ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

চরম মানবিক সংকটে কিডনি বিক্রি করছেন আফগানরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৩:১১, ১৪ জানুয়ারি ২০২২

চরম মানবিক সংকটে কিডনি বিক্রি করছেন আফগানরা

আফগানিস্তানজুড়ে এখন হতাশা, ক্ষুধা আর দারিদ্র্যের রাজত্ব। দেশটির অধিবাসীরা দিন পার করছে চরম মানবিক সংকটের মধ্য দিয়ে। শীত মৌসুমে এ সংকট আরো ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। 

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, অনাহারক্লিষ্ট আফগানরা খাদ্য জোটাতে নিজেদের কিডনি পর্যন্ত বিক্রি করছেন। কিন্তু তারপরও অনেকে পরিবারের মুখে তুলে দিতে পারছেন না খাবার। অনাহার-অর্ধাহারে সাধারণ আফগানদের জীবন এখন ওষ্ঠাগত। 

গত বছর আগস্টে তালেবান গোষ্ঠী সরকার গঠনের পর থেকেই বিদেশি সমর্থন আদায়সহ অর্থের জোগান দিতে হিমশিম খাচ্ছে আফগানিস্তান। একদিকে পশ্চিমা সহায়তা আসা বন্ধ, অন্যদিকে বিভিন্ন ব্যাংকে আটকে দেয়া হয়েছে আফগানিস্তানের রিজার্ভের অর্থ। ফলে তীব্র অর্থনৈতিক সংকটে পড়েছেন দেশটির বাসিন্দারা।
 
জাতিসংঘ এমন পরিস্থিতিতে আফগানিস্তানের জন্য গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। একই সঙ্গে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটি পুনর্গঠনে এবং চলমান মানবিক সংকট নিরসনে আফগানিস্তানকে সহায়তা করতে সবার প্রতি আহবান জানিয়েছে সংস্থাটি। 

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বলেন, আফগানিস্তানে ভয়াবহ খাদ্য সংকট চলছে। অপুষ্টির শিকার হয়ে মানুষের মৃত্যুঝুঁকি বাড়ছে। এ অবস্থায় বিশ্বনেতারা সহায়তার হাত না বাড়ালে, পরিস্থিতি আরো মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে।
 
এর আগে জাতিসংঘ জানিয়েছিল, ২০২২ সালে আফগানিস্তানে মানবিক বিপর্যয় ঠেকাতে এবং বিধ্বস্ত দেশটি পুনর্গঠনে প্রায় ৫০০ কোটি মার্কিন ডলারের তহবিল প্রয়োজন।

আফগানিস্তানের একটি হাসপাতালের কিডনি বিশেষজ্ঞ ডা. নাসির আহমেদ জানান, ২০২১ সালে তিনি ৮৫টি কিডনি প্রতিস্থাপন অপারেশন করেছেন। 

তিনি বলেন, ক্রেতা ও বিক্রেতার সমঝোতার ভিত্তিতে একটি কিডনি প্রতিস্থাপন অপারেশনের খরচ পড়ে ৬ লাখ থেকে ৮ লাখ আফগানি (আফগানিস্তানের মুদ্রার নাম আফগানি)।

ডা. নাসির যোগ করেন, অনেক আফগান, যারা অত্যন্ত মানবিক বিপর্যয়ে আছে তারা পরিবারের মুখে খাবার তুলে দিতে কিডনি বিক্রি করে দিচ্ছেন। তবে এর ফলে ভবিষ্যতে অনেককেই ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন এই শল্য চিকিৎসক। 

দেশটির হেরাত রাজ্যের খোসান জেলার কুদোসাবাদ গ্রামের ৪০ বছর বয়সী গুলাম হজরত এক মাস আগে তার কিডনি বিক্রি করেছেন ২ লাখ ৩০ হাজার আফগানিতে। তিনি জানান, পরিবারের মুখে খাবার তুলে দিতে এবং ঋণ পরিশোধের জন্য তাকে বাধ্য হয়ে এ কাজ করতে হয়েছে। 

কেন ঋণ করতে হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অবৈধভাবে ইরানে প্রবেশের চেষ্টা করেছিলাম চাকরির সন্ধানে। কিন্তু সেটা হয়নি। 

হজরত বলেন, তালেবানরা কাবুল দখলের পর তিনি ২০ হাজার আফগানি ধার করে একজন মানবপাচারকারী দিয়েছিলেন যেন ইরানে যেতে পারেন। কিন্তু তিনি ইরানে প্রবেশের সময় গ্রেফতার হন এবং তাকে আফগানিস্তানে ফেরত পাঠানো হয়। এরপর থেকে তার অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যায়। পরে তিনি বাধ্য হয়ে কিডনি বিক্রির সিদ্ধান্ত নেন। 

শুধু গুলাম হজরত নন, এমন অনেক আফগানই আজ কঠিন সময় পার করছেন। অনেকে কোনো দিশা না পেয়ে শেষ পর্যন্ত বাধ্য হচ্ছেন কিডনিসহ শরীরের নানা অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ বিক্রি করতে।

খবর : ইউরোনিউজ।