ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

দিল্লিতে আদালতের ভেতর গোলাগুলি, নিহত ৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫:৪১, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৬:৪৪, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

দিল্লিতে আদালতের ভেতর গোলাগুলি, নিহত ৩

ভারতের দিল্লির ভরা আদালত চত্বর। তার মধ্যেই হঠাৎ এলোপাতাড়ি গোলাগুলি। গুলির শব্দে তখন চারপাশে শুরু হয়ে গেছে প্রাণ বাঁচানোর তাগিদে মানুষের ছোটাছুটি। এ ঘটনায় অন্তত তিনজন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। খবর : আনন্দবাজার ও ইন্ডিয়া ডট কম। 

শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দিল্লির রোহিণী আদালতে নিয়ে আসা হয়েছিল কুখ্যাত গ্যাংস্টার  জিতেন্দ্র মান ওরফে গোগীকে। তাকে হত্যা করতে আগে থেকেই সেখানে হাজির ছিল তার বিরোধী গোষ্ঠীর দুষ্কৃতিকারীরা।

জিতেন্দ্র মান ওরফে গোগী গোগীকে নিয়ে যখন আদালত চত্বরে ঢোকে পুলিশ। তখনই তার ওপর হামলা চালায় দুই দুষ্কৃতিকারীরা। এলোপাথাড়ি গুলির মধ্যে পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায় গোগী। পুলিশের পাল্টা গুলিতে নিহত হয় দুই হামলাকারী। খবরে বলা হয়, সন্ত্রাসীরা আইনজীবীর পোশাক পরে আদালতকক্ষে প্রবেশ করেছিল। 

গুলি চলার সেই ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, বন্দুক উঁচিয়ে ছুটে যাচ্ছে পুলিশ। একটি ঘরের ভেতরে যে তাণ্ডব চলছে, ভিডিওতে তা স্পষ্ট বোঝা যায়। ওই ঘরেই গোগীর ওপর হামলা হয়। পুলিশের পাল্টা গুলিতে নিহত হয় দুই হামলাকারী। ভরা আদালতে তখন রক্তারক্তি কাণ্ড, যা দেখে শিউরে উঠেছেন প্রত্যক্ষদর্শীরাও।

সন্ত্রাসী গোগীর বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। গত এপ্রিলে তাকে গ্রেফতার করে দিল্লি পুলিশের বিশেষ বিভাগ। এক মামলায় আদালতে আনা হয়েছিল গোগীকে। তখনই বিরোধী গ্রুপের সন্ত্রাসীরা তার ওপর গুলি চালিয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

পুলিশের সন্দেহ, গোগীর ওপর হামলার ঘটনায় ‘টিল্লু’ গ্রুপের সন্ত্রাসীরা জড়িত। সন্ত্রাসীরা যখন গুলি চালায় সেসময় পাল্টা গুলি চালিয়েছে পুলিশও। এতে সন্ত্রাসীদের দুজনের মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সংবাদ সংস্থা সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবারের এই ঘটনায় আদালত চত্বরের মধ্যে ৩৫ থেকে ৪০ রাউন্ড গুলি চলেছে। সেখানে কর্মরত এক মহিলা আইনজীবীও আহত হয়েছেন। রোহিণীর ডেপুটি পুলিশ কমিশনার প্রণব তয়াল বলেছেন, ‘‘আইনজীবীর পোশাক পরে আততায়ীরা আদালতের মধ্যেই গোগীর ওপর গুলি চালায়। তারপর পুলিশও পাল্টা গুলি চালিয়েছে।’’

জানা গেছে, দিল্লির ওই দুই গ্যাংয়ের মধ্যে বিবাদ দীর্ঘদিনের। গত কয়েক বছরের তাদের মধ্যে ল়ড়াইয়ের জেরে ২৫ জনেরও বেশি ব্যক্তির প্রাণ গেছে। ২০১০ সালে বাবার মৃত্যুর পর অপরাধ জগতে প্রবেশ করে জিতেন্দ্র গোগী। স্কুলছুট গোগী প্রোমোটারি সংক্রান্ত কাজকর্ম শুরু করে। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুসারে, ‘২০১০ সালের সেপ্টেম্বরে প্রবীণ নামে এক ব্যক্তিকে গুলি করে খুন করে গোগী। সে বছরই অক্টোবরে দিল্লির শ্রদ্ধানন্দ কলেজের নির্বাচনে গোগী এবং তাঁর সহযোগীরা সন্দীপ এবং রবিন্দর নামে দুই যুবককে খুন করে। তখন তাকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। এরপর টাকা রোজগারের জন্য নতুন গ্যা‌ং তৈরি করে সে।’

