ঢাকা মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

চাল রফতানি বন্ধের পরিকল্পনা নেই ভারতের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ২০:১১, ২৭ মে ২০২২

চাল রফতানি বন্ধের পরিকল্পনা নেই ভারতের

চাল রফতানি বন্ধ বা সীমিতকরণের কোনো পরিকল্পনা ভারত সরকারের নেই। কারণ দেশটিতে চালের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে এবং সেখানে স্থানীয়ভাবে চালের দর সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে এখনো অনেক। এমন তথ্য জানিয়েছেন ভারতের সরকার ও বাণিজ্য সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র। 

আজ শুক্রবার (২৭ মে) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানায় ভারতীয় গণমাধ্যম দ্য হিন্দু বিজনেস লাইন।  

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার (২৬ মে) মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ, ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য ইকোনমিক টাইমসসহ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়, ভারতীয় নিষেধাজ্ঞার পরবর্তী লক্ষ্য হতে পারে চাল। অবশ্য সেসব খবর প্রকাশিত হওয়ার পর সেদিনই দ্য হিন্দু বিজনেস লাইন জানিয়েছিল, আপাতত এ ধরনের কোনো পরিকল্পনা নেই ভারত সরকারের।

গত ১৪ মে ভারত সরকার গম রফতানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। কারণ হিসেবে বলা হয়, চলতি বছর তাপমাত্রার তারতম্যের কারণে গমের উৎপাদন আশাপ্রদ হয়নি। ফলস্বরূপ দেশটির বাজারে গমের মূল্য অনেক বেড়ে গেছে। অবশ্য এর কয়েকদিন আগে নয়াদিল্লি জানিয়েছিল, এ বছর রেকর্ড ১০ মিলিয়ন টন গম রফতানি করবে ভারত। 

চাল রফতানি প্রসঙ্গে ভারতের এক উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা বলেন, আমাদের কাছে পর্যাপ্ত পরিমাণের চেয়ে বেশি চাল মজুদ রয়েছে। ফলে অভ্যন্তরীণ প্রয়োজন মিটিয়ে চাল রফতানিতে কোনো অসুবিধা হবে না। 

এমন পরিস্থিতিতে চাল রফতানি নিষিদ্ধ করার কোনো চিন্তাভাবনা সরকারের নেই বলে জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দেশটির আরেক দায়িত্বশীল সরকারি কর্মকর্তা।  

প্রসঙ্গত, বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম চাল রফতানিকারক দেশ ভারত। গত বছর দেশটি ১৭.৮ মিলিয়ন টন চাল রফতানি করেছে। চলতি বছর মার্চ মাস পর্যন্ত সেই রেকর্ড ভেঙে ২১.২ মিলিয়ন টন চাল রফতানি করেছে ভারত। 

এ বিষয়ে অল ইন্ডিয়া রাইস এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি বিভি কৃষ্ণ রাও বলেন, রফতানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে চালের দামও কমছে। দেশে প্রচুর পরিমাণে চাল মজুদ আছে। ফুড করপোরেশন অফ ইন্ডিয়ার (এফসিআই) স্থানীয়ভাবে চাল সংগ্রহ করে এই মজুদ আরো সমৃদ্ধ করছে। 

সূত্র জানায়, চলতি বছর এফসিআইয়ের লক্ষ্য ছিল ১৩.৫৮ মিলিয়ন টন ধান-চাল সংগ্রহ করা। বিপরীতে এরই মধ্যে তারা মজুদ করেছে ৬৬.২২ মিলিয়ন টন। 

কৃষ্ণ রাও বলেন, চলতি অবস্থায় চাল রফতানির ওপর নিষেধাজ্ঞার কোনো প্রয়োজন নেই। তিনি আরো বলেন, ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে গমের উৎপাদন এবং দামের ওপর প্রভাব পড়েছে। কিন্তু কৃষ্ণ সাগরভুক্ত এলাকাটি চালের প্রধান উৎপাদক বা ভোক্তা নয়। 

জানা গেছে, ভারতে চালের ব্যাপক উৎপাদনের কারণে চলতি বছর এর রফতানি মূল্যেও প্রভাব পড়ছে। বর্তমানে প্রতি টন ৩৫০ থেকে ৩৫৪ ডলারে রফতানি করছে ভারত, গত পাঁচ বছরের মধ্যে দেশটির তথ্যানুসারে সর্বনিম্ন। 

২০২২ সালের জুন পর্যন্ত ফসলের বছরের হিসাবে ভারতে চাল উৎপাদন আগের বছরের ১২১.১ মিলিয়ন টন থেকে বেড়ে হয়েছে  ১২৯.৬৬ মিলিয়ন টন। 

এই বাম্পার উৎপাদনের কারণে দেশটির এফসিআই বাধ্য হচ্ছে কৃষকদের কাছ থেকে আরো বেশি ধান কিনতে। এক হিসাব অনুযায়ী, গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ বছর এখন পর্যন্ত ৮০.৪ মিলিয়ন টন ধান চাষীদের কাছ থেকে কিনেছে এফসিআই। গত বছর একই সময়ে এর পরিমাণ ছিল ৭৭ মিলিয়ন টন।  

কৃষ্ণ রাও বলেন, এফসিআই’র সংগ্রহ বাড়ছে। এটি একটি ইঙ্গিত যে, কোনো ঘাটতি নেই। তাই চাল রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপের কোনো কারণও নেই।