ঢাকা বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

কৃষিবর্জ্য ও মাটি থেকে পরিবেশবান্ধব ইট বানালেন ঠাকুরগাঁওয়ের আরমান

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: ১৯:৪৮, ৫ জানুয়ারি ২০২৩

কৃষিবর্জ্য ও মাটি থেকে পরিবেশবান্ধব ইট বানালেন ঠাকুরগাঁওয়ের আরমান

কৃষিবর্জ্য ও মাটি থেকে পরিবেশবান্ধব ইট তৈরি করেছেন ঠাকুরগাঁওয়ের আরমান রেজা শাহ্। তিনি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী। এ কাজে তাকে সহায়তা করেছেন তার শিক্ষক অধ্যাপক ড. নাদিম রেজা খন্দকার।

আরমান রেজা শাহ্ ঠাকুরগাঁও শহরের সরকারপাড়া এলাকার অধ্যাপক মো. আব্দুল কুদ্দুস শাহ্‌র ছেলে। তিনি করোনা মহামারিতে লকডাউনের সময় অধ্যাপক ড. নাদিম রেজা খন্দকারের সঙ্গে পিএইচডির ‘কৃষিবর্জ্য ও মাটি থেকে পরিবেশবান্ধব ইট’ কিভাবে তৈরি করতে হয় এ সংক্রান্ত একটি গবেষণা শুরু করেন। সম্প্রতি তারা তাদের গবেষণাপত্র প্রকাশ করেছেন। সাত মাস গবেষণার পর এই সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন তারা। আধুনিক ইমারত নির্মাণে পরিবেশবান্ধব ইট সুদূরপ্রসারি ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদী তারা। 

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দাবি, কৃষিবর্জ্য ও মাটি দিয়ে তৈরি ইট পোড়ানো ইটের চেয়ে বেশি শক্তিশালী। এছাড়া ব্যয় সাশ্রয়ীও। এই ইটের ওজন অনেক কম হওয়ায় বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাড়তি সুবিধাও রয়েছে।

গবেষণার বিষয়ে আরমান রেজা শাহ্ জানান, কোভিড পরিস্থিতির জন্য যখন সারাদেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ, অনলাইন সেমিস্টার চলছিল, সে-সময়ই মূলত এই গবেষণা করার আগ্রহ জন্ম নেয়। আমি আমার শিক্ষক ড. নাদিম রেজা খন্দকারের সঙ্গে যোগাযোগ করি এবং তিনি এ বিষয়ে কাজের জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেন। গত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে আমি আমার দাদাবাড়ি (ফুলবাড়ী, দেবীগঞ্জ, পঞ্চগড়) যাই। এ অঞ্চলে মাটির ঘরের প্রচলন রয়েছে। 

তিনি বলেন, প্রথমে ওই এলাকার মাটির বাড়িগুলো পরিদর্শন করি এবং এসব বাড়ির বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলি। তারা কী কী ম্যাটেরিয়াল ব্যবহার করেন, বাড়ি তৈরি করতে কী কী সমস্যার সম্মুখীন হন এবং মাটির বাড়ির সুবিধা নিয়ে আলোচনা করি। একসময় লক্ষ্য করি, ওই অঞ্চলে প্রচুর ধান চাষ হয় এবং ফসল তোলার পর উচ্ছিষ্টের বিশাল একটা অংশ তারা পুড়িয়ে ফেলেন। সেখান থেকেই চিন্তায় আসে, এই বর্জ্য থেকে মাটির বাড়ির জন্য ইট প্রস্তুত করার বিষয়টি। সেখান থেকে স্যাম্পল (নমুনা) সংগ্রহ করি (মাটি, কৃষিবর্জ্য) এবং কয়েকটি রেশিও ধরে ইটের স্যাম্পল প্রস্তুত করে ফেলি। সেগুলোকে ঢাকায় নিয়ে আসা হয় এবং ড. নাদিম রেজার তত্ত্বাবধানে এই ইটের স্যাম্পলগুলোকে ২৪ ইসিবি, বাংলাদেশ আর্মি ল্যাবে কম্প্রেসিভ স্ট্রেন্থ টেস্ট করানো হয়। সেখানে আশাব্যঞ্জক ফল পাই আমরা।

আরমান বলেন, আমদের উদ্দেশ্য হচ্ছে সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোলকে মাথায় রেখে পরিবেশবান্ধব কন্সট্রাকশন ম্যাটেরিয়াল তৈরি করা, কার্বন নিঃসরণের মাত্রা কমানো,  পরিবেশবান্ধব বাসস্থান ব্যবহারে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করা।

তিনি বলেন, আমাদের সফলতার মধ্যে রয়েছে - এই ইট প্রস্তুতে খরচ প্রায় শূন্য। যেহেতু এগুলো প্রস্তুত করতে পোড়ানোর প্রয়োজন হয় না, তাই কার্বন নিঃসরণের মাত্রা শূন্য। অধিক চাপ নিতে পারার ক্ষমতা থাকায় গ্রামের মানুষ দীর্ঘদিন একটি মানসম্মত বাসস্থানে থাকতে পারবে। এছাড়া তরুণ সমাজকে গবেষণায় উদ্বুদ্ধ করা।

তিনি আরো বলেন, কৃষিবর্জ্য ও মাটি দিয়ে তৈরি ইট বেশ শক্তিশালী ও পরিবেশবান্ধব। গবেষণাতেও ভালো ফল পাওয়া গেছে। এই ইট বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন শুরুর উদ্যোগ নেয়া যেতে পারে।

অধ্যাপক ড. নাদিম রেজা খন্দকার বলেন, আমরা গবেষণায় দেখেছি কৃষিবর্জ্য ও মাটি দিয়ে তৈরি ইট পোড়ানো ইটের তুলনায় ভালো। কারণ একদিকে এটি বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় অবদান রেখে পরিবেশ ভালো রাখবে, সেই সঙ্গে কাঁচামালের জোগানও স্থানীয়ভাবে মোকাবিলা করা যাবে।

তিনি আরো বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মাটির ঘর নির্মাণ করছে, কারণ এই ঘরে বসবাস করা বেশ আরামদায়ক। আমরা মানুষকে মাটির ঘর নির্মাণে উদ্বুদ্ধ করতেই এই গবেষণা করেছি। সফলতাও পেয়েছি। এখন এই ইট বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন করতে অর্থের প্রয়োজন। সরকার আর্থিকভাবে সহযোগিতা করলে এই ইট বাণিজ্যিকভাবে রফতানি করা সম্ভব।