ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

এএমআর-এর কারণে লাখো প্রাণহানির আশঙ্কা প্রধানমন্ত্রীর 

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ২১:৩১, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

আপডেট: ২১:৩২, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

এএমআর-এর কারণে লাখো প্রাণহানির আশঙ্কা প্রধানমন্ত্রীর 

অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল রেজিস্ট্যান্স (এএমআর)-এর কারণে বিশ্বে অসংখ্য প্রাণহানির আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাই এ ধরনের পরিস্থিতি প্রতিরোধে টেকসই রাজনৈতিক সদিচ্ছা ও পদক্ষেপ গ্রহণের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন তিনি। 

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) নিউইয়র্কে ল্যাক্সিংটন হোটেলে ‘অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিট্যান্স’ বিষয়ক এক অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন বাংলাদেশের সরকারপ্রধান। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিট্যান্স সমস্যাটি সংকটে পরিণত হতে পারে। এটি সারাবিশ্বে লাখ লাখ মানুষের প্রাণহানি ঘটাতে পারে। এই সংকট থেকে বাঁচতে টেকসই রাজনৈতিক সদিচ্ছা এবং পদক্ষেপ নেয়া দরকার। 

তিনি বলেন, বিশ্বনেতাদের এই গ্রুপ থেকে বিষয়টিকে তুলে ধরার জন্যে কাজ চলছে, কিন্তু এটি স্পষ্ট যে এই ব্যাপারে আরো কিছু করা প্রয়োজন।

শেখ হাসিনা বলেন, কৌশলগত অগ্রাধিকারগুলো যথাযথভাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যে সেগুলো সঠিকভাবে বাস্তবায়িত হয়েছে। আমাদের একটি ‘অভিন্ন স্বাস্থ্য পদ্ধতি’তে স্থিত হওয়া প্রয়োজন।

এএমআর বিষয়ে বিশ্বের প্রায় ১৫০টি দেশের জাতীয় কর্মপরিকল্পনা রয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশে এগুলো বাস্তবায়নের জন্য অর্থপূর্ণ সহায়তা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সহযোগিতায় এএমআর গুরুত্ব পাওয়া উচিত এবং ২০১৯ সালে প্রতিষ্ঠিত মাল্টি-পার্টনার ট্রাস্ট ফান্ড পছন্দের হাতিয়ার হতে পারে। এএমআর-এর জন্য বিশ্ব ও জাতীয় পর্যায়ে একটি শক্তিশালী বিনিয়োগ পরিস্থিতি তৈরি করা দরকার।

তিনি বলেন, এএমআর-এর দায়িত্ব ও প্রতিক্রিয়া বোঝার জন্য নজরদারি গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশ ২০১৯ সাল থেকে গ্লাস প্ল্যাটফর্মে রিপোর্ট করে আসছে।

শেখ হাসিনা আরো বলেন, সংশ্লিষ্ট সব অংশীদারের জড়িত হওয়া অত্যাবশ্যকীয় এবং একটি রোগীকেন্দ্রিক দৃষ্টিভঙ্গি গুরুত্বপূর্ণ।

নতুন এএমআর-এর ভ্যাকসিন ও অন্যান্য চিকিৎসার জন্য গবেষণা ও উদ্ভাবনের অভাবকে উদ্বেগের মূল কারণ হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এজন্য বেসরকারি খাতের যথাযথ প্রণোদনা প্রয়োজন।

কিছু জটিল প্যাথোজেনের জন্য এএমআর বিকাশের ঝুঁকি রয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এই বিষয়ে সংগৃহীত প্রমাণ এবং তথ্য-উপাত্ত বেশ চোখ খুলে দেয়ার মতো।

তিনি বলেন, এই সূচকগুলোর ওপর প্রতিবেদন প্রকাশ মানব স্বাস্থ্য, প্রাণিস্বাস্থ্য, খাদ্যব্যবস্থা এবং পরিবেশকে প্রভাবিত করে এমন এএমআর নীতি তৈরিতে সাহায্য করতে পারে।

তিনি আশা প্রকাশ করেন, এই বৈঠক এএমআর-এর বিরুদ্ধে আরো রাজনৈতিক গতিবেগ সঞ্চারে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এবং সবাই বিশেষজ্ঞদের ভাবনা, উপলব্ধি জানতে, শুনতে এবং উপকৃত হতে চান।

এই ইস্যুতে মানুষকে সচেতন করার ওপর গুরুত্বারোপ করে শেখ বলেন, এএমআর বিষয়ে গণসচেতনতা সৃষ্টির বিকল্প নেই। নভেম্বর মাসে বার্ষিক বৈশ্বিক সচেতনতা সপ্তাহ একটি উপযুক্ত উপলক্ষ হতে পারে।

প্রসঙ্গত, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, যখন ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস, ফাঙ্গাস, প্যারাসাইট সময়ের সঙ্গে বিভিন্ন কারণে নিজের ভেতরে পরিবর্তন নিয়ে আসে এবং এদের বিরুদ্ধে ওষুধে কাজ করে না তখন সেটিকে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিসট্যান্স (এএমআর) বলে। এই এএমআর-এর কারণে ইনফেকশন চিকিৎসা কঠিন হয়ে পড়ে এবং রোগ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে, মৃত্যু হতে পারে। অন্য অনেক কারণের পাশাপাশি অ্যান্টিবায়েটিক ওষুধের অতিরিক্ত এবং ভুল ব্যবহারের ফলে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল রেজিস্ট্যান্স তৈরি হচ্ছে।