ঢাকা Wednesday, 24 July 2024

দার্জিলিংয়ে যাত্রীবাহী ট্রেনে মালগাড়ির ধাক্কায় ৫ জনের মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: 12:13, 17 June 2024

দার্জিলিংয়ে যাত্রীবাহী ট্রেনে মালগাড়ির ধাক্কায় ৫ জনের মৃত্যু

ছবি : সংগৃহীত

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিংয়ে শিয়ালদাগামী ডাউন কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে একটি মালগাড়ি ধাক্কায় পাঁচ যাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে একজনের দেহ ট্রেনের মধ্যে আটকে আছে। গ্যাস কাটার না থাকায় এখনও দেহ উদ্ধার করা যাচ্ছে না। প্রাথমিক ভাবে পুলিশের তরফ থেকে এমনটাই জানানো হয়ে। খবর হিন্দুস্থান টাইমস।

ভারতীয় গণমাধ্যমটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এখনও পর্যন্ত বহু যাত্রী যাত্রীবাহী ট্রেনের দুমড়েমুচড়ে থাকা কামরায় আটকে থাকতে পারেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এই আবহে রিপোর্টে দাবি করা হচ্ছে, উদ্ধারকাজের জন্য সেনার থেকে সাহায্য চাওয়া হতে পারে। এদিকে এই ভয়াবহ দুর্ঘটনার জেরে অনেক যাত্রীই আহত হয়েছেন বলেও জানা গিয়েছে। রাজ্য প্রশাসনের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, ৩০ জনের মতো আহত হয়েছেন।

এই বিষয়ে দার্জিলিং পুলিশের অতিরিক্ত এসপি অভিষেক রায় বলেন, ‘দুর্ঘটনায় এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে পাঁচ যাত্রী, আহত ২০-২৫ জন। তাঁদের অবস্থা গুরুতর। কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে একটি পণ্যবাহী ট্রেনের ধাক্কা লেগে এই ঘটনা ঘটেছে।’ 

জানা যায়, নির্ধারিত সময় মেনেই আজ সকালে নিউ জলপাইগুড়িতে পৌঁছায় ডাউন কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস। নীচবাড়ি এবং রাঙাপানি স্টেশনের মাঝামাঝি জায়গায় দুর্ঘটনার মুখে পড়ে ট্রেনটি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন যে পিছন দিক থেকে একটি মালগাড়ি চলে আসে। আর সেটি ডাউন কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে সজোরে ধাক্কা মারে। তার জেরে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসের দুটি কামরা লাইনচ্যুত হয়ে যায়। এদিকে ধাক্কার জেরে মালগাড়ির ইঞ্জিনের উপরে একটি বগির অর্ধেক অংশ উঠে গিয়েছে। একটি বগি পুরো রেললাইনের পাশে উলটে পড়ে যায়। সেইসবের মধ্যেই ওই ঘটনায় রেলের সুরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে ফের প্রশ্নচিহ্ন উঠেছে। এই আবহে রেলের তরফ থেকে জানানো হচ্ছে, সিগনাল ফেল করার জেরেই মালগাড়িটি গিয়ে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে ধাক্কা মারে। পিছনে দু'টি পার্সেল ভ্যান এবং একটি যাত্রীবাহী কামরা এর জেরে লাইনচ্যুত হয়েছে।

তবে শিলিগুড়িতে সকাল থেকে মুষলধারে বৃষ্টি চলছে। তারই মাঝে এই দুর্ঘটনায় উদ্ধারকাজে বেগ পেতে হচ্ছে। যে লাইনে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে, কলকাতা থেকে শিলিগুড়ির সঙ্গে রেল যোগাযোগের প্রধান লাইন সেটাই। ফলে আপাতত দূরপাল্লার ট্রেন চলাচল সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে। সিগনালিং সিস্টেমের গাফিলতি নাকি দুর্ঘটনার পেছনে অন্য কোন কারণ রয়েছে, তা খতিয়ে দেখছে রেল কর্তৃপক্ষ।

এদিকে দুর্ঘটনার পরপরই উদ্ধারকাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘দার্জিলিং জেলার ফাঁসি দেওয়া এলাকায় ভয়ংকর ট্রেন দুর্ঘটনার কথা জানতে পেরে হতবাক হয়ে গিয়েছি। ওই দুর্ঘটনার বিষয়ে এখনও বিস্তারিত তথ্য জানা যায়নি। তবে প্রাথমিকভাবে যাচ্ছে যে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে ধাক্কা মেরেছে একটি মালগাড়ি। উদ্ধারকাজ এবং চিকিৎসা প্রদানের জন্য ঘটনাস্থলে গিয়েছেন জেলাশাসক, পুলিশ সুপার, চিকিৎসকরা। পাঠানো হয়েছে অ্যাম্বুলেন্সও। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় উদ্ধারকাজ চলছে।’