ঢাকা শনিবার, ২৮ মে ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

এইচএসসিতে বিষয়ভিত্তিক যত নম্বরের পরীক্ষা

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৪:১৪, ৯ মে ২০২২

এইচএসসিতে বিষয়ভিত্তিক যত নম্বরের পরীক্ষা

আগামী ২২ অগাস্ট থেকে অনুষ্ঠেয় উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় কতটা সময়ে কত নম্বরের উত্তর দিতে হবে, সেই বিভাজন প্রকাশ করেছে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড।

করোনা ভাইরাসের কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এবারও সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে এ পরীক্ষা হবে, সে অনুযায়ী কমিয়ে আনা হয়েছে পরীক্ষার নম্বর। এইচএসসিতে ২ ঘণ্টার পরীক্ষায় প্রতিটি বিষয়ে নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্নের জন্য ২০ মিনিট এবং রচনামূলক প্রশ্নের জন্য ১ ঘণ্টা ৪০ মিনিট সময় থাকবে।

এ বছর বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষা হবে ৫৫ নম্বরের। ১১টি রচনামূলক প্রশ্নের মধ্যে ৪টির উত্তর দিতে হবে পরীক্ষার্থীদের। প্রতিটি প্রশ্নের জন্য ১০ নম্বর করে মোট ৪০ নম্বর রাখা হয়েছে। এছাড়া ৩০টি নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্নের মধ্যে ১৫টির উত্তর দিতে হবে, সেজন্য রয়েছে ১৫ নম্বর।

একইভাবে নম্বর ভাগ করা হয়েছে হিসাববিজ্ঞান, ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা, ফিন্যান্স ব্যাংকিং ও বীমা, উৎপাদন ব্যবস্থাপনা ও বিপণন, ইতিহাস, ইসলামের ইতিহাস, পৌরণীত ও সুশাসন, অর্থনীতি, যুক্তিবিদ্যা, সমাজকর্ম, সমাজবিজ্ঞান, ইসলাম শিক্ষার উভয় পত্রে। এই পত্রগুলোতেও ৫৫ নম্বরের জন্য ১১টি রচনামূলক প্রশ্ন থেকে চারটি এবং ৩০টি নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্ন থেকে ১৫টির উত্তর দিতে হবে। নম্বর থাকবে ৪০ ও ১৫ করে।

পরীক্ষা ৫৫ নম্বরে হলেও চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে ১০০ নম্বরেই। সেজন্য রচনামূলকের ৪০ নম্বর থেকে প্রাপ্ত নম্বরকে ৭০ নম্বরে নৈর্ব্যক্তিক ১৫ নম্বর থেকে প্রাপ্ত নম্বরকে ৩০ নম্বরের অনুপাতে রূপান্তর করে ফলাফল তৈরি করা হবে।

পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, উচ্চতর গণিত, জীববিজ্ঞান, ভূগোল ও পরিবেশ, মনোবিজ্ঞান, পরিসংখ্যান, মৃত্তিকা বিজ্ঞান, গার্হস্থ্য বিজ্ঞান, কৃষি শিক্ষা, খাদ্য ও পুষ্টি, গৃহ ব্যবস্থাপনা ও পারিবারিক জীবন, শিশুর বিকাশ, শিল্পকলা ও বস্ত্রের উভয় পত্রে নম্বর থাকবে ৪৫ করে। এই পত্রগুলোতে ৮টি রচনামূলক প্রশ্ন থেকে ৩টির উত্তর দিতে হবে। নম্বর থাকবে ১০ করে মোট ৩০। আর ২৫টি নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্নের মধ্যে ১৫ নম্বরের জন্য উত্তর দিতে হবে ১৫টির।

এসব বিষয়ের রচনামূলকের ৩০ নম্বরের প্রাপ্ত নম্বরকে ৫০ এবং নৈবর্ত্তিক ১৫ নম্বরে প্রাপ্ত নম্বরকে ২৫ নম্বরের অনুপাতে রূপান্তর করে ফলাফল তৈরি করা হবে। বাকি ২৫ নম্বর থাকবে ব্যবহারিক পরীক্ষার জন্য। এছাড়া বাংলা দ্বিতীয় পত্র, ইংরেজী প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রে ৫০ নম্বরের নম্বর বিভাজন আগেই প্রকাশ করেছিল জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড- এনসিটিবি। এ বিষয়গুলোতেও ৫০ নম্বরের পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরকে ১০০ নম্বরে রূপান্তর করে ফল প্রকাশ করা হবে।