ঢাকা রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

‘আওয়ামী লীগ জন্মলগ্ন থেকে মানুষের জন্য কাজ করছে’

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ২১:৪৫, ৪ জুলাই ২০২২

‘আওয়ামী লীগ জন্মলগ্ন থেকে মানুষের জন্য কাজ করছে’

ছবি : পিআইডি

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পঁচাত্তরের পর যারাই ক্ষমতায় এসেছে, তারা ক্ষমতায় এসেছে ‘খাওয়া পার্টি’ হিসেবে, দেয়ার জন্য না। আর আওয়ামী লীগ জন্মলগ্ন থেকে মানুষকে দিয়ে যাচ্ছে, মানুষের জন্য করে যাচ্ছে।

সোমবার (৪ জুলাই) নিজের জন্মস্থান গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর সোমবারই প্রথম এই সেতু দিয়ে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় পৈতৃক ভিটায় যান শেখ হাসিনা। এ সফরে তার সঙ্গে ছিলেন দুই সন্তান সজীব ওয়াজেদ জয় এবং সায়মা হোসেন পুতুল। সেখানে পৌঁছে জাতির পিতার কবর জিয়ারত করেন শেখ হাসিনা। পরে আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, জাতির পিতা কিন্তু নিজের জন্য দল করেন নাই বা নিজের ক্ষমতার লোভে দল করা বা নিজের অর্থ-সম্পদ বানানোর জন্য করেন নাই। তিনি করেছেন বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের জন্য। কাজেই আমার যেটুকু আছে, আমি যদি একটা গরিব মানুষকে দিতে পারি, আর সে যদি নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারে, এটাই তো আমার সার্থকতা একটা নেতা হিসেবে। আওয়ামী লীগের সব নেতাকর্মীকে সেই আদর্শ মেনেই চলতে হবে।

বক্তব্য প্রদানকালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর সংবিধান লঙ্ঘন করে যারা ক্ষমতায় গিয়েছিল, তাদের শাসনকালে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, জিয়া, এরশাদ, খালেদা জিয়া সব আমলেই শুধু নির্যাতন। আইয়ুব খান, ইয়াহিয়া খান কোন সময়টা না? শত নির্যাতনের মধ্য দিয়েও আওয়ামী লীগ সব সময় শক্তিশালী। বিশেষ করে আমাদের মাঠকর্মীরা সব সময় কিন্তু সঠিক সিদ্ধান্ত নেয় এবং তারাই কিন্তু পার্টিকে ধরে রাখে।

দেশের দক্ষিণ জনপদের উন্নয়নে পদ্মা সেতুর গুরুত্ব তুলে ধরার পাশাপাশি এই সেতু নির্মাণ করতে গিয়ে নানা বাধা মোকাবিলার কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী।

পদ্মা সেতু পাড়ি দেয়ার এই যাত্রায় ছোট বোন শেখ রেহানাকেও আনার ইচ্ছা ছিল জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এই পদ্মা সেতু বানাতে গিয়ে আমাদের ওপর যে অত্যাচার ... আপনারা চিন্তাও করতে পারবেন না। মিথ্যা একটা অভিযোগ এনেছিল। আমার ছেলে-মেয়ে, রেহানার ছেলে, রেহানা থেকে শুরু করে আমার মন্ত্রী, সচিব মোশাররফ, আমাদের উপদেষ্টা মসিউর রহমান সাহেব থেকে শুরু করে এদের উপরে একেবারে জুলুম। মিথ্যা মামলা দেবে, তাদেরকে হয়রানি করবে।

দুর্নীতি প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, আমি দুর্নীতি করব কীসের জন্য, কার জন্য? তিনি জানান, তার দুই সন্তান এবং ছোট বোনের তিন সন্তান নিজেদের যোগ্যতায় জীবিকা নির্বাহ করছেন। শেখ হাসিনা বলেন, তারা কোনোদিনই … আমি আজকে চার-চারবার ক্ষমতায় ... কই কেউ তো আমাকে বলেনি আমায় এই চাকরি দাও, আমায় এই ব্যবসা দাও, এটা দাও, সেটা দাও। নিজেরা চাকরি করছে, নিজেরা পড়েছে, স্টুডেন্ট লোন নিয়েছে, একটা করে কাজ করেছে আবার চাকরি করেছে। সেই টাকা শোধ দিচ্ছে আবার পড়েছে।

ছোট বোন শেখ রেহানা প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, রেহানাও চাকরি করে খায়। বোন প্রধানমন্ত্রী দেখে একেবারে বোনের ওপর কোনো চাপ দেবে, তাও তো করে না। কোনোদিন কোনো কথা বলে না। বাসে ঝুলে ঝুলে অফিস করে। তারপরও সে নিজে কাজ করে খায়। ঘরের কাজ ... ঘর ঝাড় দেয়া, বাথরুম ধোয়া, কাপড় ধোয়া, সব নিজের করতে হয়। রেহানা নিজেই করে সব।

তিনি বলেন, আমাদের এই আত্মমর্যাদা বোধটা আছে। কারো কাছে হাত পাতা, কারো মুখাপেক্ষী হওয়া না।

দেশের উন্নয়নে আওয়ামী লীগ সরকারের নেয়া নানা পদক্ষেপ তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা স্বাধীন দেশকে কীভাবে উন্নত করতে হবে, তার জন্য সব কাজ করে দিচ্ছি।

দেশের উন্নয়নে যেসব কাজ চলছে সেগুলো যেন ভালোমতো হয় সেদিকে দৃষ্টি রাখার জন্য দলের নেতাকর্মীদের পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ‘সরকারি মাল দরিয়া মে ঢাল’ - এই চিন্তা করা যাবে না।

করোনা অতিমারির মধ্যে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বিশ্বের অর্থনীতিতে যে সঙ্কট নিয়ে এসেছে, তা মোকাবিলার কথা তুলে ধরে সরকারপ্রধান বলেন, আমরা এখনো ভালো আছি। চেষ্টা করে যাচ্ছি আমি আপ্রাণ যে, আমরা ভালো থাকবো। কাজেই এখানেও সহযোগিতা করবেন দেশবাসীকে।

দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, কোনো এলাকায় যেন একটা মানুষও গরিব না থাকে, ভিক্ষা করে খেতে না হয়, কষ্ট না পায়। তাদের পাশে আমাদের দাঁড়াতে হবে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের প্রত্যেক নেতাকর্মীর এটা মাথায় রাখতে হবে যে, শুধু আমি খাব, আমি ভালো থাকব, আমি শান-শওকতে থাকব, আর আমার পাড়া-প্রতিবেশী খাবে না, এটা যেন না হয়।

সম্প্রতি সিলেট, সুনামগঞ্জ, কুড়িগ্রামসহ দেশের কয়েকটি অঞ্চলে বন্যা দেখা দেয়ায় মানুষের জীবন ও সম্পদ রক্ষায় সরকারের নেয়া নানা পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন সরকারপ্রধান। তিনি বলেন, সবাই একযোগে কাজ করতে পেরেছি বলেই আজকে করোনা মোকাবিলা, বন্যা মোকাবিলাসহ যে কোনো অবস্থা আমরা মোকাবিলা করতে পারি।

এসময় দলীয় নেতাকর্মীসহ দেশবাসীকে বিদ্যুৎ অপচয় না করার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।