ঢাকা শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

‘ডোন্ট টাচ মাই ক্লথ’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৪:৪১, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

‘ডোন্ট টাচ মাই ক্লথ’

আফগানিস্তানে তালেবানদের ক্ষমতা গ্রহণের পর নারী অধিকারের বিষয়টি এখন অন্যতম ইস্যু হিসেবে দেখা দিয়েছে। নারীদের নানা বিধিনিষেধের জালে আবদ্ধ করতে তালেবান গোষ্ঠী একের পর এক বক্তব্য-বিবৃতি দিয়ে যাচ্ছে,  চালু করছে নিয়মনীতি। এসব কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে বর্ণিল পোশাক পরে সামাজিক যোগাযোগ মধ্যমে ছবি ছড়িয়ে দিচ্ছেন আফগান নারীরা। তাদের প্রতিবাদের ভাষা, ‘ডোন্ট টাচ মাই ক্লথ’, বাংলায় ‘আমার পোশাকে হাত দিও না’।

বর্ণিল পোশাকে আফগানিস্তানের ঐতিহ্যবাহী সাজে সজ্জিত এই নারীরা ফেসবুক-টুইটারে ‘ডোন্টটাচমাইক্লথ’ কিংবা ‘আফগানিস্তান কালচার’ হ্যাশট্যাগে প্রতিবাদ জানিয়ে যাচ্ছেন তালেবানদের বিধিনিষেধের ওপর, বিশেষ করে নারীদের পোশাক-পরিচ্ছেদ ও তাদের অধিকারের ওপর অযাচিত হস্তক্ষেপের।  

এদিকে আফগান নারীরা যখন তালেবানের বন্দুকের সামনে দাঁড়িয়ে বিক্ষোভে নেমেছেন, ঠিক তখনই বিপরীত চিত্রে তালেবানের পক্ষ নিয়ে দুদিন আগে হিজাব-বোরকায় আচ্ছাদিত একদল নারী কাবুলে সমাবেশ করেন। তাদের সেই সমাবেশ থেকে বলা হয়, ‘মেকআপ নিয়ে আধুনিক পোশাক পরা আফগানিস্তানের মুসলিম নারীদের প্রতিচ্ছবি নয়’ এবং ‘শরিয়াহ আইনের বিরোধী বিদেশি নারী অধিকার আমরা চাই না’।

সেই সমাবেশের পরই আফগানিস্তানের ঐতিহ্যবাহী ও বর্ণিল পোশাক পরে প্রতিবাদের সূত্রপাত বলে বিবিসি জানিয়েছে।

আফগানিস্তানের আমেরিকান ইউনিভার্সিটির ইতিহাস বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. বাহার জালালি সোশাল মিডিয়ায় এই প্রতিবাদের সূচনা করেন হ্যাশট্যাগ দুটি ব্যবহার করে।

সবুজ রঙা এক ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে টুইটারে হাজির হন তিনি। অন্যদেরও তিনি অনুপ্রাণিত করেন তাকে অনুসরণ করতে, দেখাতে যে, এটাই আফগানিস্তানের ‘প্রকৃত চিত্র’।

এই পথে নামার কারণ ব্যাখ্যা করে বাহার বিবিসিকে বলেন, আজ আফগানিস্তানের স্বকীয়তা, স্বাধীনতা হুমকির মুখে, এটাই আমার সবচেয়ে বড় উদ্বেগ। আমি বিশ্ববাসীকে জানাতে চাই, যেটা তারা মিডিয়ায় দেখেছে (তালেবান সমর্থক নারীদের সমাবেশ), সেটা আমাদের সংস্কৃতি নয়, সেটা আমাদের পরিচিতি নয়।

ড. বাহারের আহ্বান দ্রুতই সাড়া ফেলে বিশ্বের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা আফগান নারীদের মধ্যে। বহু জাতি, গোত্রের দেশ আফগানিস্তানে নারীদের পোশাকেও রয়েছে স্বাতন্ত্র্য; সোশাল মিডিয়ায় প্রতিবাদী এই নারীদের পোশাকেও সেই বৈচিত্র্য রয়েছে। কেউ পরেছেন বড় কামিজ, কেউ আবৃত হয়েছেন লেহেঙ্গায়, কারো মাথায় টুপিও রয়েছে; তবে রঙের ক্ষেত্রে রয়েছে ঐক্যের টান। সবারই পোশাকে রয়েছে রঙ-বেরঙের ছটা। সবাই এক বাক্যে বোঝাতে চেয়েছেন, এই পোশাকই তাদের পরিচিতি, এটাই তাদের স্বাতন্ত্র্য।

যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ায় থাকা অধিকারকর্মী স্পোজমে মাসিদ এই আন্দোলনে শামিল হয়ে টুইটারে লিখেছেন, এটাই আফগান নারীদের সত্যিকারের পোশাক। আফগান নারী এই ধরনের বর্ণিল ও রুচিশীল পোশাকই পরে থাকে। কালো বোরকা কখনই আফগানিস্তানের সংস্কৃতিতে ছিল না।

মাসিদ আরো বলেন, যুগ যুগ ধরে আমরা একটি ইসলামী দেশ হিসেবে রয়েছি, তার মধ্যেই আমাদের দাদি-নানিরা নিজেদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে দিন কাটিয়েছিলেন। তারাও কখনও আরবের কালো বোরকা পরেননি। 

তিনি বলেন, ঐতিহ্যবাহী এসব পোশাক আমাদের হাজার বছরের উন্নত সংস্কৃতিকে মেলে ধরে, যা আমাদের গর্বিত হতে শেখায়, বুঝতে শেখায় আমরা কারা।

জমকালো লেহেঙ্গা পরে মাথায় টিকলি দিয়ে নিজের ছবি পোস্ট করে মাসিদ লিখেছেন, কারণ আমি আফগান নারী, আমরা আমাদের পোশাক নিয়ে গর্ব বোধ করি। আর আমাদের পরিচিতি কী হবে, তা কোনো একটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী ঠিক করে দিতে পারে না।