ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

২৫ বছরে পা বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতুর

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৭:০৩, ২৩ জুন ২০২২

আপডেট: ১৭:০৭, ২৩ জুন ২০২২

২৫ বছরে পা বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতুর

ফাইল ছবি

দেখতে দেখতে ২৫ বছরে পা রাখল বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতু, প্রথমে যার নামকরণ করা হয়েছিল যমুনা বহুমুখী সেতু। দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থায় নতুন অধ্যায়ের সূচনা করে ১৯৯৮ সালের ২৩ জুন সেতুটি উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৪.৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট এই সেতু বাংলাদেশ এবং দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় দীর্ঘতম সেতু।

১৯৯৮ সালে সেতুটির পূর্বপ্রান্তে জনসভা করে টোল দিয়ে প্রথম ব্যক্তি হিসেবে বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতু অতিক্রম করেন শেখ হাসিনা। সে সময় প্রায় এক কিলোমিটার পথ সবাইকে নিয়ে হাঁটেন তিনি। এরপর গাড়িতে চেপে সেতুর পশ্চিম প্রান্তে আসেন। সেখানে আরেকটি জনসভা করে, সাফারি পার্কসহ আরো কিছু স্থাপনার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে ওঠেন বিশেষ ট্রেনে। সড়ক ও রেলপথের মাধ্যমে পণ্য ও যাত্রী পরিবহনে দ্রুত গতিশীলতা প্রদানের পাশাপাশি গ্যাস, বিদ্যুৎ ও টেলিযোগাযোগ সংহতকরণের জন্য এই সেতুটি অপরিহার্য ভূমিকা রেখে চলেছে।

১৯৯৮ সালের ২৩ জুন বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতু উদ্বোধনের পর সেতুটি ঘুরে দেখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ইতিহাস ঘেঁটে দেখা যায়, ১৯৭০ সালে পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনের প্রাক্কালে রেডিও-টেলিভিশনে জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার দলের নির্বাচনী অঙ্গীকার হিসেবে যমুনা সেতু নির্মাণের বিষয়টি উল্লেখ করেন। কিন্তু রাজনৈতিক অস্থিরতা ও মুক্তিযুদ্ধের কারণে সকল প্রচেষ্টা বাধাগ্রস্ত হয় সে সময়।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে নতুন সরকার যমুনার ওপর একটি সেতু নির্মাণের আকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করে জনগণের কাছে। তখন বাংলাদেশ সরকারের আমন্ত্রণে জাইকা (জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি) ১৯৭৩ সালে যমুনার ওপর একটি সড়ক-রেল সেতু নির্মাণে সম্ভাব্যতা যাচাইকাজ পরিচালনা করে।

পরবর্তীকালে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য ১৯৮৫ সালের ৩ জুলাই তৎকালীন রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ কর্তৃক প্রণীত একটি অধ্যাদেশের মাধ্যমে যমুনা বহুমুখী সেতু কর্তৃপক্ষ (জেএমবিএ) প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। আরেকটি অধ্যাদেশ জারির মাধ্যমে দেশের অভ্যন্তরীণ খাত থেকে যমুনা সেতুর জন্য সারচার্জ ও লেভি গ্রহণ করা হয়, যাতে শেষ পর্যন্ত প্রায় ৫.০৮ বিলিয়ন টাকা সংগ্রহ সম্ভব হয়েছিল।

অবশেষে এই সেতু নির্মাণের জন্য ১৯৯২ সালে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে আইডিএ, এডিবি এবং জাপানের ওইসিএফ-এর মধ্যে ঋণচুক্তি স্বাক্ষর হয়। ১৯৯৩ সালে নির্মাণচুক্তির জন্য আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করা হয়। সেতু নির্মাণ, নদী শাসন এবং দুটি অ্যাপ্রোচ রাস্তার কার্যাদেশ প্রদান করা হয় ১৯৯৪ সালের মার্চে। ওই বছর ১০ এপ্রিল সেতুটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। ১৫ অক্টোবর প্রকল্পটির ভৌত বাস্তবায়ন শুরু হয় এবং গ্যাস সঞ্চালন লাইন ছাড়া সকল প্যাকেজ ১৯৯৮ সালের জুনে সম্পন্ন হয়। ২০০৩ সালে সেতু কর্তৃপক্ষ সেতুটি বুঝে নেয়।

বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতু উদ্বোধনের মাধ্যমে বিংশ শতাব্দীর শেষ গ্রেট সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং চ্যালেঞ্জের একটি শুভ পরিসমাপ্তি ঘটে। ৯৬২ মিলিয়ন ডলার বা ৩ হাজার ৭৪৫ কোটি ৬০ লাখ টাকায় নির্মিত হয়েছিল সেতুটি। 
আইডিএ, এডিবি, জাপানের ওইসিএফ এবং বাংলাদেশ সরকার নির্মাণ খরচ ভাগ করে নেয়। আইডিএ, এডিবি ও ওইসিএফ প্রত্যেকে ২২ শতাংশ অর্থ সরবরাহ করে এবং অবশিষ্ট ৩৪ শতাংশ বাংলাদেশ বহন করে।

সেতুটি নির্মাণের ২৫ বছরে বিনিয়োগের টাকা তুলে আনা হবে বলে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়। তবে নির্ধারিত সময়ের সাত বছর আগেই সেতুর নির্মাণ ব্যয় উঠে আসে। ২০২১-২২ অর্থবছরের এপ্রিল পর্যন্ত সেতুতে টোল আদায় হয় ৭ হাজার ৭৪ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। অর্থাৎ গত ২৪ বছরে ব্যয়ের চেয়ে ৩ হাজার ৩২৮ কোটি ৯৯ লাখ টাকা বেশি টোল আদায় হয়।

বন্যার পানিপ্রবাহের জন্য সুযোগ রেখে প্রধান চ্যানেলের প্রস্থ সর্বোচ্চ ৩.৫ কিলোমিটার বিবেচনায় সেতুর দৈর্ঘ্যকে ৫ কিলোমিটারে মনোনীত করা হয়েছিল। সেতুটির ভৌত কাজ শুরু হওয়ার এক বছর পর ১৯৯৫ সালের অক্টোবর মাসে নদীর বন্যা ব্যবস্থাপনা অংশের পরিবর্তন এনে সেতুর দৈর্ঘ্য চূড়ান্ত করা হয় ৪.৮ কিলোমিটার। প্রকল্পের সামগ্রিক খরচ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য এই পরিবর্তন অপরিহার্য ছিল বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। 

সম্ভাব্য দুর্যোগ ও ভূমিকম্প যাতে সহ্য করতে পারে সেজন্য সেতুটিকে ৮০-৮৫ মিটার লম্বা এবং ২.৫ ও ৩.১৫ মিটার ব্যাসের ১২১টি ইস্পাতের খুঁটির ওপর বসানো হয়েছে। এই খুঁটিগুলি খুবই শক্তিশালী (২৪০ টন) হাইড্রোলিক হাতুড়ি দ্বারা বসানো হয়। সেতুটির স্প্যান সংখ্যা ৪৯টি, ডেক সেগমেন্ট ১ হাজার ২৬৩টি, পাইল ১২১টি, পিয়ার ৫০টি, সড়ক লেন ৪টি, রেলওয়ে ট্র্যাক ১টি, গ্যাস পাইপলাইন ১টি এবং বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন ২৩২ কেভি। ডুয়েল-গেজ ট্র্যাকটি একটি সমমানের চার-রেল কনফিগারেশনে স্থাপন করা হয়েছে, যার ফলে উভয় গেজের রেলগুলি পরস্পরের গার্ড রেল হিসেবে কাজ করে।

দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় জেলার সঙ্গে বাকি অঞ্চলের লাখ লাখ মানুষকে সংযুক্ত করেছে বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতু। এই সেতু বর্তমানে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করে চলেছে। যেখানে আগে সড়ক/রেলপথ ও ফেরিতে ঢাকা থেকে বগুড়ায় যেতে ১২ ঘণ্টা লাগতো, সেখানে বঙ্গবন্ধু সেতুর ফলে মাত্র ৬ ঘণ্টায় যাওয়া-আসা সম্ভবপর হচ্ছে। 

পদ্মা সেতু নির্মাণের স্বপ্ন ও সাহসের অন্যতম উৎস যদি বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতুকে ধরা হয়, তাহলে খুব একটা ভুল বলা হয় না। পদ্মার আগে এটিই এখন পর্যন্ত দেশের দীর্ঘতম সেতু। এই সেতুর আরো দীর্ঘ স্থায়িত্ব কামনা করে দেশবাসী।