. সামছুল হক বলেন, ভলভো বাসগুলোর মেইনটেন্যান্স সেভাবে হতো না। একটা বাসের পার্টস (যন্ত্রাংশ) নষ্ট হলে তা আরেকটা থেকে খুলে নিয়ে লাগানো হতো। এসব করতে করতে কিছু বাস এমনিতেই অকেজো হয়ে গেছে। বিআরটিসিতে জবাবদিহিতার কোনো ব্যবস্থা নেই। যারা লিজ নেন তারা অপব্যবহার করে ধনী হন। ফলে শুধু ভলভো নয়, কোনো বাসই টেকসই হয়নি।