ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

এইচএসসি পরীক্ষার কারণে আন্দোলনের ধরন পাল্টাচ্ছে শিক্ষার্থীরা 

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৬:৩৩, ১ ডিসেম্বর ২০২১

এইচএসসি পরীক্ষার কারণে আন্দোলনের ধরন পাল্টাচ্ছে শিক্ষার্থীরা 

ছবি সংগৃহীত

দেশব্যাপী আগামীকাল বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) থেকে শুরু হচ্ছে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা (এইচএসসি)। এজন্য নয় দফা দাবি ও গণপরিবহনে হাফ পাস নিশ্চিতের লক্ষ্যে চলমান আন্দোলনের ধরনে পরিবর্তন আনার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। একই সঙ্গে এবার ১১ দফা ঘোষণা করেছেন তারা। 

শিক্ষার্থীরা জানান, যেহেতু বৃহস্পতিবার থেকে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হচ্ছে, তাই তারা সড়ক অবরোধ-বিক্ষোভের মতো কর্মসূচি আপাতত পালন করবেন না। পরীক্ষার্থীরা যেন কোনো ভোগান্তিতে না পড়েন সেজন্যই তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে তাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। নতুন কর্মসূচির মধ্যে আছে মানববন্ধন ও কালো ব্যাজ ধারণ। 

আন্দোলনকারীরা জানান, দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত রাজধানীর রামপুরা সড়কের দুপাশে দাঁড়িয়ে প্রতিদিন তারা এক ঘণ্টা করে মানববন্ধন করবেন। 

বুধবার (১ ডিসেম্বর) দুপুর ২টার দিকে অবরোধ কর্মসূচি আজকের মতো সমাপ্ত ঘোষণার পাশাপাশি তারা এই নতুন কর্মসূচির কথা জানান। 

শিক্ষার্থীরা বলেন, আগামীকাল সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত এইচএসসি পরীক্ষা চলবে। পরীক্ষার্থীদের যেন কোনো ভোগান্তি না হয়, সে লক্ষ্যে আমরা পরীক্ষা চলাকালে সড়ক অবরোধ করব না। প্রতিদিন দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত রামপুরায় সড়কের দুপাশে দাঁড়িয়ে মানববন্ধন করব। ১১ দফা দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।   

এদিকে আজ বুধবার বেলা ১১টায় শিক্ষার্থীরা আগের ঘোষণা অনুসারে রামপুরা ব্রিজে অবস্থান নেন। এ সময় তাদের বিভিন্ন গণপরিবহন থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিতে দেখা যায়।  পরে বাসগুলোকে ওই স্থানেই আটকে রাখেন তারা। এতে সড়কের দুপাশে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

ঢাকা আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ঢাকা ইমপেরিয়াল কলেজ, একরামুন্নেছা স্কুল অ্যান্ড কলেজসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের সড়কে দেখা গেছে। তারা সড়কে অবস্থান নিয়ে মাঈনুদ্দিন নিহতের বিচারসহ ১১ দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন।

দুপুর ১২টায় রাজধানীর রামপুরায় শিক্ষার্থীরা ১১ দফা দাবি, প্রস্তাবনা ও সড়ক নীতিমালা উত্থাপন করেন। শিক্ষার্থীদের পক্ষে খিলগাঁও মডেল কলেজের শিক্ষার্থী সোহাগী সায়মা ও ঢাকা ইমপেরিয়াল কলেজের শিক্ষার্থী নাদিমুর রহমান জুয়েল এসব দাবি উত্থাপন করেন।

শিক্ষার্থীদের ১১ দফা দাবিগুলো হচ্ছে -

১. সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত নাঈম হাসান ও মাইনুদ্দিনের পরিবারকে যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। গুলিস্তান ও রামপুরায় পথচারী পারাপারের জন্য ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করতে হবে।

২. সারাদেশের গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া নিশ্চিত করতে সরকারি প্রজ্ঞাপন জারি করতে হবে। এজন্য দিন-রাত বা ছুটির দিনসহ কোনো শর্ত জুড়ে দেয়া যাবে না। বর্ধিত বাসভাড়া প্রত্যাহার করতে হবে।  সব রুটে বিআরটিসির বাস বাড়াতে হবে।

৩. সব ধরনের পরিবহনে নারীদের অবাধ যাত্রা নিশ্চিত করতে হবে। তাদের সঙ্গে সৌজন্যমূলক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

৪. লাইসেন্সবিহীন চালককে নিয়োগদানকারী প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে। গাড়ির নিবন্ধন, ফিটনেস কার্যক্রম ও লাইসেন্স দানে বিআরটিএর দুর্নীতির বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।

৫. সব সড়কে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে হবে। ট্রাফিক পুলিশের সংখ্যা বৃদ্ধি করতে হবে। ট্রাফিক পুলিশের ঘুষ দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে।

৬. সব রুটে প্রতিযোগিতা বন্ধে এক গ্রুপ বা কোম্পানির মাধ্যমে সব বাস চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে। বাস অনুযায়ী মালিকদের মধ্যে লাভের টাকা বণ্টনের নিয়ম করতে হবে।

৭. শ্রমিকের নিয়োগপত্রে পরিচয় নিশ্চিত করতে হবে। বাসচালক ও হেলপারদের চুক্তির পরিবর্তে সব গণপরিবহন টিকিট পদ্ধতিতে চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে। শ্রমিকদের জন্য বিশ্রামাগার ও টয়লেটের ব্যবস্থা করতে হবে।

৮. গাড়ি ও চালকের কর্মঘণ্টা একনাগাড়ে ছয় ঘণ্টার বেশি হতে পারবে না। বাসে দুজন চালক ও দুজন সহকারী থাকতে হবে। পর্যাপ্ত বাস টার্মিনাল তৈরি করতে হবে। শ্রমিকদের জন্য যথাযথ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।

১০. যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের মতামত নিয়ে সড়ক পরিবহন আইন সংস্কার করতে হবে এবং এর বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে। ট্রাক ও ময়লার গাড়ি চলাচলের জন্য রাত ১২টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত নির্ধারণ করতে হবে।

১১. মাদক প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। নিয়মিত ডোপ টেস্ট ও কাউন্সেলিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে।

রামপুরা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম সংবাদমাধ্যমকে জানান, শিক্ষার্থীরা বুধবারও সড়কে অবস্থান নিয়ে আছেন। তারা বাস থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিচ্ছেন।      

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, নিরাপদ সড়কের দাবিতে মঙ্গলবার দুপুর ২টা পর্যন্ত তারা অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন। গতকালই তারা ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, আজ বেলা ১১টা থেকে একই দাবিতে আন্দোলন করবেন। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী তারা আজ আন্দোলনে নেমেছেন। সড়ক যতক্ষণ শিক্ষার্থীদের জন্য নিরাপদ না হবে, ততক্ষণ আন্দোলন চলবে।