ঢাকা রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২

Star Sangbad || স্টার সংবাদ

করোনা : শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বৈঠক কাল 

স্টার সংবাদ

প্রকাশিত: ১৮:৩০, ৮ জানুয়ারি ২০২২

আপডেট: ১৮:৩৩, ৮ জানুয়ারি ২০২২

করোনা : শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বৈঠক কাল 

বিশ্বের পাশাপাশি দেশেও করোনা ভাইরাস সংক্রমণের হার বেড়ে চলেছে। এ পরিস্থিতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ খোলা রাখা হবে, না বন্ধ ঘোষণা করা হবে - সে সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য আগামীকাল রোববার (৯ জানুয়ারি) শিক্ষা মন্ত্রণালয় বৈঠকে বসছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সঙ্গে। সেখানে সার্বিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এ তথ্য জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।  

শনিবার (৮ জানুয়ারি) রাজধানীর ইমপেরিয়াল কলেজের রজতজয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমাদের সবার অনেক বেশি সজাগ, সচেতন থাকতে হবে। কারণ আবার করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। 

সংক্রমণ বাড়লেও শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা চাইছেন ‘শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা থাক’ - এ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমাদের আজকে মন্ত্রণালয়ে নিজেদের মধ্যে আলাপ (মিটিং) আছে। কালকে পরামর্শক কমিটির সঙ্গে মিটিং আছে। তাদের সঙ্গে কথা বলে পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমাদের ধারণা মার্চে সংক্রমণ বাড়ে। কিন্তু যে পরিমাণে বাড়তে শুরু করেছে তাতে পরিকল্পনায় কিছুটা অ্যাডজাস্টমেন্টের দরকার হবে।

তিনি বলেন, আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে চাই না। আমরা চাই আমাদের শিক্ষার্থীরা যেন টিকা নিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আসে। সেই ব্যবস্থা করা হয়েছে। তার সঙ্গে হয়তো একটু অসুবিধা হতে পারে যারা ১২ বছরের কম বয়সী, তাদের নিয়ে একটু সমস্যা হতে পারে। আমরা সেই বিষয় নিয়েও কাজ করছি।

করোনাকালে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় হওয়া ঘাটতি পূরণের ব্যবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে দীপু মনি বলেন, দেড় বছরের বন্ধে সবারই ঘাটতি হয়েছে। সেটি পূরণের জন্য ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ঘাটতি পূরণে সবচেয়ে বড় উপায় হচ্ছে, বেশিসংখ্যক শিক্ষার্থীকে শ্রেণিকক্ষে ক্লাস করানো। কিন্তু অনেকেই যেভাবে স্বাস্থ্যবিধি তোয়াক্কা না করে চলছেন, তাতে করোনার সংক্রমণ বাড়লে শিক্ষার ক্ষতিই সবচেয়ে বেশি হবে। তাই সন্তানের ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে প্রত্যেকে যেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি। এজন্য এখন সবাইকে সজাগ ও সচেতন থাকতে হবে। কারণ আবার করোনার সংক্রমণ বাড়ছে।