ঢাকা শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

স্বর্ণের ব্যবহারে হতে পারে মৃত্যু!

প্রকাশিত: ১৫:০৪, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১

স্বর্ণের ব্যবহারে হতে পারে মৃত্যু!

সারা বিশ্বেই স্বর্ণালংকারের প্রতি রয়েছে মানুষের বিশেষ আবেদন। নারীদের ক্ষেত্রে সে আবেদনের মাত্রাটা আরও বেশি। স্বর্ণালংকার পছন্দ করেন না এমন নারী হয়তো খুঁজে পাওয়াই যাবে না। তাই যুগে যুগে বিশ্বের সব দেশেই স্বর্ণের ব্যবহার খুবই প্রচলিত।

কিন্তু এই স্বর্ণ বা সোনার সঙ্গে যে ব্যবহারকারীর স্বাস্থ্যের বিষয় জড়িয়ে আছে সেটা কি আমরা জানি? স্বর্ণের গুণগত মান সঠিক না হলে দীর্ঘদিন ব্যবহারের ফলে শরীরের উপর পড়তে পারে এর ক্ষতিকারক প্রভাব। এমনকি কখনো হয়ে উঠতে পারে মৃত্যুরও কারণ। তাহলে টাকা দিয়ে স্বর্ণালংকার কিনে কেউ কি মৃত্যু ডেকে আনবে!

বাজারে সচরাচর কেডিএম সোনা বিক্রি করা হয়। এক্ষেত্রে সোনার গুণগত মান যাচাই করে সার্টিফাই করা সোনা অর্থাৎ হলমার্ক সোনা কেনা বা ব্যবহার করা ভালো। এই সোনা ব্যবহারে ব্যবহারকারীর স্বাস্থ্যে কোনো ঝুঁকি থাকে না। কেডিএম সোনা হচ্ছে খাঁটি সোনাকে অলংকার উপযোগী করতে এর সঙ্গে ক্যাডমিয়াম নামক এক ধরনের ধাতু মেশানো হয়। সোনা এবং ক্যাডমিয়ামের অনুপাত থাকে ৯২:৮। এবার তাহলে কেডিএম সোনা ও হলমার্ক সোনার পার্থক্য জেনে নেয়া যাক।

খাঁটি সোনা খুব নরম হওয়ায় তা অলংকার তৈরির অনুপযুক্ত থাকে। তাই এর সঙ্গে অন্য ধাতু মিশিয়ে অলংকার তৈরির উপযুক্ত করা হয়। যাকে খাদ বলা হয়। এই খাদেই যত ঝামলো। মানগত কারণে সোনাকে কয়েকভাগে ভাগ করা হয়েছে- ২৪ ক্যারেট, ২৩ ক্যারেট, ২২ ক্যারেট, ১৮ ক্যারেট, ১৪ ক্যারেট এবং ১০ ক্যারেট। সোনায় ক্যাডমিয়াম মেশানোর ফলে সোনার মান বজায় থাকলেও এতে করে অলংকার তৈরির কারিগর এবং ব্যবহারকারীর স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয়ে থাকে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশেই সোনায় এই ক্যাডমিয়ামের ব্যবহার নিষিদ্ধ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ক্যাডমিয়াম হচ্ছে ক্ষতিকারক ধাতু। এটি দীর্ঘদিন শরীরে প্রবেশ করতে থাকলে বিষক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। এতে করে শরীরে ক্যানসার এবং কিডনি সংক্রান্ত সমস্যা হতে পারে। অনেক সময় শ্বাসকষ্ট, কিডনি অকার্যকর হয়ে যায় এবং পুরুষত্বহীনতার কারণও হয়ে দাঁড়ায়। এছাড়া ফুসফুস এবং হাড়েরও ক্ষতিসাধন হতে পারে।