ঢাকা Friday, 12 July 2024

আন্দোলনকারীদের জনদুর্ভোগ সৃষ্টি না করার আহ্বান তথ্য প্রতিমন্ত্রীর 

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: 18:55, 10 July 2024

আন্দোলনকারীদের জনদুর্ভোগ সৃষ্টি না করার আহ্বান তথ্য প্রতিমন্ত্রীর 

কোটাবিরোধী আন্দোলনকারীদের জনদুর্ভোগ সৃষ্টি না করার আহ্বান জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত। একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, সর্বোচ্চ আদালতের আদেশে ২০১৮ সালে কোটা বাতিল সংক্রান্ত সরকারের পরিপত্র বলবৎ আছে। 

বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এমন আহ্বান জানিয়ে পোস্ট দিয়েছেন মোহাম্মদ আলী আরাফাত।

ফেসবুক পোস্টে তিনি লেখেন, ‘সর্বোচ্চ আদালত শুধু status quo আদেশ দেননি। শুধু status quo আদেশ দিলে কোটা বিষয়ে সরকারের পরিপত্র বাতিল করে উচ্চ আদালত যে আদেশ দিয়েছিল সেই আদেশ বলবৎ থাকতো। খেয়াল করতে হবে, সর্বোচ্চ আদালত subject matter এর উপর status quo আদেশ দিয়েছেন। অর্থাৎ, কোটা বিষয়ে সরকারের জারি করা পরিপত্র এখন আবার বলবৎ হলো।’

এরপরই তিনি লেখেন, ‘এই মুহুর্তে জনদুর্ভোগ তৈরি হয় এই ধরনের কার্যক্রম থেকে বিরত থাকা উচিত।’

প্রসঙ্গত, গত কয়েকদিন ধরে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন দেশের বিভিন্ন জেলার শিক্ষার্থীরা। গত সোমবার (৮ জুলাই) এক দফা দাবিতে বাংলা ব্লকেড কর্মসূচি পালন করছেন তারা। 

গতকাল মঙ্গলবার (৯ জুলাই) বিরতি রেখে আজ বুধবার সকাল থেকে এই কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন আন্দোলনরতরা। এতে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলো অবরোধ করেন তারা। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েন সাধারণ মানুষ। 

উল্লেখ্য, কোটা সংস্কার আন্দোলনের মুখে সরকারি চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে ৯ম থেকে ১৩তম গ্রেড পর্যন্ত কোটাপদ্ধতি বাতিল করে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর পরিপত্র জারি করে সরকার। এরপর ২০২১ সালে এই পরিপত্রের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট করেন চাকরিপ্রত্যাশী ও বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান অহিদুল ইসলামসহ সাতজন। রিটের প্রাথমিক শুনানিতে ২০২১ সালের ৬ ডিসেম্বর রুল দেন হাইকোর্ট। গত ৫ জুন চূড়ান্ত শুনানি শেষে রুল অ্যাবসলিউট (যথাযথ) ঘোষণা এবং কোটা বাতিলের পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট।

হাইকোর্টের এই রায় স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদন চেম্বার আদালত হয়ে ৪ জুলাই আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য ওঠে। রিট আবেদনকারী পক্ষের সময় আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সেদিন আপিল বিভাগ নট টুডে (৪ জুলাই নয়) বলে আদেশ দেন। পাশাপাশি রাষ্ট্রপক্ষকে নিয়মিত লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) করতে বলা হয়। এ অবস্থায় কোটা পুনর্বহাল সংক্রান্ত হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে দুই শিক্ষার্থী গতকাল মঙ্গলবার (৯ জুলাই) আবেদন করেন।
 
কোটা পুনর্বহাল সংক্রান্ত হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে দুই শিক্ষার্থী এবং রাষ্ট্রপক্ষে আবেদনের শুনানি হয় বুধবার, আপিল বিভাগে। শুনানি শেষে কোটার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোকে স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে আদেশ দেন আপিল বিভাগ।

তবে এই আদেশের পরও রাজপথ ছাড়েননি আন্দোলনকারীরা। তারা বলছেন, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।