ঢাকা Wednesday, 24 July 2024

ট্রেন দুর্ঘটনার মূল কারণ ও দোষীরা চিহ্নিত : ভারতীয় রেলমন্ত্রী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: 15:34, 4 June 2023

আপডেট: 17:18, 4 June 2023

ট্রেন দুর্ঘটনার মূল কারণ ও দোষীরা চিহ্নিত : ভারতীয় রেলমন্ত্রী

ফাইল ছবি

ভারতের উড়িশ্যায় ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে প্রাথমিকভাবে প্রযুক্তিগত ত্রুটিতে চিন্থিত করেছে কর্তৃপক্ষ। এই ঘটনায় দোষীদের চিন্থিত করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন দেশটির রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব। রোববার (৪ জুন) সকালে ঘটনাস্থল থেকে গণমাধ্যমকে এই তথ্য জানান তিনি। খবর এনডিটিভি।

এর আগে শনিবার গভীর রাত পর্যন্ত দুর্ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে থেকে সেখানকার কাজকর্ম তদারকি করেন মন্ত্রী। শনিবারই দুর্ঘটনার কারণ বের করতে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি।

রোববার সকালে বার্তা সংস্থা এএনআইকে অশ্বিনী বৈষ্ণব বলেন, ‘এই দুর্ঘটনার মূল কারণ চিহ্নিত করা হয়েছে। শনিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে যান প্রধানমন্ত্রী মোদি। আমরা রোববার ট্র্যাক মেরামত করার চেষ্টা করব। সব লাশ সরিয়ে ফেলা হয়েছে। আমাদের লক্ষ্য হলো বুধবার সকালের মধ্যে লাইন মেরামতের কাজ শেষ করা। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই ট্র্যাকে যাতে ফের ট্রেন চলতে শুরু করতে পারে, সেদিকেই এখন আমাদের নজর।‘

দুর্ঘটনার তদন্ত নিয়ে তিনি আরো বলেন, ‘রেলওয়ের নিরাপত্তা কমিশনার বিষয়টির তদন্ত করেছেন এবং প্রাথমিক তদন্ত রিপোর্ট ইতোমধ্যেই হাতে এসেছে। আমরা ঘটনার কারণ এবং এর জন্য দায়ী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করেছি। ইলেকট্রনিক ইন্টারলকিং পরিবর্তনের কারণে এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। এই মুহূর্তে আমাদের ফোকাস লাইন মেরামতের দিকে।

প্রাথমিক রিপোর্ট অনুযায়ী, সিগন্যালিং কন্ট্রোল রুমের ভিডিওতে দেখা গেছে যে, ভুল লাইনে ঢুকে পড়েছে করমণ্ডল এক্সপ্রেস। যদিও বিষয়টি নিয়ে ভারতীয় রেলের পক্ষ থেকে সরকারিভাবে কিছু জানানো হয়নি।

হিন্দুস্তান টাইমসকে রেলের এক শীর্ষকর্তা জানিয়েছেন, খড়গপুর ডিভিশনের সিগন্যালিং রুমের ভিডিওতে দেখা গেছে, সন্ধ্যা ৬টা ৫৫ মিনিট নাগাদ উড়িশ্যার বালাসোর জেলার বাহানগা বাজার স্টেশন অতিক্রম করার পর লুপ লাইনে ঢুকে পড়ে করমণ্ডল এক্সপ্রেস। এদিকে সেই লুপ লাইনে আগে থেকেই একটি মালগাড়ি দাঁড়িয়েছিল।

রেল মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা বলেন, এরপর ঘণ্টায় ১২৭ কিলোমিটার বেগে চলা করমণ্ডল এক্সপ্রেস ওই মালবাহী ট্রেনে ধাক্কা দেয় এবং মেইন লাইনে লাইনচ্যুত হয়ে পড়ে। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই বিপরীত দিক থেকে আসা সুপারফাস্ট এক্সপ্রেস ধাক্কা দেয় করমণ্ডল এক্সপ্রেসে।