কে এই গোগী

খুন করেই অপরাধ জগতে প্রবেশ গোগীর। তখন দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রদ্ধানন্দ কলেজের ছাত্র সে। অপরাধ জগতের সঙ্গে তার আগে পর্যন্ত গোগীর কোনো সম্পর্ক ছিল না। সাধারণ পরিবারের ছাত্র রাজনীতি করা তরুণ। কলেজে ভোটের আগে বড়জোর দলবল পাকিয়ে সামান্য ধমক-চমক দিত। ছাত্র ইউনিয়নের ‘দাদা’। ওটুকুই। প্রিয় বন্ধু সুনীলের সঙ্গে হঠাৎ শত্রুতাই গোগীকে গ্যাংস্টার বানিয়ে দেয়। কলেজ ভোটের সময় প্রতিহিংসাবশত সুনীলের এক বন্ধুকে গোগী খুন করেছিল বলে অভিযোগ। তারপর থেকেই গোগী বনাম সুনীলের লড়াই দিল্লির কুখ্যাত ‘গ্যাং ওয়ার’ বা দুই গোষ্ঠীর লড়াইয়ে পরিণত হয়।

শ্রদ্ধানন্দ কলেজের ঘটনাটি ২০১০ সালের। এক বছর পরেই গ্রেফতার হয় গোগী। ততদিনে তার এক সময়ের প্রিয়বন্ধু সুনীল ওরফে টিল্লুকে খুন করার ভূত চেপেছে গোগীর মাথায়। শুক্রবার সেই টিল্লুর দলই গোগীকে খুন করেছে বলে সন্দেহ পুলিশের।

২০১১ সালের পর থেকে পুরোপুরি অপরাধ জগতে ঢুকে পড়ে গোগী। তখন তার বয়স মাত্র ২০। চাঁদাবাজি, খুন, জখম, রাহাজানিতে তরুণ দুষ্কৃতি গোগীর দলের দৌরাত্ম্যে দিল্লির মানুষ আতঙ্কে থাকত একসময়। রাতবিরেতে মাঝে মধ্যেই গোগীর দল রাস্তায় গাড়ি ছিনতাই করত। কাছাকাছি কেউ থাকলে তাকে মেরে ফেলা ছিল গোগীর নীতি।

এসবের মধ্যে টিল্লুর দলের সঙ্গে তাদের দলের সংঘর্ষও সমান তালে চলছিল। ২০১৬ সালে গোগীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তবে ততদিনে গোগীর শক্তি বেড়েছে। জেলের মধ্যে থেকেই নেটওয়ার্ক সামলাচ্ছে সে। চরম শত্রু টিল্লুকে শেষ করার ঘুঁটিও সাজাচ্ছে। গোগীর দলে তখন নাম লিখিয়েছে অনেকেই। জাতীয় স্তরের বক্সিং খেলোয়াড় থেকে মহিলা কাবাডি খেলোয়াড়ও। তাদের সাহায্যেই তিহার জেল থেকে আদালতে যাওয়ার পথে পালিয়ে যায় গোগী। ফের শুরু হয় গোগীকে ধরতে চোর-পুলিশ খেলা।

পাঁচ বছরের চেষ্টায় গত বছর মার্চ মাসে ফেসবুকে আড়ি পেতে গোগীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ততদিনে অবশ্য সে হরিয়ানার এক নামী লোকগায়িকা হর্ষিতা দাহিয়াকে খুন করেছে। তারই মতো আরেক গ্যাংস্টার বীরেন্দ্র মানকে খুন করেছে। এমনকি ভিডিও রেকর্ড করে জানিয়েছে, পবন আঁচল ঠাকুর নামে বিরোধী গ্যাংস্টারদের দলের এক ঘনিষ্ঠকেও খুন করেছে সে। একের পর এক খুন করেই চলছিল গোগীর দল। তারপরও পুলিশ নাগাল পায়নি। পুলিশের চোখে ধুলো দিতে সিদ্ধহস্ত গোগী অবশ্য শেষ দানে একটু ভুল করে ফেলে। দিল্লির এক বিখ্যাত ক্যাফেতে বসে নিজের ছবি পোস্ট করে তরুণ গ্যাংস্টার। সেই ছবি দেখেই গোগীকে গ্রেফতার করে দিল্লি পুলিশ।

তখন গোগীর মাথার দাম দশ লাখ রুপি। তারপর থেকে প্রায় দেড় বছর জেলে থাকাকালে জেলের ভেতরে থেকে গোগী আরো অনেক অপরাধ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছিল। এর মধ্যেই শুক্রবার দিল্লির রোহিণী আদালতে তোলা হয় গোগীকে। সেখানে গোগীর দলের বাকি সদস্যরাও ছিল। পুলিশ জানিয়েছে, আইনজীবীর ছদ্মবেশে আদালতে প্রবেশ করে শত্রুদলের লোকজন। তারাই গোগীকে লক্ষ্য করে গুলি করে। পুলিশের অনুমান, এরা গোগীর সবচেয়ে বড় শত্রু টিল্লুর দলের লোক হতে পারে। যদিও এক সময়ের বন্ধুই গোগীকে অপরাধ দুনিয়া থেকে চিরমুক্তি দিল কি না, সে ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত নয় পুলিশ।

গোলাগুলির ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন