ঢাকা শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মেডিক্যাল কলেজে ক্লাস শুরু

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৬:২০, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আপডেট: ১৬:২১, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মেডিক্যাল কলেজে ক্লাস শুরু

ছবি সংগৃহীত

দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর আজ সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) থেকে দেশের সব সরকারি-বেসরকারি মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কলেজে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু হয়েছে। আজ প্রথমদিন প্রথম, দ্বিতীয় ও পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থীরা শ্রেণিকক্ষে আসেন।

বেশ কয়েকটি মেডিক্যাল কলেজে গিয়ে দেখা যায়, নতুন-পুরনো শিক্ষার্থীদের কলকাকলিতে অনেকদিন পর যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছে ক্যাম্পাস। অনেক শিক্ষার্থী ক্লাস শুরুর নির্দিষ্ট সময়ের আগেই চলে এসেছেন প্রিয় ক্যাম্পাসে। ঘুরে ঘুরে দেখছেন ক্লাসরুম, আঙিনা, ছাত্রাবাস। সবার চোখেমুখে আনন্দের ঝিলিক। বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডায় মেতে ওঠেন প্রায় সবাই। কতদিনের না বলা কথা, অব্যক্ত অনুভূতি সামনাসামনি ভাগাভাগি করে নিতে যেন তৎপর সবাই। যদিও তথ্যপ্রযুক্তির জন্য এখন কথা বলা, দেখা হওয়া হাতের মুঠোয়, তারপরও মুখোমুখি বসে কথা বলার যে আনন্দ তা থেকে প্রায় দেড় বছর বঞ্চিত ছিলেন তারা। এদিকে শিক্ষকদেরও দেখা গেছে প্রসন্নচিত্ত। বহুদিন পর প্রিয় ছাত্রছাত্রীদের ক্যাম্পাসে ফিরে আসায় তারাও অত্যন্ত আনন্দিত।  

করোনা মহামারির কারণে গত বছর ১৭ মার্চ দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসায় গত ২ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে মেডিক্যাল কলেজে ক্লাস শুরুর প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

এদিকে মধ্যে রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) থেকে দেশের সব প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হয়েছে। 

এতদিন অনলাইনে তাত্ত্বিক বিষয়ের পাঠদান হলেও মেডিক্যালের ব্যবহারিক ক্লাসগুলো বন্ধ ছিল। সোমবার সেসব ক্লাসও শুরু হয়েছে। আজ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এমবিবিএস কোর্সের নবীন শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টেশন হয়েছে। শিক্ষার্থীদের বরণ করে নিতে কলেজের ফটক এবং শ্রেণিকক্ষের দরজা সাজানো হয় বেলুন দিয়ে।

উপস্থিত শিক্ষার্থীরা জানান, করোনার কারণে তাদের পড়াশোনা কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কারণ অনলাইনে তাত্ত্বিক বিষয়গুলো জানা-বোঝা গেলেও মেডিক্যালে পড়ার অন্যতম অনুষঙ্গ ব্যবহারিক ক্লাস। সেটা এতদিন করা সম্ভব হয়নি। এখন প্র্যাকটিক্যাল (ব্যবহারিক) ক্লাসগুলো করে তারা তাদের সেই ঘাটতি পুষিয়ে নেয়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন বলে জানান শিক্ষার্থীরা।  

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থীরা জানান, তাদের সবকিছুই এখন প্র্যাকটিক্যাল ক্লাসনির্ভর। বিভিন্ন ওয়ার্ডে, রোগীদের কাছে গিয়ে সবকিছু দেখে আয়ত্ত করাটাই মুখ্য। সুতরাং সশরীর ক্লাসের বিকল্প নেই। 

মেডিকেলে ক্লাস শুরু ১৩ সেপ্টেম্বর  

তবে সব শিক্ষার্থীরই এক কথা, এত দীর্ঘ সময় বাড়িতে থেকে অনেকেই সশরীর পাঠগ্রহণে অনভ্যস্ত হয়ে পড়েছেন। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে কিছুটা সময় লাগবে। এক্ষেত্রে তাদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ক্লাসের সংখ্যা আরো বাড়িয়ে দেয়ার ওপর জোর দেন তারা। 

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মো. টিটো মিঞা বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্লাস শুরুর সব প্রস্তুতি নিয়েছেন তারা। প্রতিদিন প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও পঞ্চম বর্ষের জন্য প্রথম এক ঘণ্টার ক্লাস হবে অনলাইনে।

তিনি বলেন, প্রতিটি ক্লাসে আড়াই থেকে তিনশর মতো স্টুডেন্ট আছে। প্র্যাকটিক্যাল ক্লাসের জন্যও সময় ভাগ করা হয়েছে। কোনো অবস্থাতেই যেন তারা একসঙ্গে হয়ে না যায়। এর ফলে এক স্থানে বেশি জনসমাগম হবে না।

ক্লাস বন্ধ থাকায় পড়ালেখার যে ক্ষতি হয়েছে তা পুষিয়ে নেয়ার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে বলেও জানান অধ্যক্ষ ডা. মো. টিটু মিঞা।

তিনি বলেন, প্র্যাকটিক্যাল এবং ক্লিনিক্যাল ক্লাসগুলো নিতে সমস্যা হয়েছিল। এটা পোষাতে আমরা ক্লিনিক্যাল ক্লাসগুলো ডাবল নিচ্ছি। যে ক্ষতিটুকু হয়েছে ডাবল ক্লাস নিয়ে হলেও তা ঠিক করতে পুষিয়ে দিতে প্রস্তুত আছেন শিক্ষকরা।

সরকারির পাশাপাশি দেশের বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোতেও আজ থেকে ক্লাস শুরু হয়েছে। এসব কলেজেও ক্লাস শুরু হওয়ার নির্দিষ্ট সময়ের আগেই আসতে থাকেন শিক্ষার্থীরা। সবাইকে বেশ উৎফুল্ল ও উচ্ছ্বসিত দেখা যায়। বহুদিন পর বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হওয়ায় অনেকেই আড্ডায় মেতে ওঠেন। তবে কলেজগুলোর কর্তৃপক্ষ স্বাস্থ্যবিধি মানতে বেশ কড়া নজরদারি রাখছে। 

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের হিসাবমতে, দেশের ৩৭টি সরকারি এবং ৭১টি বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজে প্রায় ৫০ হাজার শিক্ষার্থী পড়ালেখা করছেন। প্রতিবছর সরকারি মেডিক্যাল কলেজের ৪ হাজার ৩৫০টি এবং বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজে ৬ হাজার ২৪২টি আসনে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়।