এই মারাত্মক ভুলের কারণেই এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হচ্ছে। এই লুপ লাইনে করমণ্ডল এক্সপ্রেসটা না ঢুকলেই দুর্ঘটনা এড়ানো যেত। এ ছাড়াও প্রাথমিক তদন্তে জানা যাচ্ছে, সিগন্যালিংয়ের গলদে এই দুর্ঘটনা হয়ে থাকতে পারে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর এক যৌথ রিপোর্টে বলা হয়েছে, আপ মেন লাইনে সবুজ সিগন্যাল দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ট্রেনটি সেই লাইনে ঢোকেইনি। ট্রেন ঢুকেছিল লুপ লাইনে। সেখানে আগে থেকে একটি মালগাড়ি দাঁড়িয়ে ছিল। তার সঙ্গে সংঘর্ষে করমণ্ডল এক্সপ্রেস লাইনচ্যুত হয়।

রিপোর্টে আরো বলা হয়েছে, এর মধ্যে ডাউন লাইন দিয়ে বালেশ্বরের দিকে যাচ্ছিল বেঙ্গালুরু-হাওড়া সুপারফাস্ট এক্সপ্রেস। সেই ট্রেনেরও দুটি বগি লাইনচ্যুত হয়। কিন্তু মেন লাইনে সবুজ সিগন্যাল পাওয়া সত্ত্বেও করমণ্ডল এক্সপ্রেস কীভাবে লুপ লাইনে ঢুকে পড়ল, তা এখনও স্পষ্ট নয়। এক্ষেত্রে সিগন্যাল দেওয়ায় কোনও ত্রুটি হয়ে থাকতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

করমণ্ডল এক্সপ্রেস দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা ৩০০ ছুঁই-ছুঁই। এটি ৩০০ পেরিয়েও যেতে পারে বলে মনে করছেন অভিজ্ঞেরা। শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত রেল সূত্রে বলা হয়েছে, নিহতের সংখ্যা ২৮৮। আহত ৮০০ এর উপর। কিন্তু প্রত্যক্ষদর্শীরা জানাচ্ছেন, এখনও ধ্বংসস্তূপ থেকে দেহাংশ ঝুলছে। ধ্বংসস্তূপের তলাতেও চাপা পড়ে থাকতে পারে অনেক দেহ। ফলে নিহতের সংখ্যা আরো বাড়বে বলেই আশঙ্কা।

তবে সরকারি ভাবে রেল ‘উদ্ধারকাজ শেষ বলে ঘোষণা করেছে। শনিবার থেকেই শুরু হয়েছে পরিষেবা স্বাভাবিক করার উদ্যোগ। তবে তা যথেষ্ট সময়সাপেক্ষ বলেই মনে করা হচ্ছে।

এর আগে শুক্রবার (২ জুন) সন্ধ্যায় ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় উড়িশ্যা রাজ্যে করমণ্ডল যাত্রীবাহী ট্রেন একটি মালবাহী ট্রেনকে ধাক্কা দেয় এবং একই সময় যশবন্তপুর-হাওড়া সুপারফাস্ট আরেকটি ট্রেন লাইনচ্যুত কোচগুলোর সাথে ধাক্কা খায়। তিন ট্রেনের ভয়ঙ্কর সংঘর্ষে এমন ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে।

এই দুর্ঘটনায় দুজন বাংলাদেশি নাগরিক আহত হয়েছেন। তবে তাদের বর্তমান অবস্থা এখন পর্যন্ত জানা যায়নি। নয়াদিল্লীর বাংলাদেশ হাইকমিশন ও কলকাতার ডেপুটি মিশন পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে এবং আহত বাংলাদেশিদের বিস্তারিত জানার জন্য চেষ্টা চালাচ্ছে।