ঢাকা রোববার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

বাড়ছে ‘চোখ-ওঠা’, যা করতে বলছেন চিকিৎসকরা 

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৬:৪৪, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২

বাড়ছে ‘চোখ-ওঠা’, যা করতে বলছেন চিকিৎসকরা 

দেশে হঠাৎ করেই ‘চোখ-ওঠা’ রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। মূলত এটি একটি ভাইরাসজনিত রোগ। গরমে আর বর্ষায় এ রোগের প্রকোপ বাড়ে এবং রোগটি ছোঁয়াচে, ফলে দ্রুত একজন থেকে অন্যদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে।

এ রোগের লক্ষণগুলো হলো - কখনো কখনো এক চোখে অথবা দুই চোখেই জ্বালা করা, লাল হয়ে চোখ ফুলে যাওয়া, চোখ চুলকানি, চোখে খচখচে ভাব থাকা, চোখ থেকে পানি পড়া, চোখে বারবার সাদা ময়লা আসা, কিছু ক্ষেত্রে চোখে তীব্র ব্যথা। 

চিকিৎসকরা বলছেন, এ রোগ হলে ঘাবড়ানোর কিছু নেই। ভাইরাসজনিত এই রোগের বৈজ্ঞানিক নাম ‘কনজাংটিভাইটিস’ বা ‘কনজাংটিভার’। এ রোগ হলে কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। 

চিকিৎসাবিদ্যার ভাষায় চোখের একেবারে বাইরের স্বচ্ছ অংশটির ‘কনজাংকটিভা’। ভাইরাসের সংক্রমণে সেখানে তৈরি হয় প্রদাহ, ফুলে যায় চোখের ছোট ছোট রক্তনালি। ফুলে থাকা রক্তনালিগুলোর কারণেই চোখের রং লালচে হয়ে যায়, যেটাকে চোখ-ওঠা বা ‘কনজাংকটিভাইটিস’ বলা হয়।

সাধারণত এক সপ্তাহের মধ্যেই এই রোগ সেরে যায়। তবে জটিল রূপ ধারণ করলে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেয়ার উচিত। 

কনজাংটিভাইটিস রোগটি আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শ থেকে ছড়ায়। রোগীর ব্যবহার্য বস্তু যেমন রুমাল, তোয়ালে, বালিশ, টিস্যু অন্যরা ব্যবহার করলে তারাও এতে আক্রান্ত হতে পারেন। এছাড়া কনজাংটিভাইটিসের জন্য দায়ী ভাইরাস বাতাসের মাধ্যমেও ছড়ায়। আক্রান্ত ব্যক্তির আশপাশে যারা থাকেন, তাদেরও এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

এ রোগে কী করণীয় 

চোখ-ওঠা ছোঁয়াচে রোগ। বাতাসের মাধ্যমেও ছড়াতে পারে, তবে সবচেয়ে বেশি ছড়ায় বারবার হাত চোখে দিলে। তাই হাত সাবান দিয়ে ধুতে হবে। চোখের পানি সাবধানে টিস্যু দিয়ে মুছে নিতে হবে। ব্যবহার করা সেই টিস্যু সাবধানে নিরাপদ স্থানে ফেলতে হবে। 

চোখ ঘষা বা চুলকানো থেকে বিরত থাকতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শে আই ড্রপ ব্যবহার করা যেতে পারে। রোগীর ব্যবহার করা সামগ্রী অন্যদের ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে হবে। এক চোখে সমস্যা দেখা দিলে অন্য চোখকে সংক্রমণ থেকে নিরাপদে রাখতে হবে। সমস্যা এক সপ্তাহের মধ্যে না সারলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের চক্ষু বিভাগের চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. শাহনুর হাসানের পরামর্শ, এ
রোগ হলে আতঙ্কিত হওয়া যাবে না। ভাইরাসজনিত এ রোগ যার হবে, তিনি যেন অন্যের সংস্পর্শে না আসেন। রোগীর ব্যবহার করা টাওয়েল, বিছানা, বালিশ যেন অন্য কেউ ব্যবহার না করেন। বাচ্চাদের চোখ উঠলে স্কুলের অন্য বাচ্চাদের সুরক্ষিত রাখতে সে যেন কিছুদিন স্কুলে না যায়। ভাইরাস জ্বর যেমন ৫/৭ দিনে ভালো হয়ে যায়, এটাও তেমন এমনিতেই ভালো হয়ে যায়। প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে চোখ-ওঠা নিশ্চিত হয়ে অ্যান্টিবায়োটিক ড্রপ ব্যবহার করা যেতে পারে।