ঢাকা Wednesday, 24 July 2024

ব্যবসায়ীরা না করলে সরকারই ২৭ টাকা দরে বিক্রি করবে হিমাগারের আলু

সারাদেশ ডেস্ক

প্রকাশিত: 18:50, 16 September 2023

ব্যবসায়ীরা না করলে সরকারই ২৭ টাকা দরে বিক্রি করবে হিমাগারের আলু

সরকার নির্ধারিত ২৭ টাকা দরে হিমাগারে থাকা আলু বিক্রি করতে ব্যবসায়ীদের নির্দেশনা দিয়েছেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান। আগামীকাল রোববার (১৭ সেপ্টেম্বর) থেকে এই নির্দেশনা পালনের কথা বলেছেন তিনি। অন্যথায় সরকারই ২৭ টাকা দরে আলু বিক্রি করে ব্যবসায়ীদের টাকা বুঝিয়ে দেবে বলে হুঁশিয়ার করেছেন ভোক্তা অধিকারের মহাপরিচালক। 

শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আলু ব্যবসায়ী ও হিমাগার মালিক সমিতির সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

এ এইচ এম সফিকুজ্জামান বলেছেন, রোববার থেকে হিমাগারের আলু ২৭ টাকা দরে বিক্রি করতে হবে। যদি কোনো ব্যবসায়ী তার আলু বিক্রি না করেন তাহলে সরকারই ২৭ টাকা দরে সেই আলু বিক্রি করে মালিকদের টাকা বুঝিয়ে দেবে।

তিনি আরো বলেন, সরকারের অনেক ক্ষমতা রয়েছে। সরকার চাইলে আলু অধিগ্রহণ করে বেচে দিতে পারে। কিন্তু সরকার তার ক্ষমতা দেখাতে চায় না। তাই আলু ব্যবসায়ীদের আহ্বান জানাব, ২৭ টাকা দরে পাইকারি এবং খুচরায় ৩৫-৩৬ টাকা দরে আলু বিক্রি করতে হবে।

এ এইচ এম সফিকুজ্জামান বলেন, মুন্সিগঞ্জে ৬০টি হিমাগারে এখন সাড়ে ৩ লাখ টন আলু মজুদ আছে। খুচরা বিক্রেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, পাইকারিতে ২৭ টাকা দরে আলু কিনতে না পারলে স্থানীয় ইউএনওদের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। প্রশাসন তাদের ২৭ টাকা দরে আলু কিনে দেয়ার ব্যবস্থা করবে।

মুন্সিগঞ্জের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. আবু জাফর রিপনের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার (এসপি) মো. আসলাম খান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদ এলাহী, ৬ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা (ইউএনও), মুন্সিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি শহীদ-ই-হাসান তুহিন, ক্যাব সভাপতি জাহাঙ্গীর হোসেন এবং আলু ব্যবসায়ীরা।

এর আগে দুপুরে মুন্সিগঞ্জের মুক্তারপুরে রিভারভিউ কোল্ড স্টোরেজ পরিদর্শন শেষে রসরাজ সরকার নামে এক ব্যবসায়ীর ১০ হাজার বস্তা আলু হেফাজতে নিয়ে ২৭ টাকা দরে বিক্রি করে দেয়ার নির্দেশ দেন ভোক্তা অধিকারের মহাপরিচালক।

জানা গেছে, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মুক্তারপুরের হিমাগারটিতে শনিবার দুপুরে আকস্মিক পরিদর্শন করেন। পুলিশ জানায়, রসরাজ ও মহাপরিচালকের কথোপকথনে বেরিয়ে আসে থলের বিড়াল। ৫০ কেজির ১০ হাজার বস্তা আলু রিভারভিউ হিমাগারে সংরক্ষণ করেন রসরাজ সরকার। এর মধ্যে রসরাজ ২৫০ বস্তা চট্টগ্রামের আড়তদার কামরুলের কাছে বিক্রি করেন ৩৭ টাকা কেজি দরে। কোনো পাকা রসিদ ছাড়া ফোনে আলুর দাম নির্ধারণ করে দেন তিনি। তাৎক্ষণিক কামরুলের কাছে মোবাইলে ফোনে ঘটনা নিশ্চিত করা হয়। সরকার নির্ধারিত পাইকারি ২৭ টাকা কেজি দামের চেয়ে ১০ টাকা বেশি দামে আলু বিক্রির কথা স্বীকার করেন রসরাজ।

এ বিষয়ে এসপি আসলাম খান বলেন, আইন অনুযায়ী রসরাজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। হিমাগারটিতে ১ লাখ ৩২ হাজার বস্তা আলু সংরক্ষণ করা যায়। এখন সেখানে প্রায় ৭০ হাজার বস্তা আলু মজুদ রয়েছে। এর মধ্যে ২০ হাজার বস্তা বীজ আলু।