ঢাকা শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

লবঙ্গ চায়ের যত গুণ 

লাইফস্টাইল ডেস্ক 

প্রকাশিত: ১৬:৩৬, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৬:৩৭, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১

লবঙ্গ চায়ের যত গুণ 

কাজের ফাঁকে, ক্লান্তির মাঝে, আড্ডা কিংবা অবসরে চাই এক কাপ ধূমায়িত চা। হরেক রকমের চা আমরা নিয়মিত পান করে থাকি। এর মধ্যে দুধ চা, রং চা, লেবু চা, আদা চা, তুলসী পাতার চা উল্লেখযোগ্য।

এছাড়া ভিন্ন স্বাদের জন্য অনেকে গ্রিন টি, হোয়াইট টি বা ব্ল্যাক টিও পান করে থাকেন। এই চাগুলোর প্রতিটিই স্বাস্থ্যের জন্য বেশ উপকারী। তবে আজকে আমরা আলোচনা করবো লবঙ্গ চায়ের উপকারিতা নিয়ে। চলুন জেনে নেয়া যাক লবঙ্গ চায়ের নানা গুণাগুণ নিয়ে। 
 
গবেষকদের মতে, আপনার বয়স যদি ২৫ থেকে ৪০-এর মধ্যে হয়ে থাকে তাহলে প্রতিদিন আপনাকে লবঙ্গ চা খেতেই হবে। 

লবঙ্গ চা বানানোর প্রক্রিয়া 

প্রথমে পরিমাণমতো লবঙ্গ নিয়ে বেঁটে নিতে হবে। তারপর সেই লবঙ্গের গুঁড়ো এক কাপ পানিতে মিশিয়ে কম করে ৫-১০ মিনিট ফোটাতে হবে। যখন দেখবেন পানি ফুটতে শুরু করেছে, তখন তাতে অর্ধেক চামচ চা পাতা দিন। আর কিছু সময় অপেক্ষা করে পানি ছেঁকে নিলেই হয়ে গেল লবঙ্গ টি।

চিকিৎসাবিজ্ঞান নিয়ে যারা চর্চা করেন তাদের মতে, প্রতিদিন দুবার করে লবঙ্গ চা খেলে শরীরে প্রবেশ করে - ম্যাঙ্গানিজ, ভিটামিন কে, ফাইবার, আয়রন, ক্যালসিয়ামসহ আরো একাধিক উপকারী উপাদান, যা নানাভাবে শরীরের উপকারে লেগে থাকে।

লবঙ্গ চায়ের নানা উপকারিতা 

দেহের অন্দরে প্রদাহের মাত্রা হ্রাস পায় : নানা কারণে অনেক সময়ই আমাদের শরীরের অন্দরে প্রদাহ বা ইনফ্লেমেশন রেট এতই বেড়ে যায় যে, একাধিক গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের ওপর খারাপ প্রভাব পড়ে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই নানা রোগ মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। আর এমনটা কিন্তু যে কারো সঙ্গেই হতে পারে। কিন্তু যদি চান আপনার সঙ্গে এমনটা না ঘটুক, তাহলে নিয়মিত লবঙ্গ চা খেতে ভুলবেন না। কারণ এমনটা করলে শরীরে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদানের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। ফলে প্রদাহের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার আর কোনো আশঙ্কাই থাকে না।

ক্যান্সার দূরে থাকে : লবঙ্গের ভেতরে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় অ্যান্টি-ক্যান্সার এজেন্ট। তাই প্রতিদিনের ডায়েটে লবঙ্গ চা জায়গা করে নিলে স্বাভাবিকভাবেই শরীরের ভেতরে ক্যান্সার নিরোধক উপাদানের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। ফলে দেহে ক্যান্সার সেল জন্ম নেয়ার আশঙ্কা কমে যায়।

রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে : সরকারি এবং বেসরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত এক দশকে আমাদের দেশে যে হারে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা বেড়েছে, তাতে আমাদের দেশ সারাবিশ্বের মধ্যে ডায়াবেটিস ক্যাপিটালে পরিণত হয়েছে। আর সব থেকে ভয়ের বিষয় হলো, প্রতিবছর নতুন করে এই মারণরোগে যারা আক্রান্ত হচ্ছেন, তাদের বেশিরভাগেরই বয়স ৪০-এর নিচে। এমন পরিস্থিতিকে যুব সমাজদের সুস্থ রাখতে পারে একমাত্র লবঙ্গ চা। কারণ এই প্রাকৃতিক উপাদানটির ভেতরে উপস্থিত নিগেরিয়াসিন শরীরে প্রবেশ করার পর ইনসুলিনের কর্মক্ষমতাকে এতটাই বাড়িয়ে দেয় যে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাওয়ার সুযোগই পায় না। 

