ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

অন্তিম শয়ানে অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৮:২১, ১ ডিসেম্বর ২০২১

অন্তিম শয়ানে অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম

ছবি : পিআইডি

আজীবন জ্ঞানের দীপশিখা জ্বালিয়ে যাওয়া অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের অন্তিম শয্যা হয়েছে রাজধানীর আজিমপুর কবরস্থানে। শহীদ মিনারে ফুলেল শ্রদ্ধা আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে জানাজাশেষে বুধবার (১ নভেম্বর) বিকালে আজিমপুরে নতুন কবরস্থানে বাবার কবরে দাফন করা হয় তাকে।

রফিকুল ইসলামের বাবা রেলওয়ের চিকিৎসক জুলফিকার আলি ১৯৭১ সালের ৩০ নভেম্বর মারা যান। তাকে এই কবরস্থানে দাফন করা হয়েছিল।

রফিকুল ইসলামের ছেলে বর্ষণ ইসলাম তার বাবার জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন। তিনি বলেন, শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) উত্তরা ১০ নম্বর সেক্টর ৫ নম্বর রোডের ৪৪ নম্বর বাড়িতে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল হবে।

ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পর্যন্ত বাংলাদেশের পথ পরিক্রমার অগ্নিসাক্ষী রফিকুল ইসলাম ৮৭ বছর বয়সে মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) মারা যান।

শেষ শ্রদ্ধা জানাতে বুধবার দুপুরে তার কফিন নেয়া হয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। সেখানে প্রথমে রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদের পক্ষে কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর শ্রদ্ধা জানানো হয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে।

শ্রদ্ধা জানাতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে উপস্থিত হন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনিসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা।

শ্রদ্ধা জানান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান, ঢাকা দক্ষিণ ও উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস ও আতিকুল ইসলাম।

শহীদ মিনারে এক ঘণ্টা শ্রদ্ধা নিবেদনশেষে রফিকুল ইসলামের মরদেহ নেয়া হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে। সেখানে জানাজায় বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি ও সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর উপস্থিত ছিলেন। জানাজার পর কফিন নেয়া হয় আজিমপুর কবরস্থানে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাংলা একাডেমির সভাপতির দায়িত্বেও ছিলেন।
স্বাধীনতা ও একুশে পদকপ্রাপ্ত এই শিক্ষক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রথম নজরুল অধ্যাপক এবং নজরুল গবেষণা কেন্দ্রের প্রথম পরিচালক।

১৯৩৪ সালের ১ জানুয়ারি চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার কলাকান্দা গ্রামে রফিকুল ইসলামের জন্ম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে লেখাপড়াশেষে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষাতত্ত্বে উচ্চশিক্ষা নেন।

ভাষা আন্দোলনে সক্রিয় অংশ নেয়া রফিকুল ইসলাম সেই সময়ের দুর্লভ আলোকচিত্র ধারণ করেছেন নিজের ক্যামেরায়। একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তান সামরিক বাহিনীর হাতে হয়েছেন নির্যাতিত। বাঙালির মুক্তির সংগ্রামের এই প্রত্যক্ষ সাক্ষী সেইসব ইতিহাস গ্রন্থিত করে গেছেন তার লেখায়। 

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য রফিকুল ইসলাম ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টসেরও উপাচার্য ছিলেন। ২০১৮ সালে সরকার তাকে জাতীয় অধ্যাপক করে নেয়।

একসময় বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করা রফিকুল ইসলামকে গত ১৮ মে বাংলা একাডেমির সভাপতির দায়িত্ব দিয়েছিল সরকার। আমৃত্যু তিনি সেই দায়িত্বে ছিলেন।

মাতৃভাষা সংরক্ষণ, পুনরুজ্জীবন, বিকাশ, চর্চা, প্রচার-প্রসারে অবদান রাখায় এ বছর তাকে প্রথম আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদকে ভূষিত করা হয়।