ঢাকা শনিবার, ২৮ মে ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

‘নির্বাচন কমিশনার হওয়ার যোগ্যতা-অযোগ্যতা আরো স্পষ্ট হওয়া উচিত’

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৭:১৪, ২২ জানুয়ারি ২০২২

‘নির্বাচন কমিশনার হওয়ার যোগ্যতা-অযোগ্যতা আরো স্পষ্ট হওয়া উচিত’

ফাইল ছবি

নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনের আইন আরো স্পষ্ট ও বিশদ হওয়া উচিত বলে মনে করেন সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড. এটিএম শামসুল হুদা। তিনি বলেছেন, খসড়া আইনটি পড়ে মনে হয়েছে এটা নির্বাচন কমিশন গঠনের উদ্দেশ্যে নয়, বরং সার্চ কমিটি গঠন করার জন্য। নির্বাচন কমিশনার হওয়ার যোগ্যতা-অযোগ্যতা আরো স্পষ্টভাবে আইনে উল্লেখ করা প্রয়োজন।

শনিবার (২২ জানুয়ারি) ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি আয়োজিত ‘গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কমিশন গঠনে রাজনৈতিক দলের সদিচ্ছা’ বিষয়ক ছায়া সংসদে সাবেক এই নির্বাচন কমিশনার এসব কথা বলেন। 

ড. হুদা বলেন, প্রস্তাবিত আইনটি জনমত যাচাইয়ের জন্য উপস্থাপন করা উচিত। এটা তাড়াহুড়া করে করা উচিত নয়। সময় নিয়ে এবং যোগ্য মানুষের সহযোগিতায় আইনটি তৈরি করা উচিত। কারণ আমরা একটা গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান তৈরি করতে যাচ্ছি। ৫০ বছর পর এটা যদি মানুষের কাছে আর গ্রহণযোগ্য না হয় সেটা কাম্য নয়। দৃষ্টান্ত রেখে যাওয়ার জন্য বর্তমান সরকারের একটি ভালো নির্বাচন কমিশন গঠন করা উচিত।

তিনি বলেন, এর আগে ১৫৪ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। বর্তমান সংসদে জনগণের প্রতিনিধিত্ব আছে কি না সে বিষয়টি যেহেতু প্রশ্নবিদ্ধ, তাই আইনটি জনগণের মাঝে সার্কুলেট করা উচিত জনমত যাচাইয়ের জন্য।

ইসি গঠনে সার্চ কমিটির প্রয়োজন নেই উল্লেখ করে ড. হুদা বলেন, ভারতে এত শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন গঠন হয়, সেখানে তো সার্চ কমিটির প্রয়োজন হয় না। রাষ্ট্রপতি সরাসরি নিয়োগ দেন। বাংলাদেশেও হাইকোর্টের বিচারক নিয়োগের মতো বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে সার্চ কমিটি গঠনের প্রয়োজন হয় না।

তিনি বলেন, এমন মানুষকে নির্বাচন কমিশনার বানানো উচিত, যার বিরুদ্ধে কোনো নৈতিক কিংবা অর্থনৈতিক অসদাচরণের অভিযোগ নেই৷ বাংলাদেশে এখনো বহু স্বচ্ছ কর্মকর্তা আছেন। ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগ বা ছাত্রদল করেছেন কি না এ রকম দলীয় বিবেচনা করলে দেশের প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করা সম্ভব না।

দেশের প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করার আহ্বান জানিয়ে সাবেক এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন দেখিনি। আস্তে আস্তে প্রতিষ্ঠানগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এখন সরকারি কোনো কর্মকর্তাকে দুর্নীতির শাস্তি পেতে দেখা যায় না। বরং ব্রিটিশ এবং পাকিস্তান আমলে সে রকম নজির ছিল।

তিনি আরো বলেন, দেশে সবচেয়ে ভালো নির্বাচন হয়েছে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে। যদিও একটা দল হটিয়ে দিয়ে নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করা কোনো ভালো উদাহরণ নয়৷ নির্বাচনকালীন সরকার এমন কোনো পদক্ষেপ বা প্রকল্প যদি না নেয় যাতে নির্বাচন প্রভাবিত হতে পারে, তাহলে দলীয় সরকারের অধীনেই গ্রহণযোগ্য নির্বাচন দেয়া সম্ভব।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। সভাপতির বক্তব্যে তিনি নির্বাচনকালীন সরকারে অন্তর্ভুক্তির জন্য অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আবু সাইয়িদ এবং ড. এটিএম শামসুল হুদার নাম প্রস্তাব করেন।

হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ আরো বলেন, নির্বাচন কমিশন, বিচারব্যবস্থা, প্রশাসন ও রাষ্ট্রীয় অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ওপর ভিন্নমতের রাজনৈতিক দলসমূহের আস্থার অভাব রয়েছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ আইন ২০২২-কে জনবান্ধব ও সুশাসনের সহায়ক করতে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ ৬ দফা সুপারিশ প্রদান করেন। সেগুলো হলো -

১। ইসি গঠনে সার্চ কমিটিতে সংসদে সরকারি দল, বিরোধী দল ও সংসদ সদস্য সংখ্যার ভিত্তিতে তৃতীয় প্রতিনিধিত্বকারী দলের ১ জন করে সংসদ সদস্যকে অন্তর্ভুক্ত করা।

২। নির্বাচন সংক্রান্ত কাজে সম্পৃক্ত সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গ, নির্বাচন বিশেষজ্ঞ, সাংবাদিক, শিক্ষাবিদসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করে ইসি গঠনে তাদের সুপারিশ গ্রহণ করা।

৩। প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্য কমিশনারদের যোগ্যতা, দক্ষতা, অভিজ্ঞতা, নিরপেক্ষতা ও গ্রহণযোগ্যতা নিরূপণের মেকানিজম আইনের অন্তর্ভুক্ত রাখা, যাতে বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষিতে নিরপেক্ষ ও বস্তুনিষ্ঠ অবস্থান সমুন্নত রাখার মতো সৎসাহস ও দৃঢ়তাসম্পন্ন ব্যক্তিরা নির্বাচন কমিশনে অন্তর্ভুক্ত হন।

৪। নির্বাচন কমিশনার হিসেবে সার্চ কমিটি যেসব ব্যক্তির নাম প্রস্তাব করবে, সেসব নাম ও তাদের জীবনবৃত্তান্ত ওবেসাইটে প্রকাশ করা, যাতে তাদের সম্পর্কে গুরুতর কোনো অভিযোগ থাকলে তা নাগরিকরা জানাতে পারে।

৫। প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য কমিশনার আর্থিক অনিয়ম, অনৈতিক কাজে সম্পৃক্ততা এবং পক্ষপাতমূলক নির্বাচন করলে কী ধরনের শাস্তি প্রযোজ্য হবে নির্বাচন কমিশন আইনে সে বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনা উল্লেখ করা।

৬। প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনারদের অনিয়ম বা অপরাধ বিচারের ক্ষেত্রে কোনোরকম বিশেষ শিথিলতা বা ইনডেমনিটির বিধান না রাখা।