স্ট্রেস লেভেল নিমেষে কমে যায় : ডায়াবেটিসের পর যে সমস্যাটা গত কয়েক বছরে বেশ মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে তা হলো স্ট্রেস। পরিসংখ্যান বলছে, আমাদের দেশের যুব সমাজের সিংহভাগই স্ট্রেসের শিকার। আর ভয়ের বিষয় হচ্ছে, যে কয়টা মারণরোগ এখন পৃথিবীতে দাপাদাপি করছে, তার প্রায় সবকটির সঙ্গেই স্ট্রেসের সরাসরি যোগ রয়েছে। তাই এমন মারণ পরিস্থিতির খপ্পরে পড়তে যদি না চান, তাহলে প্রতিদিন লবঙ্গ চা খেতে ভুলবেন না। কারণ এই পানীয়টির ভেতরে উপস্থিত নানাবিধ উপকারী উপাদান শরীরে প্রবেশ করা মাত্র ‘ফিল গুড’ হরমোনের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। ফলে স্ট্রেস লেভেল কমতে একেবারে সময় লাগে না।

চটজলদি আর্থ্রাইটিসের যন্ত্রণা কমে : লবঙ্গে উপস্থিত অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি প্রপাটিজ হাড়ের রোগের প্রকোপ কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। এক্ষেত্রে এক কাপ লবঙ্গ চা বানিয়ে কয়েক ঘণ্টা ফ্রিজে রেখে দিতে হবে। তারপর সেই ঠান্ডা চা ব্যথা হওয়া জায়গায় কম করে ২০ মিনিট লাগালে দেখবেন যন্ত্রণা একেবারে কমে গেছে। মূলত, জয়েন্ট পেন কমানোর পাশাপাশি পেশির ব্যথা এবং ফোলা ভাব কমাতেও এই ঘরোয়া ঔষধিটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে। 

জ্বরের চিকিৎসায় কাজ করে : লবঙ্গে থাকা ভিটামিন কে এবং ই রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে এতটাই শক্তিশালী করে দেয় যে, শরীরে উপস্থিত ভাইরাসেরা সব মারা পড়ে। ফলে ভাইরাল ফিভারের প্রকোপ কমতে সময় লাগে না। রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা জোরদার হয়ে যাওয়ার পর সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও কমে যায়।

দাঁতের ব্যথা কমাতে সহায়ক : লবঙ্গতে উপস্থিত অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান শরীরে প্রবেশ করার পর এমন কিছু বিক্রিয়া করে যে নিমেষে দাঁতের যন্ত্রণা কমে যায়। তাই এবার থেকে দাঁতে অস্বস্তি বা মাড়ি ফোলার মতো ঘটনা ঘটলে এক কাপ গরম লবঙ্গ চা খেয়ে নেবেন। তাহলে উপকার পাবেন।

হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটায় : লাঞ্চ বা ডিনারের আগে লবঙ্গ দিয়ে বানানো এক কাপ গরম গরম চা খেলে হজমে সহায়ক অ্যাসিডের ক্ষরণ বেড়ে যায়। সেই সঙ্গে পেটের দিকে রক্তপ্রবাহেরও উন্নতি ঘটে। ফলে খাবার হজম হতে সময় লাগে না। তাই যাদের কম ঝাল-মশলা দেয়া খাবার খেলেও বদহজম হয়, তারা লবঙ্গ চা পান করে একবার দেখতে পারেন। এমনটা করলে উপকার যে মিলবে, তা হলফ করে বলা যায়।

ত্বকের সংক্রমণ কমায় : এখন থেকে কোনো ধরনের ত্বকের সংক্রমণ হলেই চোখ বুজে ক্ষতস্থানে লবঙ্গ চা লাগাতে ভুলবেন না। এমনটা করলে দেখবেন কষ্ট কমতে সময়ই লাগবে না। আসলে লবঙ্গে উপস্থিত ভোলাটাইল অয়েল শরীরে উপস্থিত টক্সিক উপাদানদের বের করে দেয়। সেই সঙ্গে জীবাণুদেরও মেরে ফেলে। ফলে সংক্রমণজনিত কষ্ট কমতে একেবারেই সময় লাগে না।

সাইনাসের প্রকোপ কমায় : লবঙ্গ চায়ে উপস্থিত ইগুয়েনাল নামক উপাদানটি সাইনাসের কষ্ট কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। 

কাজেই নিয়মিত এ পানীয় পান করার মাধ্যমে আপনি অনেক রোগবালাই থেকে দূরে থাকতে পারবেন।